যশোরে একদিনে করোনায় আক্রান্ত ২৪৭ জন

0
59

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে একদিনে করোনায় আক্রান্ত ২৪৭ জন যশোরে প্রতিদিনই করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড ভাঙছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দুইশ’ ৪৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে তিনজন। যারা মারা গেছেন তারা হচ্ছেন, কেশবপুরের কন্দপপুর গ্রামের ফজিলা বেগম (৬৯), বাঘারপাড়ার হাগড়া গ্রামের নুরজাহান (৫০) ও ঝিকরগাছার কুমারী গ্রামের জাহানারা বেগম (৬৫)। এ নিয়ে জেলায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো একশ’ দুইয়ে। এদিকে, শুক্রবার হাসপাতালের রেডজোনে একঘণ্টা অক্সিজেন সাপ্লাই বন্ধ ছিল। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন করোনায় আক্রান্ত মুমূর্ষ রোগীরা। রোগীরা স্বজনরা পড়েন চরম বিপাকে।
সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন জানান, শুক্রবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টারে পাঁচশ’ ৩৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে দুইশ’ ৪৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে সদর উপজেলায় একশ’ ৭৭, কেশবপুরে তিন, ঝিকরগাছায় ২২, অভয়নগরে ১৭, মণিরামপুরে দুই, শার্শায় ১৮ ও চৌগাছায় আটজন করে রয়েছে। এ পর্যন্ত জেলায় মৃত্যু হয়েছে একশ’ দুইজনের। আক্রান্ত হয়েছেন নয় হাজার দুইশ’ ৪১ জন। সুস্থ হয়েছেন ছয় হাজার সাতশ’ ৪০ জন। হাসপাতাল আইসোলেশনে আছেন ৮৪ জন।
হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আরিফ আহমেদ জানান, বর্তমানে এ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ১শ’ আটজন। এর মধ্যে ৮০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে করোনা সংক্রমিত হয়ে ৭৬ জন এবং ১৯ শয্যার আইসোলেশন ওয়ার্ডে করোনার উপসর্গ নিয়ে ৩৮ জন ভর্তি রয়েছেন। আইসিইউতে তিনজন চিকিৎসাধীন।
এক সপ্তাহ আগে কেশবপুরের বৃদ্ধা ফজিলা বেগমের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর থেকে তিনি বাড়িতেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। ১৮ জুন সেখানে তার মৃত্যু হয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাকে দাফনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
১৫ জুন করোনা উপসর্গ নিয়ে জাহানারা বেগম হাসপাতালের ইয়োলোজোনে ভর্তি হন। সেখানে ১৬ জুন তার করোনা শনাক্ত হয়। এরপর তাকে প্রেরণ করা হয় রেডজোনে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৮ জুন ভোরে তার মৃত্যু হয়।
১৬ জুন বাঘারপাড়ার নুরজাহান করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৮ জুন গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়। হাসপাতাল থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, প্রতিদিন ইয়োলো ও রেডজোনে বাড়ছে ভর্তি রোগীর সংখ্যা।