যশোরে ইস্তেমা প্রাঙ্গনে জুম্মার নামাজে শরীক হন লাখোলাখে ধর্মপ্রাণ মুসল্লি

0
445

এম আর রকি : আঞ্চলিক পর্যায়ের বিশ্ব ইস্তেমার দ্বিতীয় দিনে শুক্রবার জুম্মার নামাজে গোটা উপশহর এলাকায় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের উপচে পড়া ভীড় পরিলক্ষিত হয়। সকাল থেকে হাতে জায়নামাজ,পার্টি,চাদর ও বিভিন্ন বস্ত্র নিয়ে মুসল্লিরা ভীড় জমান। এক সাথে কয়েক লাখ মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের টার্গেট নিয়ে মাথায় টুপি পরে উপশহর এলাকার বিরামপুর,সারথী টেক্সটাইল মিলস,উপশহর পার্কসহ গোটা কয়েক কিলোমিটার জুড়ে অবস্থান নেয় মুসল্লিরা। ইস্তেমার মাঠে এক সাথে লাখো মুসল্লিদের সাথে গা মিলিয়ে নামাজ আদায় করতে আসা মুসল্লিরা জানিয়েছেন, জুম্মার নামাজের জন্য ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা এক হয়েছে প্রায় দুই লক্ষাধিক মুসল্লি। জুম্মার নামাজ আদায়ের জন্য যশোর সদরের ১৫ টি ইউনিয়ন ছাড়া, জেলার অন্যান্য উপজেলা থেকে বাসে,ট্রাকে,পিকআপসহ বিভিন্ন যান বাহনে মুসল্লিরা আসেন। নামাজ আদায়ের জন্য ইস্তেমার মাঠে আসেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক উপজেলার চেয়ারম্যান শাহিন চাকলাদার,পৌর সভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু,জেলা বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সামছুলহুদা, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবুসহ সরকারী ও বিরোধী দল এবং তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। এছাড়া, জুম্মার নামাজে সামিল হয়েছিলেন,যশোরের বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। জুম্মার নামাজে মূল মাঠে সামিল হতে সকাল থেকে বিভিন্ন মুসল্লিরা হাজির হলেও তাদের স্থান হয়নি সেখানে। তার কারণ ইস্তেমার প্রথম দিন অর্থাৎ ২৮ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার থেকে ইস্তেমায় সামিল হয়েছেন যশোর সদরের ও বিভিন্ন উপজেলার মুসল্লিরা। তারা দলবদ্ধভাবে সেখানে তিন দিনের জন্য জীবন উৎসর্গ করতে সামিল হয়েছেন। চলতি বছরে সব চেয়ে জুম্মার নামাজে বড় জামাত হয়েছে শুক্রবার ২৯ডিসেম্বর তিন দিনের এই আঞ্চলিক পর্যায় বিশ্ব ইস্তেমায়। জুম্মার নামাজ আদায়ে ছিলনা কোন ভেদাভেদ। কে গরীব কে বড়? ছিলনা কোন পার্থক্য। কোন্দল ভূলে গিয়ে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আল্লাহুমা লাব্বাইক বলে সামিল হয়েছে কয়েকলাখ মুসল্লি। ইস্তেমা প্রাঙ্গন মানুষের ঢল নামে। জুম্মার নামাজ শেষ হওয়ার পর আলজেরিয়া থেকে আসা তাবলিগের মুরব্বি মোঃ আলী কাদের ইস্তেমার বয়ান শুরু করেন। তার ভাষা বাংলায় তরজমা করে বলেন তাবলিগের সাথী মুফতি মাওলানা মো: উমায়েদ হোসেন। জুম্মার শেষে বিকেলের পর ইস্তেমায় বয়ান শুরু হয়। সন্ধ্যার পর ইস্তেমা প্রাঙ্গন জন সমুদ্রে রুপান্তরিত হয়। ইসলামের বয়ান শুরু করে ইস্তেমায় আসা নামীদামী আলেম ও তাবলিগের সাথীরা। সকলে ইসলামের বয়ান শোনার জন্য অপেক্ষায় ইস্তেমা প্রাঙ্গনে অবস্থান নেয়। আজ শনিবার ৩০ ডিসেম্বর দুপুরের পূর্বে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে আঞ্চলিক পর্যায়ের বিশ্ব ইস্তেমা শেষ হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here