যশোরে ছাত্রলীগ নেতা ইমনের হত্যা মিশন

0
623

প্রত্যক্ষদর্শীরা মুখ খুললে বেরিয়ে আসার সম্ভবনা পিতার অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে মামলা
এম আর রকি : ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার হেসেন ওরফে ইমন (৩২) হত্যাকান্ডের ঘটনায় গত ৫ দিনে পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। ছেলে হত্যা কান্ডের বিচারের আশায় পিতা আনোয়ার হোসেন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কোতয়ালি মডেল থানায় বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করেছে। মামলাটি কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদা নিজে তদন্তর দায়িত্ব নিয়েছেন।
যশোর শহরের বেজপাড়া বিহারী কলোনী মসজিদ বাড়ি রোডের বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাদি হয়ে দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, গত ২৮ অক্টোবর রাত আনুমানিক ১১ টায় বেজপাড়া গোলগোল্লার মোড় সালামের ফার্নিচারের দোকানের সামনে রাস্তায় চৌকিতে বসে ওই এলাকার আবুল হোসনের ছেলে রানা,সিরাজ উদ্দিনের ছেলে সোহেল,মৃত মোসলেমের ছেলে শাহিন শাহ,পিরু হোসেনের ছেলে মুরাদ বসে গুলু খেলছিল। চৌকির সাথে পশ্চিম পাশে লাগানো বেঞ্চে ওই এলাকার জামালের ছেলে শাকিল ও তার ছেলে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মনোয়ার হোসেন ওরফে ইমন বসে গুলু খেলা দেখছিল। উক্ত বেঞ্চের দক্ষিণ পাশে ওই এলাকার কামালের ছেলে কালাম ও সালাম অবস্থান করছিল। হঠাৎ ১০/১২ জন অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থলে এসে ইমনকে লক্ষ্য করে পিস্তল দিয়ে ৩ রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে। গুলি ইমনের বুকের বাম পাশে ও ডান কাদে বিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। সন্ত্রাসীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। গুরুতর অবস্থায় ইমনকে ইজিবাইক যোগে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আনলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করে। পরের দিন ২৯ অক্টোবর দুপুরে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ইমনের লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্নর পর পুলিশ হস্তান্তর করে।স্থানীয় সূত্রগুলো বলেছে,যারা লুডু খেলছিল তারা দূবৃর্ত্তদের দেখেছে। ইমনকে পিস্তল দিয়ে কে গুলি করেছে তা ঘটনাস্থলে উপস্থিত লুডু খেলারত উল্লেখিতদের মধ্যে সকলে প্রত্যক্ষ করেছেন। তারাই বলতে পারেন ইমনকে কে গুলি করেছে। ইমনের হত্যা মিশনে কে অংশ নিয়েছে তা পরিস্কার হয়ে যাবে প্রত্যক্ষদর্শীরা মুখ খুললে। স্থানীয় লোকজন জানান, মনোয়ার হোসেন ইমন এলাকায় মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় তাকে হত্যাকান্ডের শিকার হতে হয়েছে এটা নিশ্চিত করে এক বাক্যে সবাই বলাবলি করছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা হত্যাকান্ডের সাথে যারা জড়িত তাদেরকে চিনতে পারে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদা হত্যাকান্ডের প্রত্যক্ষদর্শীদের এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করেননি। তবে তিনি তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে এই হত্যা মিশনে কারা জড়িত সে ব্যাপারে পরিষ্কার ধারনা পাবেন।তাছাড়া, এই হত্যা মিশনে যারা জড়িত তারা ঘটনার রাত থেকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র অবস্থান নিয়েছে বলে এলাকার সূত্রগুলো জানিয়েছেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here