যশোরে কলেজ ছাত্র গুলিবিদ্ধ ঘটনার তথ্য ফাঁস ডাকাত বন্ধু আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি

0
329

বিশেষ প্রতিনিধি : শনিবার সন্ধ্যায় যশোর পলিটেকনিক কলেজ ছাত্র ইসমাইল হোসেন গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় পুলিশ তার বন্ধু ডাকাত রাহুলকে আহত অবস্থায় গ্রেফতার করে হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়েছে। রাশেদুল হাসান ওরফে রাহুল (২৬) যশোর সদরের চাঁচড়া চেকপোষ্ট এলাকার নাজিম উদ্দিনের ছেলে।
যশোর চাঁচড়া ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ এএসআই জহিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেছেন, ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় পলিটেকনিক কলেজের ছাত্র ইসমাইল, তার বন্ধু রাহুল, সাইফসহ চারজন পুলেরহাটে একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের পাশে খালের ধারে বড় ধরনের কোনো অপরাধ সংঘটিত করার উদ্দেশ্যে বসেছিল। ওই সময় রাহুলের কাছে থাকা একটি পিস্তল নাড়াচাড়া করার সময় হঠাৎ করেই একটি বুলেট বের হয়ে ইসমাইলের উরুকে বিদ্ধ হয়। এরপর তাকে স্থানীয় এক ডাক্তারের কাছে নেওয়া হয়। কিন্তু সেই ডাক্তার তাকে চিকিৎসা দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি আরো জানান, ‘হাসপতালে ইসমাইলের বন্ধু সাইফই তাকে এক ব্যাগ রক্ত দিয়েছিল। ইসমাইল, রাহুল, সাইফ প্রত্যেকেই সন্ত্রাসী প্রকৃতির।’ তবে, ইসমাইল দাবি করেন, তিনি সন্ত্রাসী নন। পুলেরহাট বাজারে তারা বাবার একটি ওয়েল্ডিংয়ের দোকান আছে এবং তিনি ছাত্র। হাসপাতালে ভর্তি রাহুলের ফুফু ইয়াসমিন সাংবাদিকদের বলেন, শনিবার রাত ১০ টায় রাহুলকে পুলিশ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায়। এরপর তার চোখ বেঁধে পিটিয়ে ডান হাত ও ডান পা ভেঙে আজ ভোরে হাসপাতালে ভর্তি করেছে। আহত রাহুল জানান, তিনি মালয়েশিয়া প্রবাসী। মাসখানেক আগে তিনি দেশে এসেছেন, আবার চলে যাবেন। তিনি সন্ত্রাসী নন, অস্ত্রও তার নয়। হাসপাতাল থেকে ইসমাইলের শরীর থেকে একটি বুলেট বের করা হয়েছে। এখন তার অবস্থা আশা করা যায় সংকটমুক্ত। যশোর কোতয়ালী থানার ওসি আজমল হুদা সাংবাদিকদের বলেন, শনিবার রাত ২টায় তারা খবর পান যশোর সদরের ভেকুটিয়া এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতির সময় স্থানীয় লোকজন রাহুলকে পাকড়াও করে পিটুনি দিয়ে আহত করে। পুলিশ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র গুলি উদ্ধার করেছে। তিনি আরো জানান, পুলিশ এ ঘটনায় সাইফ ও আল আমিন নামে দুজনকে আটক করেছে। এদিকে আহত ডাকাত এবং অস্ত্র গুলি উদ্ধারের ঘটনায় কোতয়ালি থানার এসআই হাসানুর রহমান অজ্ঞাত ৩০/৩৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। উল্লেখ্য, গত পরশু ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় শহরতলীর পুলেরহাটে পলিটেকনিক ছাত্র ইসমাইল গুলিবিদ্ধ হন। সেইসময় তিনি দাবি করেন, মোটরসাইকেলে অপরিচিত দুই যুবক এসে তাকে গুলি করে পালিয়ে যায়। কিন্তু প্রকৃত ঘটনা আড়াল করে তিনি সাংবাদিকদের ভিন্ন তথ্য দেন। পরবর্তীতে তিনি সাংবাদিকদের কাছে বলেন, শনিবার বিকেলে তারা পুলেরহাটে আদ-দ্বীন মেডিকেল কলেজের পাশে মাঠে ক্রিকেট খেলছিলেন। সন্ধ্যার দিকে যখন তিনি ব্যাট করতে নামেন, তখন রাহুল ও সাইফ একটি অস্ত্র নাড়াচাড়া করছিল। হঠাৎ একটি গুলি বের হয়ে তার শরীরে বিদ্ধ হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here