যশোরে গভীর রাতে এক বাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় মামলা

0
31

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়নের বি পতেঙ্গালী গ্রামের এক বাড়িতে গভীর রাতে নগদ ২লাখ টাকা ও ১২ লাখ টাকার মালামাল দূর্ষর্ধ ডাকাতির ঘটনায় রোববার ২৭ নভেম্বর রাতে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি করেন,ওই গ্রামের মৃত নয়ন চক্রবর্তীর ছেলে কমল চক্রবর্তী। মামলায় আসামী করেছেন,অজ্ঞাতনামা ৬/৭ জন ডাকাত দখল। ডাকাতি ঘটনা গত ২৪ ঘন্টায় পুলিশ ডাকাতির সাথে জড়িত কাউকে সনাক্ত করতে কিংবা ডাকাতির সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
বাদি মামলায় উল্লেখ করেন, গত ২৬ নভেম্বর শনিবার রাত ১১ টায় খাওয়া দাওয়া শেষ করে দোতলা ৮ কক্ষ বিশিষ্ট ভবনের ঘরের দরজা বন্ধ এবং নিচের তলার গেইট এর লোহার গ্রীলৈর দরজা বন্ধ করে বাদি ও তার স্ত্রী অরুন্ধতীসহ নীচতলার সিঁড়ি ঘর পার হয়ে হাতের বাম পাশে বাদির নিজ শয়ন কক্ষের ঘরে, বাদির কাকাতো ভাই শ্যামল চক্রবর্তী তার স্ত্রী চানু চক্রবর্তীসহ সিড়ি ঘরের ডান পাশের রুমে, সিড়ি ঘরের বাম পাশের রুমে বাদির কাকিমা মঞ্জু চক্রবর্তী দোতলার দক্ষিন পাশের রুমে বাদির এক মাত্র ছেলে অনিক চক্রবর্তী ও দোতলার উত্তর পাশের রুমে বাদির কাকাতো ভাই সঞ্জিব চক্রবর্তী তার স্ত্রী সঙ্গীতা চক্রবর্তী ঘুমিয়ে পড়েন। রাত আনুমানিক ২ টা বেজে ৩৫ মিনিটের সময় ৬/৭ জন অজ্ঞাতনামা ডাকাত দল বাদির বসত বাড়ির রান্না ঘরের জানালার গ্রীল কেটে এবং রান্না ঘরের দরজার তালা ভেঙ্গে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে এবং বাদির শয়ন কক্ষের দরজা ধাক্কা মেরে ভেঙ্গে ফেলে। ঘরে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্রের মুখে রেখে বাদিকে বলে চুম থাকবি। কোন প্রকার ডাক চিৎকার করলে খুন করে ফেলবে। বাদি জোরে কথা বললে এক ডাকাত বাদির কপালে স্বজোরে আঘাত করে জখম করে। ডাকাতেরা বাদির ধুতি ও গামছা দিয়ে দু’জনকে বেঁধে ফেলে। বাদির স্ত্রীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আলমারীর চাবি কোথায় আছে জানতে চাইলে সে ভয়ে বলে দেয়। আলমারি খুলে নগদ ১০ হাজার টাকা, ৭ ভরি ১৫ আনা ওজনের স্বর্ণের গহনা লুট করে। এরপর বাদির কাকাতো ভাই শ্যামল চক্রবর্তীর ঘরে ঢুকে তাকে ও তার স্ত্রীকে একই ভাবে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আলমারির চাবি খুলে নগদ ১লাখ ৯২ হাজার টাকা ৪ ভরি ১২ আনা স্বর্ণালংকার ও বাদির কাকিমা মঞ্জু চক্রবর্তীর ঘরে ঢুকে তার কানে থাকা ১ জোড়া স্বর্ণের দুল জোর করে টান দিয়ে কেড়ে নেয়। একজন ডাকাত সদস্য বাদির ছেলে অনিক চক্রবর্তীর দরজার কড়া নাড়লে সে দরজা খুলে দিলে তাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তার মানি ব্যাগ থেকে নগদ ৩ হাজার টাকা, বাদির কাকাতো ভাই সঞ্জিব চক্রবর্তী ডাকাত দলের ডাকাতি করার সময় শব্দের আওয়াজে ঘুম ভেঙ্গে বুঝতে পেরে পাড়া প্রতিবেশীদের মোবাইল ফোনে ডাকাতি করার কথা জানালে প্রতিবেশীরা ডাক চিৎকার দিলে ডাকাত দল মাত্র ২০ মিনিট যাবত ডাকাতি করে চলে যাওয়ার সময় গ্রামের লোকজন ঘেরাও করার চেষ্টা করলে ডাকাত দলের সদস্যরা একটি হাত বোমা নিক্ষেপ করে। ডাকাত দলের বোমায় প্রতিবেশী সুমন গাজী আহত হয়। তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ওই রাতে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ডাকাতি মামলা হলেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ আবদুল আলীম গত ২৪ ঘন্টায় লুন্ঠিত স্বর্ণালংকর ও নগদ টাকা উদ্ধার কিংবা ডাকাতি সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।#