যশোরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের টিকা প্রদান শুরু, গ্রহন করলেন বিশিষ্ঠ জনেরা

0
125

ডি এইচ দিলসান : করোনা ভ্যাকসিনের বিশ্বে প্রবেশ করলো যশোর। রোববার যশোর জেনারেল হাসপাতাল কম্পাউন্ডে বিশিষ্ঠজনেরা করোনাভাইরাস প্রতিরোধের টিকা গ্রহন করে এ যাত্রার উদ্বোধন করেন। যশোরের প্রত্যেকটা উপজেলার সাথে সাথে সকালে যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন, হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, যশোর বিএমএ’র সভাপতি ডাক্তার একেএম কামরুল ইসলাম বেনু, উপসেবা তত্ত্বাবধায়ক ফেরদৌসী বেগম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্বাস উদ্দিন, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য মেহেদী হাসান মিন্টু, সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোদাচ্ছের আলী ও পৌর কাউন্সিলর সন্তোষ দত্ত।
সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন বলেন, শুধুমাত্র নিবন্ধিতরাই এই টিকা গ্রহণের সুযোগ লাভ করবেন। তিনি বলেন এটা পরিক্ষীত, এটা নিয়ে গুজব ছড়ানোর কিছু নাই। তিনি বলেন শনিবার পর্যন্ত যশোরে পাঁচ হাজার ৪৭১ জন ভ্যাকসিনের জন্যে রেজিস্ট্রেশন করেছেন। যশোর সদরে পাঁচটিসহ মোট ১২টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আজ রোববার ৮৪২ জনকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।
সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, টিকা নিয়ে অহেতুক গুজব ও আতঙ্ক ছড়ানো হচ্ছে। এটা সবাইকেই গ্রহণ করা উচিত। তিনি বলেন করোনা অতিমারীর কারণে আমেরিকা, ইংল্যান্ড, ইউরোপের বহু দেশ স্তব্ধ হয়ে গেছে। ওইসব দেশের লাখ লাখ মানুষ মারা গেছে। জননেত্রী শেখ হাসনিার সুদক্ষ ও যোগ্য নেতৃত্বের কারণে আমাদের জীবন ও জীবিকা মোকাবেলা সম্ভব হয়েছে। তিনি দেশ লকডাউন করে পরস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ব্যবস্থা নেন। এছাড়া, করোনা মোকাবেলায় দেশের প্রথম সারির যোদ্ধা হিসেবে স্বাস্থ্যবিভাগ বিশেষ করে স্বাস্থ্যকর্মী, নার্স, ডাক্তাররা ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় আমরা আজ এই অবস্থানে আসতে পেরেছি।’
জেলা প্রশাসক বলেন, কোনো ঝামেলা ছাড়াই তিনি টিকা নিয়েছেন এবং সুস্থ্য রয়েছেন। সবাইকে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করে টিকা নিতে তিনি আহবান জানান।
এদিকে যশোর সেনানিবাস হাসপাতালে (সিএমএইচ) টিকা প্রদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেছেন ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের অধিনায়ক মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ নুরুল আনোয়ার। প্রথম দিন ৫০ জন সেনা সদস্যকে টিকা প্রদান করা হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে এ সেনানিবাসের ১২ হাজার ৮২১ জন সেনাসদস্য ও কর্মকর্তাকে টিকা প্রদান করা হবে।