যশোরে চাঁদাবাজদের দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়ায় লেদ মালিককে অপহরণের অভিযোগে দু’জন গ্রেফতার

0
39

বিশেষ প্রতিনিধি : চাঁদাবাজাদের নির্ধারিত চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় মারপিটের ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় ৩ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ দুই চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করেছে। এরা হচ্ছে, সদর উপজেলার আরবপুরের নজরুল সিকদারের ছেলে আরমান সিকদার (১৮) একই এলাকার সামাদ গাজির ছেলে সালাম হোসেন (২০)। যশোর শহরের খড়কি দক্ষিনপাড়ার মোস্তফা ফারাজির ছেলে মোস্তফা ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপের স্বত্তাধিকারি আনোয়ার হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে কোতয়ালি থানায় মামলা করেন। তিনি মামলায় তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত নামা আরো ৪/৫ জনকে আসামি করেছেন।
আনোয়ার হোসেন মামলায় উল্লেখ করেন, যশোর শহরতলী চাঁচড়া চেকপোষ্ট মোড়ে একটি মোস্তফা ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপ নামে তার একটি লেদ আছে। বিল্লালসহ অজ্ঞাত নামা বেশ কয়েকজন প্রায় তার লেদে এসে চা খাওয়ার জন্য টাকা দাবি করে আসছে। ২৩ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একটি পালসার মোটর সাইকেলে আরমান সিকদার, সালাম হোসেন ও ইজিবাইকে বিল্লাহ হোসেনসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন তার লেদে এসে তাদের দাবিকৃত ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। দিতে অস্বীকার করায় সন্ত্রাসীরা আনোয়ার হোসেনকে লেদ থেকে জোর পূর্বক ইজিবাইকে তুলে ধর্মতলা রোডে গাজীর বাজারের দিকে নিয়ে যায়। যাওয়ার এক পর্যায় সে চাঁদাবাজদের বাইক থামাতে বললে আনোয়ারকে মারপিট করে জখম করে। টাকা না দিলে প্রানে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। বাইকটি গাজির বাজারের কাছে পৌছুলে আনোয়ার হোসেন বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দিলে লোকজন ছুটে আসতে দেখে বিল্লালসহ অজ্ঞাত নামা সন্ত্রাসীরা বাইক ফেলে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন পালসার মোটর সাইকেলে থাকা আরমান সিকদার ও সালাম হোসেনকে ধরে গণপিটুনি দেয়। পরে দুজনকে থানায় সংবাদ দিলে থানা থেকে পুলিশ এসে তাদেরকে গ্রেফতার করে। এঘটনায় লেদের স্বত্তাধিকারি আনোয়ার হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেফতারকৃত দু’জনসহ তিনজনের নাম ও অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে মামলা করেন। শুক্রবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।গ্রেফতারকৃত আসামীরা জবানবন্দী দিতে পারে বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।#