যশোরে আরও ৫৩ মামলায় ৪৯ হাজার টাকা জরিমানা

0
75

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা মোকাবিলায় সরকারি বিধিনিষেধ (লকডাউন) না মানায় যশোরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অভিযানের ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার যশোরের সদরসহ পাঁচ উপজেলায় আরো ৫৩ মামলায় ৪৮ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। ২০ এপ্রিল ২০২১ ভ্রাম্যমাণ আদালতের পৃথক অভিযানে এ জরিমানা আদায় করা হয়। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী ভূমি কমিশনারগণ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এ নিয়ে গত নয় দিনে (১৪ এপ্রিল থেকে ২২ এপ্রিল ২০২১) ভ্রাম্যমাণ আদালতের পৃথক অভিযানে ৪৪১ মামলায় তিন লাখ ৬৮ হাজার ৩৫০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। করোনাকালে সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি না মানা, নির্ধারিত সময়ের পরেও দোকান খোলা রাখা, মাস্ক না পরে জনসমাগম করে বেঁচাকেনা করার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এ অর্থ জরিমানা আদায় করা হয়।

যশোর জেলা প্রশাসকের মিডিয়া সেল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রে আরো জানা গেছে, বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শহরের বড়বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৯ মামলায় ৩২ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন। এরমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাদির হোসেন শামীম এক মামলায় দুই হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছেন। সরকারি নির্দেশনা না মেনে দোকান খোলা রাখায় এ জরিমানা আদায় করেন তিনি।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কৃষ্ণ চন্দ্র দুই মামলায় দুই হাজার টাকা, মেহরাজ শারবীন দুই মামলায় দুই হাজার, হাফিজুল হক সাত মামলায় ১২ হাজার ৭০০ টাকা, কাজী আতিকুর রহমান চার মামলায় দুই হাজার ৩০০ টাকা, নির্ধারিত সময়ের পরে অর্থাৎ দুপুর তিনটের পর দোকান খোলা রাখায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তানজিলা আখতার পাঁচ মামলায় চার হাজার ২০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ তিন মামলায় ৪০০ টাকা, মাস্ক না পরে দোকার খোলা রেখে জনসমাগম করে বেঁচাকেনা করায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান দুই মামলায় পাঁচ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা, মাস্ক না পরা এবং নির্ধারিত সময়ের পরে দোকান খোলা রাখায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মইনুল ইসলাম মঈন তিন মামলায় এক হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এছাড়া অভয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুর রহমান দুই মামলায় তিন হাজার টাকা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) নারায়ন চন্দ্র পাল দুই মামলায় চার হাজার টাকা, শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজা তিন মামলায় এক হাজার ২০০ টাকা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাসনা শারমিন মিথি দুই মামলায় এক হাজার ৫০০ টাকা, কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এমএম আরাফাত হোসেন চার মামলায় এক হাজার ৪০০ টাকা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা তিন মামলায় এক হাজার ৪০০ টাকা, ঝিকরগাছার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ডা. কাজী নাজিব হাসান ছয় মামলায় তিন হাজার ৪০০ টাকা, মণিরামপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ দুই মামলায় ৭০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন।

এরআগে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় একই অভিযোগে ২১ এপ্রিল ২৯ মামলায় ৩০ হাজার ২০০, ২০ এপ্রিল ৪৪ মামলায় ৮০ হাজার ৩০০টাকা, ১৯ এপ্রিল ৪৬ মামলায় ৩৬ হাজার ২৫০ টাকা, ১৮ এপ্রিল ৪৪টি মামলায় ২৫ হাজার ৫০০ টাকা, ১৭ এপ্রিল ৪৩টি মামলায় ৫৮ হাজার ৭০০ টাকা, ১৬ এপ্রিল ৫৬টি মামলায় ২২ হাজার ৯০০টাকা, ১৫ এপ্রিল ৫৮ মামলায় ৫২ হাজার ৫০০ টাকা এবং ১৪ এপ্রিল ৪১ মামলায় ১২ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।