যশোরে জনতার ধাওয়া খেয়ে পালালো দুই পুলিশ কর্তা

0
281

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছায় এবার ফেনসিডিল দোকানে রেখে এক চায়ের দোকানিকে আটকের চেষ্টার অভিযোগে পুলিশের দুই এএসআইকে ধাওয়া দিয়ে হটিয়েছে জনতা। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার খড়িঞ্চা বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার বিচার দাবি করে সড়কে টায়ার পুড়িয়ে অবরোধ করে গ্রামবাসী। পরে যশোরের এডিশনাল এসপি নাইমুর রহমানের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
ভুক্তভোগী খড়িঞ্চা গ্রামের চায়ের দোকানি আব্দুর রহমান বলেন, প্রতিদিনের মত মঙ্গলবার দুপুরে তিনি দোকান বন্ধ করে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরের পুড়াপাড়া বাজারে যাই। সেখান থেকে দুপুর একটার দিকে দোকানের মালামাল নিয়ে ফিরে দেখতে পাই, খড়িঞ্চা বাজারে অবস্থিত আমার চায়ের দোকানের পাশে একটি সাদা মাইক্রোবাস দাড়িয়ে আছে এবং চৌগাছা থানার এএসআই সাজ্জাদ ও এএসআই মাসুদ দোকানের পিছনে কিছু রাখছেন। তখন আমি কে ওখানে, কী রাখছেন বলে চিৎকার করি। চিৎকার শুনে দুই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, এই ফেনসিডিল তুই দোকানের পিছনে রেখেছিস। তুই এর মালিক। এ কথা বলে তারা আমাকে আটকের চেষ্টা করেন। আটকের প্রতিবাদ করলে বাজারে থাকা লোকজন এগিয়ে এসে দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে ঘিরে বিক্ষোভ করতে থাকে। পরে গ্রামের মেম্বার আব্দুল মান্নান এসে দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে ছাড়িয়ে দেন।
এ ঘটনার প্রতিবাদে এবং ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে বিচারের দাবিতে স্থানীয় জনতা চৌগাছা-পুড়াপাড়া সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে এবং যানচলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে চৌগাছা থানার ওসি (তদন্ত) মারুফ আহমেদ ও সেকেন্ড অফিসার আকিকুল ইসলামের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। এরপর খবর পেয়ে যশোরের এডিশনাল এসপি ‘ক’ সার্কেল নাইমুর রহমান গিয়ে ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
এলাকাবাসী জানায়, দোকানি আব্দুর রহমানের সঙ্গে মেম্বার আব্দুল মান্নানের বিরোধ রয়েছে। এ জন্য তিনি দুই পুলিশ দিয়ে চায়ের দোকানিকে হেনস্থা করতে চেয়েছিলেন। এ বিষয়ে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ‘ক’ সার্কেল নাইমুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। ঘটনা তদন্তে পুলিশের কেউ যদি কোনো প্রকার অপকর্মের সঙ্গে জড়িত থাকে অবশ্যই তার বিচার হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here