যশোরে কারারক্ষী নিয়োগে এবার মাথাপিছু ডাকা উঠেছে সব্বোর্চ ১৫লাখ টাকা

0
252

এম আর রকি : যার টাকা আছে তার চাকুরী কে ঠেকায়? যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার মাঠে কারারক্ষী নিয়োগে তেমন ঘটনার গুঞ্জন উঠেছে। টাকায় চাকুরী নিশ্চয়তার ডাক উঠেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। রোববার রক্ষী নিয়োগের শেষ দিনে সকাল থেকে কারাগার প্রাঙ্গন এমন অভিযোগ উঠে জোরে সোরে। প্রথমে কারারক্ষী নিয়োগে ডিজিটাল পদ্ধতি অনুসরণ করা হলেও শেষমেষ তা বাজারে মাছ বিক্রির ন্যায় চাকুরী বাজারে দর উঠেছে বলে কারাগার সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো অভিযোগ করেছেন। মাথাপিছু রক্ষী নিয়োগে নূন্যতম ১২ লাখ থেকে ১৫ লাখ টাকা সর্ব্বোচ্চ পর্যন্ত দাঁড়িয়েছে।
কারাগার সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছেন,গতকাল রোববার সকাল থেকে খুলনা বিভাগের ১০ জেলা থেকে রক্ষী নিয়োগে মাথা পিছু প্রার্থীদের কাছে চাকুরী নিশ্চয়তার ডাক উঠে। তবে এই ডাক উঠে অতি গোপনীয়ভাবে। সূত্রটি দাবি জানিয়েছে,যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে কারারক্ষী মতিন,একই কারাগারে বর্তমানে রক্ষী সাবেক আইজি অফিসের সিআইডি আজাদ ও সাতক্ষীরা জেলা কারাগারে কর্মরত কারারক্ষী কিবরিয়া এবার নিয়োগের জন্য প্রার্থী সংগ্রহ করে। সূত্রটি জানিয়েছেন, এই তিনজন ছাড়াও কারাগার সংশ্লিষ্ট বেশ কয়েকজন মাথা পিছু নূন্যতম ১৩ থেকে ১৫ লাখ টাকা নিয়ে রক্ষী নিয়োগে চুড়ান্ত করেছে।
সূত্রগুলো আরো জানায়,কারারক্ষী নির্বাচনী পরীক্ষা বাস্তবায়নে গত ২৬ এপ্রিল কেন্দ্রীয় কারাগারের মাঠে সকাল থেকে রক্ষী নিয়োগে মাপঝোক শুরু হয়। রক্ষী নিয়োগে কারারক্ষী নির্বাচনী পরীক্ষায় সভাপতি কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মোছাঃ জাহানারা খাতুন ,সদস্য হিসেবে গোপালগঞ্জ জেলা কারাগারের সুপার ইকবাল হোসেন,বাগের হাট জেলা কারাগারের সুপার গোলাম দস্তগীর ও সদস্য সচিব হিসেবে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবু তালেব দায়িত্ব পালন করেন। বুধবার সকালে খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় প্রায় দেড় সহ¯্রাধিক প্রার্থী যশোর কেন্দ্রীয়কারাগারের মাঠে অবস্থান নেয়। প্রথম দিন মাপঝোকের কাজ সম্পন্নর এক পর্যায় লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে শুরু হয় মৌখিক পরীক্ষা। মৌখিক পরীক্ষা নেওয়ার মধ্যে বিভিন্ন লিংকের মাধ্যমে মাথা পিছু রক্ষী প্রতি নূন্যতম ১৩ থেকে ১৫লাখ টাকা দর উঠে। চাকুরী বিধি মোতাবেক মুক্তিযোদ্ধা কিংবা মেধাবী ও বিভিন্ন কোঠায় প্রার্থী চুড়ান্তর ক্ষেত্রে নীতিমালা অনুসরনের পাশাপাশি দর উঠা টাকা চাকুরী নিশ্চিত করেছে। অপর একটি সূত্র বলেছে,মন্ত্রী,এমপিদের তালিকার দোহায় দিয়ে তাদের রক্ষী নির্বাচনী কমিটি নিজের উদ্দেশ্য সফল হয়েছে। সূত্রগুলো জানিয়েছে,রোববার ৩০ এপ্রিল সকালে রক্ষী নিয়োগে চুড়ান্ত প্রার্থী নির্বাচন করতে ডাক ওঠে। সূত্রগুলো আরো জানায়, খুলনা বিভাগে এবার ১শ’র অধিক রক্ষী নিয়োগের পদ সৃষ্টি করা হয়। এই পদ সৃষ্টির পর পর খুলনা বিভাগে যারা রক্ষী নিয়োগে আগ্রহী তাদের সন্ধানে কারারক্ষী মতিন,আজাদ,কিবরিয়া মরিয়া হয়ে ওঠে। সূত্রগুলো আরো জানায়,খুলনা বিভাগে রক্ষী নিয়োগে যারা নির্বাচিত হয়েছেন,তাদের সাথে লিংক তৈরী করে মাথাপিছু উচ্চদরে নিয়োগের নিশ্চয়তা চুড়ান্ত করে একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়। রক্ষী নিয়োগের ব্যাপারে নির্বাচনী কমিটির সভাপতিসহ অন্যান্যদের মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তাদের মোবাইল বন্ধ থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। আজ সোমবার রক্ষী নিয়োগ কমিটির সভাপতি ও দু’জন সদস্য যশোর ত্যাগ করবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here