যশোরে কলেজ শিক্ষকে পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে গ্রেফতারের ঘটনায় তদন্ত শুরু

0
226

হ্যান্ডকাপ পরিয়ে দ্রুত ১০ হাজার টাকা দাবি করে মারপিট করা কর্মকর্তা এএসআই মনিরুলে বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি

এম আর রকি যশোর: কলেজ প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম ওরফে বিপ্লবের পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়ার ঘটনায় গত ১০ দিনে ও প্রকৃত অর্থলোভী অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত এএসআই মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। গত ২০ জুন তদন্ত কমিটির কর্তা ঘটনার সাথে জড়িত এএসআই মনিরুল ইসলাম নিশ্চিত হলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। যার ফলে কলেজ প্রভাষক ও তার পরিবারের লোকজন ক্ষোভ জানিয়েছেন।

যশোর কাজী নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক সদর উপজেলার মুরাদগড় গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে জাহিদুল ইসলাম ওরফে বিপ্লব অভিযোগ এ প্রতিবেদককে জানান,গত ১৩ জুন বিকেলে তিনি মুরাদগড় বাড়ি হতে মোটর সাইকেল যোগে বারীনগর বাজারের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন। কাজী শাহেদ সেন্টার নামক স্থানে মোটর সাইকেল নিয়ে পৌছালে অজ্ঞাতনামা এক যুবক তার মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে অশ্লিল ভাষায় কথা বার্তার এক পর্যায় মোটর সাইকেল থামাতে বাধ্য হয়। এর পর কোতয়ালি থানায় কর্মরত এএসআই মনিরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে এসেই জাহিদুল ইসলাম বিপ্লবের হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে দিয়ে তার পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে বিপ্লব চিৎকার দেয়। দু’জনে মিলে প্রভাষক বিপ্লবকে মারপিটের এক পর্যায় অশ্লিষ ভাষায় কথা বার্তা বললে বিপ্লব প্রতিবাদ জানায়। বিপ্লবের চিৎকার ও মারপিটের ঘটনা প্রত্যক্ষ করে স্থানীয় বাজারের ব্যবসায়ী সেলিম এগিয়ে এসে সাদা পোশাকে ব্যক্তিদের পরিচয় জানতে চাওয়ার এক পর্যায় প্রভাষকের হ্যান্ডকাপ খুলে দিতে বলেন। সেলিম আসার পূর্বে এএসআই মনিরুল ইসলাম প্রভাষক বিপ্লবকে জানান,১০ হাজার টাকা দিলে হ্যান্ডকাপ খুলে দিয়ে তাকে মুক্তি দেবেন। এরই মধ্যে দু’জনে জনরোষে পড়লে মিনিট ৪ পর কোতয়ালি থানার এসআই এসএম শামীম আকতার ঘটনাস্থলে আসেন। তিনি প্রভাষকের পরিচয় জানতে পেরে এএসআই মনিরুল ইসলামকে হ্যান্ডকাপ খুলে দিতে বলেন। পরবর্তীতে তিনি ঘটনা বুঝতে পেরে প্রভাসক জাহিদুল ইসলাম বিপ্লবকে মুক্তি দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে চলে আসেন। এ ঘটনার পর ওই দিন এসআই এসএম শামীম আকতারকে পুলিশ লাইজে ক্লোজ করা হয়। প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম বিপ্লব আরো জানান, এই ঘটনায় যশোরের সহকারী পুলিশ সুপার হেড কোয়ার্টার তানভীর আহমেদ তাকে ডেকে পাঠান। তিনি ঘটনার তদন্ত কার্যক্রম হিসেবে বিপ্লবের লিখিত জবানবন্দি গ্রহন করেন। ২০ জুন বিপ্লবের সাথে এসআই এসএম শামীম আকতার ও এএসআই মনিরুল ইসলামের জবানবন্দি গ্রহন করেন তদন্ত কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ। নির্ভযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন, এএসআই মনিরুল ইসলাম তার জবানবন্দিতে হেড কোয়ার্টারের সামনে লিখিত দিয়ে জানান, গত ১৩ জুন বিকেলে প্রভাষক জাহিদুল ইসলামের গতিরোধ করে তার চালক। চালক ও তিনি মিলে প্রভাষককে মারপিট ও হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে দিয়ে মুক্তি বাবদ ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলে মামলা দিয়ে চালানের ভয়ভীতি দেখায়। এসআআই এসএম শামীম আক্তার শিক্ষকের মর্যাদা দিয়ে তাকে ছেলে দিয়ে চলেও আসলেও এএসআই মনিরুল ইসলামের ব্যবহার ও তার ওদ্ধোর্তপূর্ন আচারণে হতবাক হয়ে পড়েছেন। ঘটনার সাথে জড়িত প্রকৃত অপরাধী মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে গত ১০ দিনেও ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। যার পলে যশোর কোতয়ালি থানা সাতমাইল বারীনগর বাজার ও তার আশপাশ এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে মিশ্র প্রক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।