যশোরে গণহত্যার পরিবেশ থিয়েটার ‘কঙ্কাল ভূমি’ মঞ্চস্থ

0
35

নিজস্ব প্রতিবেদক : একাত্তরের গণহত্যায় যশোরের প্রেক্ষাপটকে প্রধান উপজীব্য করে লেখা নাটক ‌‌‘কঙ্কাল ভূমি’ মঞ্চস্থ হয়েছে।
বৃহস্পতিবার রাতে শহরের ডা. আবদুর রাজ্জাক মিউনিসিপাল কলেজ ক্যাম্পাসটিকে মঞ্চ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। দেড় শতাধিক শিল্পীর অংশগ্রহণে গণহত্যার পরিবেশ থিয়েটারে এটি ছিল ব্যতিক্রমী উপস্থাপনা।

এক ঘণ্টা ২৫ মিনিটের নাটকে দর্শক কখনো ভয়ে আঁতকে উঠেছে, আবার কখনো অশ্রুসিক্ত হয়েছেন। প্রতিটি দৃশ্যপট দর্শক হৃদয়ে দাগ কেটেছে, হৃদয় স্পর্শ করেছে।

নাটকে মুক্তিযুদ্ধকালের যশোরের প্রায় ২০টি হৃদয়বিদারক নির্মম হত্যাযজ্ঞের সেই সব বীভৎসতা তুলে ধরা হয়েছে। জেলা শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে ও দীপংকর দাস রতনের রচনায় নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন কামরুল হাসান রিপন।

নাটকে মূলত ১৯৭১ সালে বাঙালি নিরীহ মানুষ, মুক্তিযোদ্ধা, যশোর অঞ্চলের বুদ্ধিজীবী, রাজনীতিবীদদের প্রতি পাকিস্তানিদের ক্ষোভ, রাজাকার-আলবদরদের সহায়তায় তাদের ধরা এবং অমানুষিক নির্যাতনের মাধ্যমে তাদের হত্যা করার দৃশ্য ফুটে ওঠে।

মঞ্চায়ন হয় কীভাবে যশোর অঞ্চলের মানুষদের ধরে এনে চাঁচড়া মুরগি ফার্ম এলাকায় নির্মমভাবে হত্যা করে ফেলে রাখা হয়।

যশোরের মণিরামপুরে মেহের রাজাকারের নির্মমতার লোমহর্ষক দৃশ্য। স্থানীয় রাজাকারদের নিয়ে তার গড়ে উঠা ‘মেহের জল্লাদ’ বাহিনীর হত্যাযজ্ঞ-লুট-নির্যাতন।

মণিরামপুরে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেওয়া তরুণ যুবক আকরামের ওপর নির্মম নির্যাতনের ভয়াল দৃশ্য। মঞ্চায়ন হয়, বৃহত্তর যশোরে আইনজীবী, আদর্শবান রাজনীতিক ও দেশপ্রেমিক হিসেবে সুপরিচিত অ্যাডভোকেট মসিউর রহমানের ওপর বেয়নেটের খোঁচায় অসংখ্য রক্তাক্ত ক্ষতের যন্ত্রণা ভোগ করার দুঃসহ বন্দিজীবনের দৃশ্য।

যশোরের স্থানীয় রাজাকারের সহায়তায় যশোর দারুল উলুম হাফিজিয়া মাদ্রাসায় অর্ধশতাধিক ছাত্রদের নির্মম হত্যাযজ্ঞের লোমহর্ষক কাহিনী। দেখানো হয় চৌগাছার জগন্নাথপুর ভারতের মিত্রবাহিনী ও মুক্তি বাহিনীর সঙ্গে পাক সেনাদের মল্লযুদ্ধ। এছাড়া যশোরের ২০টি স্থানের হত্যাযজ্ঞ নিয়ে নাটকটির দৃশ্যায়ন তুলে ধরা হয়েছিলো। যা দেখে হাজারো দর্শকের হৃদয় স্পর্শ করেছে।

নাটকটির নির্দেশক কামরুল হাসান রিপন বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে জাতির বীর সন্তানদের ত্যাগ কখনো ভোলার নয়। তাই বাঙালি জাতিকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে শিল্পের আলোয় নতুনভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে তুলে ধরার চেষ্টায় যশোরের বধ্যভূমি নিয়ে নাটক ‘কঙ্কাল ভূমি’।

আমাদের জন্য এটা একটা সৌভাগ্য। মুজিববর্ষের পরপরই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমরা যশোরবাসীর কাছে পৌঁছাতে যাচ্ছি গণহত্যা বধ্যভূমি পরিবেশ থিয়েটার নিয়ে। শিল্পের সব শাখাতেই মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক কাজ হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর যে গণহত্যারও ৫০ বছর তা এই পরিবেশ থিয়েটারের মাধ্যমে আমরা তুলে ধরতে চাই। নাটকটির মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নতুন প্রজন্মের কাছে বিছুটা পৌঁছে যাবে।

এদিকে, নাটক শুরুর অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন এবং সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় এই যশোর অঞ্চলে মানুষের উপর চালানো হতো অকথ্য নির্যাতন। সেই দুঃসহ স্মৃতি এখনো বয়ে বেড়াই যশোরবাসী।

মুক্তিযুদ্ধে সংঘটিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে এ কর্মসূচি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিগুলো ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে জানাতে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক এসব নাটক তৃর্ণমূল পর্যায়ে মঞ্চায়ন করে নতুন প্রজন্মর মাঝে ছড়িয়ে দিতে সংস্কৃতিকর্মীদের এমন উদ্যোগ বেশি বেশি করে নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালে বিশেষ অতিথির বক্তব্য বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী বলেন, পরিবেশ নাটক হলো প্রচলিত প্রেক্ষাগৃহের বাইরে গিয়ে অন্যত্র নাটক মঞ্চায়ন। এ পদ্ধতিতে যেকোনো স্থানে মঞ্চায়নের উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টি করে নাট্য পরিবেশনা সম্ভব। বাংলাদেশে এ ধারণা ভিন্নমাত্রা পেয়েছে।

যেখানে ঘটনা সংঘটিত হয়েছে, ঠিক সেখানেই নাটক মঞ্চস্থ করে পরিবেশ থিয়েটার প্রকৃত অর্থে পরিবেশবাদী হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যে মুক্তিযুদ্ধের উপর নির্মিত ৩৭টি জেলায় গণহত্যা নিয়ে নাটক পরিবেশিত হয়েছে। আজ ৩৮ তম অনুষ্ঠিত হলো দেশের প্রথম স্বাধীন জেলা যশোরে।

আশা করি এই নাটকের মাধ্যমে আমরা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে পারবে।

যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বৃহত্তর যশোরের মুজিব বাহিনীর প্রধান আলী হোসেন মনি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন, দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বুলু, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি অধ্যাপক সুকুমার দাস, জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তন্দ্রা ভট্টাচার্য্য, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল, শিক্ষাবিদ তারাপদ দাস প্রমুখ।