যশোরে এক নারী হোটেল শ্রমিককে ধর্ষনের পর হত্যা লাশ নিয়ে মিছিল

0
568

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরে ছায়া (১৯) নামে এক নারী হোটেল শ্রমিককে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি যশোর শহরের পুরাতন বাসটার্মিনাল এলাকার মফিজুর রহমান বাবুর হোটেলের তিনতলার কক্ষে। পুলিশ নিহত শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অভিযোগে পুলিশ উক্ত হোটেলের মালিক ও তার স্ত্রী এবং বাবুর্চী বৃদ্ধা আমেনাকে গ্রেফতার করেছে।গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে,যশোর শহরতলী নীলগঞ্জ তাঁতীপাড়ার দলিল উদ্দিন শেখের ছেলে মফিজুর রহমান বাবু ও তার স্ত্রী নাসিমা বেগম ও যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামের আব্দুল লুৎফরের স্ত্রী বৃদ্ধা আমেনা বেগম। নিহত হোটেল শ্রমিক ছায়া খাতুন (২০) শার্শা উপজেলার ত্রিমোহনী গ্রামের ইমান আলীর মেয়ে। এদিকে হোটেল শ্রমিককে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে হোটেল শ্রমিকরা শহরে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল শেষে খুনিদের আটক ও দৃষ্টান্ত শাস্তির দাবিতে দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

এই বিছানায় ধর্ষন করে খুন করা হয়-ছবি বনি বিল্লাহ

কোতয়ালী থানার এসআই মঞ্জুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, স্থানীয় শ্রমিকদের কাছ থেকে রোববার সকালে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পাই একটি মেয়ের লাশ পড়ে আছে। নিহত যুবতীর গলায় তিনটি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মেয়েটির পরনের সালোয়ার খোলা ছিল। ঘরটি থেকে একটি জন্ম নিবন্ধন কার্ড পাই। সেখান থেকে তার নাম-ঠিকানা জানতে পারি। উক্ত এসআই ধারনা প্রকাশ করে বলেছেন, দুর্বৃত্তরা ছায়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে।
যশোর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একেএম আজমল হুদা সাংবাদিকদের জানান, যশোর শহরের পুরাতন বাস টার্মিনালের পিছনে মফিজুর রহমান বাবুর নিজস্ব তিনতলা বাড়ির নীচ তলায় খাবারের হোটেলের কর্মী ছায়া খাতুন উক্ত হোটেলের তিনতলায় হোটেলের বাবুর্চি আমেনা বেগমের সঙ্গে থাকতেন। দ্বিতীয় তলায় হোটেল মালিক বাবু তার স্ত্রী ও ছেলেদের নিয়ে বসবাস করেন। হত্যাকান্ডর রহস্য উদ্ঘাটনে হোটেল মালিক মফিজুর রহমান বাবু, তার স্ত্রী নাসিমা খাতুন এবং খাবার হোটেলের বাবুর্চি আমেনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এদিকে রোববার নিহত ছায়া খাতুনের লাশ নিয়ে যশোর শহরে মিছিল করেছে হোটেল রেস্টুরেন্ট মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়ন। শ্রমিকনেতারা ছায়া খুনে হোটেল মালিক বাবুর ছেলেদের দায়ী করছেন। তবে পুলিশ সুনির্দিষ্ট কাউকে সন্দেহ করছে না। খুনের ব্যাপারে নিহত ছায়া খাতুনের পিতা ইমান আলী বাদি হয়ে মফিজুর রহমান বাবু,তার স্ত্রী নাসিমা বেগম,ছেলে মিজান,মিরাজুল ইস

যশোর সদর হাসপাতাল থেকে লাশ নিয়ে মিছিল-ছবি বনি বিল্লাহ

লামের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেছে।
রোববার দুপুরে ছায়ার লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করে তার পিতার কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। তাকে ধর্ষণের পর ছুরি মেরে খুন করা হয়েছে বলে শ্রমিকনেতা, লাশ উদ্ধারকারী পুলিশ কর্মকর্তা ও স্থানীয়রা দাবি করেছেন। লাশ নিয়ে মিছিলটি হত্যাকা-স্থল পর্যন্ত যায়। পথে দড়াটানা ও মণিহারের সামনে দুটি সংক্ষিপ্ত পথসভা হয়। এতে বক্তৃতা করেন ইউনিয়নের সভাপতি আমির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম, কামাল পারভেজ বুলু, আইয়ুব হোসেন, অ্যাড আহাদ আলী লস্কার প্রমুখ। এসময় হোটেল শ্রমিকের নেতৃবৃন্দ দুইদিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। গৃহিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সোমবার দুপুর ১২টায় শহরে বিক্ষোভ মিছিল, মঙ্গলবার সারা দেশে দুপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ এবং জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারক লিপি প্রদান।
শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, নিহত শ্রমিক ছায়ার বাবা, মামা, খালাসহ স্বজনরা এসেছেন। তারা থানায় এজাহার দিচ্ছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘যেখানে ছায়া খুন হয়েছেন, তৃতীয় তলার সেই বাবুর্চিখানায় ওঠার একমাত্র রাস্তা রেস্তোরাঁর মধ্যে দিয়ে। দোতলায় থাকে হোটেল মালিক মফিজুর রহমান বাবুর পরিবার। তাদের সহায়তা ছাড়া কেউ তৃতীয় তলায় উঠতে পারে না। বাবুর দুই ছেলে নেশাসক্ত। সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করতে গিয়ে আশপাশে ফেনসিডিলের খালি বোতল পড়ে থাকতে দেখেছে।


খুনের ঘটনার পর থেকে বাবুর দুই ছেলে লাপাত্তা। সবকিছু দেখে-শুনে মনে হচ্ছে, ওরাই এই খুনের সঙ্গে জড়িত। পুলিশ দ্রুত ওই দুইজনকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে রহস্য উন্মোচিত হবে দাবি করেন শ্রমিকনেতা তাইজুল। তবে বৃদ্ধা আমেনা জানান,উক্ত ছায়া তার সাথে একই কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলেন। ছায়ার কাছে মোবাইলে রিং আসার পর এক যুবক শনিবার দিবাগত গভীর রাতে আসে। আমেনা জেগে গেলে উক্ত যুবক ছুরি দিয়ে ভয়ভীতি দেখানোর এক পর্যায় হাতে ছুরি দিয়ে ছায়ার গলায় উর্পুযপুরী ছুরিকাঘাত করে দ্রুত সটকে পড়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here