যশোরে জাল ওয়ারেশকাম সার্টিফিকেট তৈরি! ব্যবস্থা নিতে আদালতের নির্দেশ

0
103

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের জাল ওয়ারেশ কায়েম সনদ প্রদান করে আদালতের কাছে ধরা পরেছেন যশোর সদর উপজেলার লেবুতলা ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার রহিমা বেগম। তার বিরুদ্ধে দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

এরআগে এ ঘটনায় একই বিচারক ওই নারী মেম্বরকে আদালতে তলব করেন। একইসাথে চেয়ারম্যানকেও রেজিস্ট্রার নিয়ে হাজির হতে বলা হয়। ওই নারী মেম্বারের বিরুদ্ধে কি ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে সে বিষয়ে আদালতকে অবহিত করার নির্দেশও দেয়া হয়েছে।

আদালত সূত্র জানায়, গত সোমবার (৩ এপ্রিল) নাম ঘোষণা সংক্রান্ত এফিডেফিটের জন্য যশোর সদর উপজেলার লেবুতলা ইউনিয়নের কোদালিয়ার মৃত চান্দা আলীর স্ত্রী আয়শা বেগমের বর্ণনায় একটি ওয়ারিশ কায়েম সনদপত্র আদালতে দাখিল করা হয়। ওই সনদ দেখে আদালতের সন্দেহ হয়। সেই সনদে ছিল না চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর, স্বারক নম্বর, ইউনিয়ন পরিষদের নির্দিষ্ট কোড। এছাড়া তারিখও উল্লেখ ছিল না। কম্পিউটার কম্পোজের পরিবর্তে ছিল হাতে লেখা। আদালত তাৎক্ষণিকভাবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলীমুজ্জামান মিলন ও মেম্বর রহিমা বেগমকে তলব করেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টার মধ্যে সশরীরে ওয়ারেশ কায়েম রেজিস্টার ও স্মারক রেজিস্টার নিয়ে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দেন।
মঙ্গলবার যথাসময়ে চেয়ারম্যান ও মেম্বর আদালতে হাজির হন। ওপেন কোর্টে এসময় বিচারক মেম্বরকে জিজ্ঞাসা করেন ওই সনদে ওয়ারিশদের নামগুলো কে লিখেছেন। প্রতি উত্তরে মেম্বার জানান তিনি নিজেই লিখেছেন। এরপর বিচারক একটি সাদা কাগজ দিয়ে একই নাম আবার লিখতে বলেন। তখন ওই নারী মেম্বার জানান তিনি লিখতে পারেন না, শুধুই সাক্ষর করতে জানেন। একপর্যায়ে তিনি স্বীকার করেন নিয়মবহির্ভূতভাবে গোপনে তিনি ওই ওয়ারেশ কায়েম সার্টিফিকেট তৈরি করেছেন। পরে চেয়ারম্যানের মাধ্যমে ওয়ারেশ কায়েম রেজিস্টার ও স্মারক রেজিস্টার আদালতে উপস্থাপন করলে দেখা যায় ওই ওয়ারেশ কায়েম সনদটি জাল। রেজিস্টারের কোথাও নেই, যা চেয়ারম্যান নিজেও জানেন না। ওপেন আদালতেই বিচারক মৌখিকভাবে চেয়ারম্যানকে এ বিষয়ে মেম্বারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। একইসাথে কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে সে বিষয়টিও অবহিত করার নির্দেশ দেন।

এ বিষয়ে লেবুতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলীমুজ্জামান মিলন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, দ্রæত পরিষদের পক্ষ থেকে সভা করে আদালতের নির্দেশনা পালন করা হবে।