যশোরে কলেজ শিক্ষকের পকেটে ইয়াবা দেওয়ার অভিযোগে উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে ভর করেছে

0
256
প্রভাষকের পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেয়া এসআই এসএম শামীম আকতারকে পুলিশ লাইনে ক্লোজড। অনলাইন ছবি।

এম আর রকি যশোর: যশোর সদর উপজেলার কাজী নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজের এক প্রভাষকের পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেয়ার চেষ্টার অভিযোগে এসআই এসএম শামীম আকতারকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হলেও প্রকৃত ঘটনার নায়ক এএসআই মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আজও ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। তাছাড়া ঘটনার ব্যাপারে বেরিয়ে এসেছে অজানা কাহিনী।

সূত্র গুলো জানিয়েছে, গত ১৩ জুন বিকেলে কোতয়ালি থানার এএসআই মনিরুল ইসলামের সোর্স তাকে জানান,কাজী নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজের এক শিক্ষক ইয়াবা বেচাকেনার সাথে জড়িত।

উক্ত সোর্সের কথা মতো এএসআই মনিরুল ইসলাম এসআই এসএম শামীম আকতারকে সোর্সের কথা গুলি জানান। শামীম এমন খবর পেয়ে তৎক্ষনিক কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদাকে জানান। অফিসার ইনচার্জ কলেজ শিক্ষক তাই বিষয়টি সত্যতা যাচাই মুলক ও মাদক দখলে থাকলে জনগনের সামনে গ্রেফতার পূর্বক জব্দ তালিকা করার পরামর্শ দেন। এদিকে,এএসআই মনিরুল ইসলাম মোবাইল করে নিজেই চুড়ামনকাটি বাজার পার হয়ে এসআই এসএম শামীম আকতারকে ফোন দেন।

এসআই এসএম শামীম আকতার তখন পালবাড়ী মোড় পর্যন্ত পৌছায়। মনিরুল ইসলাম ও তার সোর্স যশোর ঝিনাইদহ সড়কের কাজী শাহেদ সেন্টারের সামনে কলেজ প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম বিপ্লবকে গতিরোধ করে পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়ার এক পর্যায় হ্যান্ডকাপ পরিয়ে দেন। কলেজ শিক্ষক চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন জড়ো হয়ে প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম বিপ্লবকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। কিছুক্ষন পর মোটর সাইকেল যোগে এসআই এসএম শামীম আকতার ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেন। এএসআই মনিরুল ইসলামকে হ্যান্ডকাপ খুলে দিতে বলেন। এই সুযোগে এএসআই মনিরুল ইসলামের সোর্স ঘটনাস্থল থেকে লাপাত্তা হন। পরিস্থিতি উত্যক্ত হওয়ার এক পর্যায় স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের চাপের মুখে প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম বিপ্লবকে পুলিশ ছেড়ে দিতে বাধ্য হন।

স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন,পুলিশ পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দিয়ে কলেজ প্রভাষককে ফাঁসানোর চেষ্টার করে। পরিস্থিতি উত্যক্ত হওয়ার এক পর্যায় কলেজ প্রভাষকের পরনের লুঙ্গী খুলে যাওয়ার প্রাক্কালে এসআই এসএম শামীম আকতার তা নিজেই পরিয়ে দেন। প্রকৃত ঘটনার সাথে জড়িত এএসআই মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন না কলে উল্টো এসআই এসএম শামীম আকতারকে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করার আদেশ দেন। পুলিশের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছে,এএসআই মনিরুল যশোর কোতয়ালি থানায় যোগদান করে নিরীহ মানুষকে ধরে অর্থ বানিজ্য করে চলেছে। সে প্রতিদিন কোনা না কোন নিরীহ মানুষকে ফাঁদে ফেলে অর্থ বানিজ্য করতে পিছুপা হচ্ছে না। কলেজ শিক্ষককে ফাঁসানোর পরিকল্পনা করেছে এএসআই মনিরুল ও তার সোর্স আর ফেসে গেছে এসআই এসএম শামীম আকতার।

অপর একটি সূত্র বলেছে,ঘটনাস্থলে প্রভাষক লুঙ্গী পড়ে যাওয়া ছিল রহস্যজনক। তার কারণ প্রভাষক ইয়াবা ক্রয়ের উদ্দেশ্যে ঘটনাস্থলে গিয়েছিল নাকি এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সচেতন নাগরিক সমাজের কাছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here