যশোরে একই সময়ে বিভন্ন স্থানে একাধিক ককটেল বিস্ফোরণ, গুলির শব্দ

0
94

ডি এইচ দিলসান : শনিরাব রাত ১১ টার দিকে যশোর শহরের ধর্মতলা, শংকরপুর ও কারবালা এলাকায় বিকট শব্দে ককটেল বিস্ফরনের ঘটনা ঘটেছে। প্রত্যাক্ষদর্শীদের ভাস্যমতে ৪টি মটরসাইকেল যোগে সন্ত্রাসীরা এই বিস্ফরন ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনার পর আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে জেলা পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক টিম। তবে জানা গেছে জেলা বিএনপির তিন নেতার বাড়ির সামনে ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে।
পুলিশ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহরের ধর্মতলা বাজার এলাকায় জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকনের বাড়ির সামনে দুটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। এর কয়েক মিনিট পর শংকরপুর বটতলা মসজিদের কাছে যশোর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর বিএনপি নেতা জুলফিকার আলী জুলুর বাড়ির সামনে দুটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এছাড়া শহরের কারবালা এলাকায় জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী হায়দার রানার বাড়ির পেছনে ৪-৫ রাউন্ড গুলির শব্দ পাওয়া গেছে।
ধর্মতলার চায়ের দোকানদার বলেন আমি চিনি আনতে রাস্থার ওপারে দোকানে যাচ্ছিলাম, হটাৎ ৪টি মটরসাইকেল এসে পরা পর ২টি ককটেল বিস্ফরন ঘটিয়ে কারবালার দিকে চলে যায়। এ সময় যারা চা খাচ্ছিল তারা সব চায়ের কাপ নিয়ে টাকা না দিয়ে দৌড়ে এদিক সেদিক পালিয়ে যায়।
জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকন বলেন, ‘আমি বাসায় টেলিভিশন দেখছিলেন। এ সময় বাসার সামনে পর পর দুটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দে সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। বের হয়ে দেখি মানুষজন ছোটাছুটি করছে। বাসার সামনে ধোঁয়া উড়ছে। কয়েকটি মোটরসাইকেলে হেলমেট পরে দুবৃর্ত্তরা আমার বাড়ির উদ্দেশে ককটেল বিস্ফোরণ করে চলে যায়। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এসে আলামত সংগ্রহ করে তারাও চলে যায়।’
যশোরের ধর্মতলায় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসা যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এ কে এম শফিকুল আলম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছে। ককটেলের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।