যশোরে কঙ্কাল উদ্ধার: তদন্ত কমিটি গঠন, ডিএনএ রেখে দাফন

0
33

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে কঙ্কাল উদ্ধারের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছে প্রশাসন। বুধবার (১ জুন) যশোর মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বাবুল কিশোর সাহাকে প্রধান করে তিন সদস্যের এই কমিটি গঠন করা হয়।

একই সাথে উদ্ধার হওয়া কঙ্কালটি থেকে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আলামত সংগ্রহ করা হয়। এরপরে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামকে (ইসলামী জনকল্যাণ সংস্থা) ওই কঙ্কাল দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ মে দুপুরে যশোর শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া নিরিবিলি এলাকা থেকে ড্রাম ভর্তি একটি কঙ্কাল উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন দুপুরে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ এলাকার বজলুর রহমানের পরিত্যক্ত জমি থেকে ওই কঙ্কাল উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানান, বেনাপোলের শাঁখারিপোতা গ্রামের অকসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা বজলুর রহমান আড়াই বছর আগে মশিউর রহমান নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে একটি জমি কেনেন। ওই জমির মালিকের আগে আজিজুল হক বুকড়া ছিলেন। আর আজিজুল হক বুকড়ার মেয়ের জামাই মশিউর রহমান। সম্প্রতি বজলুর রহমান ওই জমিতে বাড়ি নির্মাণের কাজ করছিলেন। ৩০ মে পাইলিং করতে গিয়ে মাটির নিচে পাত কুয়ার ভেতরে একটি ড্রামের সন্ধান পায় শ্রমিকেরা। পরে খবর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ড্রাম খুলে মানুষের কঙ্কাল উদ্ধার করে।

ওই জমিতে কাজ করছিলেন শ্রমিক নুরুন্নবী এবং আব্দুস ছাত্তার জানান, তারা পাইলিং এর সময় নীল রঙের ড্রামটি দেখতে পান। ওই ড্রামের ভেতরে ও আশপাশে চুন দেয়া ছিলো। দুর্গন্ধ পেয়ে তাদের সন্দেহ হয়। তারা প্রথমে জমির মালিক বজলুর রহমানকে জানান।

এই ব্যাপারে জমির মালিক বেনাপোলের বজলুর রহমান জানান, আড়াই বছর আগে সোয়া চার শতক জমিটি তিনি ক্রয় করেন। কিছুদিন ধরে তিনি কাজ শুরু করেন। এদিন শ্রমিকদের মাধ্যমে তিনি কঙ্কাল উদ্ধারের খবরটি জানতে পারেন।

এ ঘটনার পর কোতয়ালী মডেল থানা পুরাতন কসবা ফাঁড়ি পুলিশ ও পিবিআই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তাজুল ইসলাম বলেন, ওই কঙ্কাল উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছিলো।
বুধবার কঙ্কাল থেকে আলামত সংগ্রহ করে তার আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের কাছে দাফন করতে দেয়া হয়েছে।

তাছাড়া যশোর মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বাবুল কিশোর সাহার নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আব্দুস সামাদ ও ডাক্তার আব্দুর রশিদ।