যশোরে একটি বিশেষ শাখায় স্বয়ং কর্মকর্তা ও তার অধিনস্ত কর্মকর্তার লালসার শিকার দু’ নারী নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন!

0
246

এম আর রকি যশোর: যশোরের একটি বিশেষ শাখায় কর্মরত স্বয়ং এক কর্মকর্তা ও তার অধীনস্ত কর্মকর্তার লালসার শিকার হয়েছেন দু’জন নারী সদস্য। বিষয়টি নিয়ে ওই দপ্তরে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ বিক্ষোভ। দুই এক দিনের মধ্যে অসামাজিক কর্মকান্ড বিষয়টি র্শীষ কর্মকর্তার কানে পৌছে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।
নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে,যশোরের একটি বিশেষ শাখায় কর্মরত ই’ আধ্যক্ষরের এক কর্মকর্তা ওই দপ্তরে কর্মরত শ’ আধ্যক্ষরের অপর এক কর্মকর্তাকে শীর্ষ কর্মকর্তার দোহায় দিয়ে ১লাখ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। টাকা না দিয়ে শীর্ষ কর্মকর্তার কানে ন্যাক্কার জনক ঘটনা পৌছে দেওয়ার ভয়ভীতি দেখানো হয়। শ’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা চাকুরীর ভয়ে উক্ত টাকা দেওয়ার পর ওই দপ্তরের কর্মকর্তা সদস্য ম আধ্যক্ষরের কাছে ওই টিমের সাথে থাকার অভিযোগে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। অপরাধ না করেও ৫০ হাজার টাকা দাবি করায় তিনি দাবিকৃত কর্মকর্তার উপর বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। টাকা আদায়ের ঘটনায় ওই দপ্তরে ন্যাক্কার জনক কর্মকান্ড ফাঁস হয়ে পড়েন।
সূত্রগুলো দাবি করেছে,গত মাসের ২৭ মে যশোরের বিশেষ শাখায় কর্মরত শ’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা  স’ আধ্যক্ষরের নারী সদস্যসহ একটি টিম সীমান্ত এলাকায় যান । সেখানে শ’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা তার টিমে থাকা কর্মকর্তা ও সদস্যদের  অন্যত্র যেতে বলে ওই টিমে থাকা স’ আধ্যক্ষরের নারী সদস্যকে নিয়ে সীমান্তবর্তী এলাকায় দায়িত্বরত এক কর্মকর্তার পাবলিক বাসায় নিয়ে নারী সদস্যর সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হন। বিষয়টি ওই দপ্তরের কর্মকর্তার কানে আসার সাথে সাথে শ’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তাকে ১লাখ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। টাকা না দিয়ে শীর্ষ কর্মকর্তার কানে ন্যাক্কার জনক ঘটনা পৌছে দেওয়া হবে বলে হুমকী দেন ই’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা। শ’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তার টিমের সদস্য ম’ আধ্যক্ষরের সদস্যকে সহযোগী হিসেবে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ধার্য্য করা হয়। এতে ম’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। তিনি অপরাধ না করে টাকা দেওয়ার ব্যাপারে বিক্ষোভ শুরু করেন। তিনি ওই দপ্তরের গোটা কর্মকান্ড মুখ খুলতে পিছুপা হননি। এ ঘটনার সাথে ওই দপ্তরে কর্মরত শীর্ষ কর্মকর্তা তার অধিনস্ত উ’ আধ্যক্ষরের নারী সদস্যর সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড করেছে তা ফাঁস হয়ে পড়ে। উক্ত নারী সদস্যকে ই’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা মাস কয়েক পূর্বে তার ভাড়াবাড়িতে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যেতে বলেন। উক্ত নারী সদস্য গিয়ে দেখেন তার বাড়িতে হ’ আধ্যক্ষরের এক সদস্য অবস্থান করছে। উক্ত ব্যক্তি কর্মকর্তার বাড়িতে রান্নাবান্না ও ওই দপ্তরে দায়িত্ব পালন করেন। হ’ আধ্যক্ষরের সদস্য উ’ নারী সদস্যর প্রবেশ নিয়ে তার সাথে জোর পূর্বক অনৈতিক কর্মকান্ড ঘটানোর চেষ্টা করলে চিৎকার দিয়ে বাইরে বের হয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ওই দপ্তরে রোল কলের মাধ্যমে হ’ আধ্যক্ষরের  সদস্যকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও ওই কর্মকর্তার বাড়িতে রান্না করতে যেতে নিষেধ করা হয়। তার পর থেকে ই’ আধ্যক্ষরের কর্মকর্তা উ’ আধ্যক্ষরের নারী সদস্যর সাথে বিভিন্ন সময় অনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হওয়ার ফলে ওই নারী সদস্য অন্তস্বত্ত্বা হয়ে পড়ে। পরে উক্ত নারী সদস্য যশোর জেলার বাইরে কুষ্টিয়া জেলার একটি ক্লিনিকে গিয়ে অবৈধ গর্ভপাত ঘটায়। উক্ত নারী সদস্যকে এক মাস ছুটিতে রাখতে সহযোগীতা করেন ওই কর্মকর্তা। ওই সময় উক্ত নারী সদস্যর জরায়ূ সমস্যা দেখানো হয় ছুটি কালিন সময়ে। নারী সদস্য নয় ওই দপ্তরে কর্মকর্তা মাদক সেবন তার নিত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। উক্ত কর্মকর্তার বাইরের ভাড়া বাড়িতে ফেনসিডিলের খালি বোতল বের করেন ম’ আধ্যক্ষরের সদস্য। তাছাড়া,ই’ আধ্যক্ষর কর্মকর্তার নানা অনৈতিক কর্মকান্ডর ব্যাপারে ওই দপ্তরে কর্মরত অনেকে মুখ খুলতে শুরু করেছেন। সম্প্রতি ই’ আধ্যক্ষরের আঘাতে ওই দপ্তরে কর্মরত শ’ আধ্যক্ষরের কপাল কেটে দু’টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। উ’ ও স’ আধ্যক্ষরের দু’ নারী সদস্য নিয়ে ওই দপ্তর ছাড়াও অনৈতিক কর্মকান্ড এখন গুঞ্জন আকারে ছড়িয়ে পড়েছে শত থেকে হাজার কর্মকর্তা ও সদস্যদের মধ্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here