যশোরে ইয়াসিন খুনে আটক দু’জন হাসপাতালে ভর্তি

0
87

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে যুবলীগ কর্মী ইয়াসিন আরাফাত (৩০) হত্যায় জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে খুলনার শিরোনাম এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শহরের বেজপাড়ার চোপদারপাড়া এলাকায় ব্রাদার্স ক্লাবের মধ্যে ঢুকে সন্ত্রাসীরা ইয়াসিন আরাফাতকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় জড়িত যশোর শহরের শংকরপুর এলাকার তোরাব আলীর ছেলে রানা ও রুবেলকে আটক করা হয়েছে। আহত অবস্থায় তাদেরকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ বিষয়ে যশোর পুলিশের মুখপাত্র ডিবি ওসি রুপন কুমার সরকার জানান, বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শহরের বেজপাড়ার চোপদারপাড়া এলাকায় ব্রাদার্স ক্লাবের মধ্যে ঢুকে সন্ত্রাসীরা ইয়াসিন আরাফাতকে এলোপাতাড়ি কোপ দেয় রুবেল। এক পর্যায়ে তার হাত থেকে দা পড়ে যায়। তখন ইয়াসিনের লোকজন ওই দা দিয়ে উল্টো রুবেল ও রানাকে আঘাত করে। এতে রানার কপাল ও রুবেলের পিঠে লাগে। এতে তারাও জখম হন। হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর জড়িতদের আটকে অভিযান নামে পুলিশ। এক পর্যায়ে তারা সোর্সের মাধ্যমে খবর পায় সন্দেহভাজন রুবেল ও রানা খুলনার শিরোমনির লিন্ডা প্রাইভেট হাসপাতালে অবস্থান করে। পরে সেখানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। বৃহস্পতিবার ভোরে রুবেল ও রানাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।তাদের হাসপাতালে পুলিশ পাহারায় রাখা হয়েছে। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
নিহতের স্ত্রী শাহান আক্তার নিশা বলেন, ক্লাবে ক্যারাম খেলা অবস্থায় মাঠপাড়ার সুমন, স্বর্ণকার রানা, রুবেল, ধনী এরা সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়। আমার স্বামী মাদকের বিরোধিতা করায় ওরা হত্যা করলো। স্বামী হত্যার বিচার চাই।
নিহতের পিতা মনিরুজ্জামান জানান, ঘটনার সময় তিনি মসজিদে ছিলেন। ছেলে ইয়াসিনকে কুপিয়ে জখমের খবর শুনে হাসপাতালে আসেন। এরপর জানতে পারেন তার ছেলে মারা গেছে।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক সালাউদ্দিন বাবু জানান, রাত ৮ টা ২০ মিনিটে ইয়াসিনকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় আনা হয়। তার ঘাড়ে ও মাথার পিছন পাশে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।