যশোরে জামিনপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতার পূর্বক উৎকোচে মুক্তি দেওয়ার অভিযোগ

0
221

এম আর রকি : যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তর থেকে জামিনে বের হওয়া বিভিন্ন মামলার আসামীকে ধরে পুলিশ বাণিজ্যে মেতে উঠার খবর পাওয়া গেছে। আদালতে বিজ্ঞ বিচারকের দেওয়া জামিন পাওয়া ব্যক্তিরা কারাগারের ভিতরের প্রধান ফটকের মুখ থেকে আটক ও মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা প্রতিক্রিয়া । গত এক বছর যাবত কারাগারের ফটক থেকে বের হওয়া বিভিন্ন মামলার জামিন পাওয়া কমপক্ষে এক সহ¯্রাধিক ব্যক্তিদের জিম্মি করে পুলিশের অর্থলোভীরা কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।
বিভিন্ন সূত্রগুলো বলেছে,যশোর জেলা পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট কারাগার থেকে বের হওয়া জামিন প্রাপ্ত ব্যক্তিদের গ্রেফতার করে নিজেদের পকেট ভারী করছে। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার দোহায় দিয়ে কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রধান ফটকের সামনে থেকে গ্রেফতার করে তাদেরকে মামলা সংক্রান্ত্র সংশ্লিষ্ট থানায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পরে তাদেরকে বিভিন্ন নতুন মামলায় পুনরায় গ্রেফতার দেখানোসহ বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ব্যক্তি হিসেবে নূন্যতম ২০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৫লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে তাদেরকে নাশকতা মামলায় পুনরায় গ্রেফতার দেখানোসহ বিভিন্ন মামলা রুজু করে আদালতে চালান দেওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। টাকা না পওয়া পর্যন্ত গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের থানা হাজতে আটক রাখা হচ্ছে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। রোববার সকালে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়ার সময় কারগারের ভিতরের প্রধান ফটকের সামনে থেকে পুলিশ মাওলানা আলমগীর হোসেনকে গ্রেফতার করে। সে মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার তালখড়ি গ্রামের মোকছেদ আলীর ছেলে। নাশকতা মামলায় কারাগারের বেশ কয়েক মাস অবস্থান করে জামিনে বের হন তিনি। বের হওয়ার সাথে সাথে পুলিশের একটি দল তাকে পুনরায় গ্রেফতার করে কোতয়ালি থানার হাজত খানায় রাখেন। এ ব্যাপারে কোতয়ালি থানার সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তার সাথে আলমগীর হোসেনের আটকের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান,বাঘার পাড়া থানার একটি নাশকতা মামলার আসামী আলমগীর হোসেন। তাকে বাঘারপাড়া থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে। কোতয়ালি থানা হাজত খানায় তাকে কিছুক্ষনের জন্য রাখা হয়েছে। মাওলানা আলমগীর হোসেনের ন্যায় পুলিশ প্রতিনিয়ত কারাগারের অভ্যন্তর থেকে জামিনে বেওয়া আসামী ধরার ব্যাপারে কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান,কারাগারের অভ্যন্তর থেকে গ্রেফতার করতে নিষেধ করা হয়। অপর একটি সূত্র বলেছেন,কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়া আসামীদের কাছ থেকে কারাগারের কতিপয় কর্মকর্তা ও সদস্য ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা উপার্জন করে। যারা তাদের খুশি করেন না তাদেরকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। অপর দিকে কোতয়ালি থানা,বাঘারপাড়া থানা,চৌগাছা থানা,ঝিকরগাছা থানা,কেশবপুর,মনিরামপুর,বেনাপোল পোর্ট থানা,অভয়নগর থানার বিভিন মামলার আসামীরা জামিনে বের হওয়ার সাথে সাথে কারাগারের ভিতর থেকে পুলিশ গ্রেফতার করা হয়। নাশকতা,ডাকাতি,দস্যুতা,ছিনতাই,মাদকসহ অপরাধ সংঘঠিত হয় যে ঘটনার মাধ্যমে সেই ধরনের ব্যক্তিদের গ্রেফতারের একটি নির্দেশনা থাকলেও পুলিশ গড়ে সব জামিন প্রাপ্ত আসামীদের পুনরায় গ্রেফতার করে নিজের পকেট ভারী করছেন। এ ব্যাপারে পুলিশের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সর্ব মহল থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here