যশোরে ঝিকরগাছায় চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ পূর্ণিমা রানী হত্যা কান্ডের পাঁচ বছর পর চার্জশীট দাখিল

0
278

এম আর রকি : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার সোনাকুড় গ্রামে চাঞ্চল্যকর গৃহবধূ পূর্ণিমা রানী ঘোষ হত্যকান্ডের অবশেষে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। ঝিকরগাছা থানার পর যশোর সিআইডি ও সর্বশেষ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন যশোর দপ্তরের পুলিশ পরিদর্শক একেএম ফারুক হোসেন ৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করেছেন। এ সময় মামলার সাথে জড়িত প্রমানীত না হওয়ায় গ্রেফতারকৃত দু’জনকে অত্র মামলা থেকে অব্যাহতির প্রার্থনা জানিয়েছেন। রোববার আদালতের উদ্দেশ্য চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে।
মামলায় চার্জশীট ভূক্ত আসামীরা হচ্ছে, সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার জয়নগর (পালবাড়ী) গ্রামের মৃত বনমালি পালের ছেলে আনন্দ পাল,একই উপজেলার খোর্দ্দবাটরা বর্তমানে জয়নগর গ্রামের মো: হোসেন আলী শেখের ছেলে মিজানুর রহমান,যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার সোনাকুড় গ্রামের শংকরপুর কুমার ঘোষের স্ত্রী বাঁকড়া গ্রামের অমূল্য কর্মকারের মেয়ে সতীন স্বরস্বতী কর্মকার,সোনাকুড় গ্রামের মৃত পঞ্চানন ঘোষের ছেলে শংকর কুমার ঘোষ। অত্র হত্যাকান্ডের জড়িত নয় বলে ঝিকরগাছা উপজেলার সোনাকুড় গ্রমের মৃত পঞ্চানন ঘোষের ছেলে কার্তীক চন্দ্র ঘোষ ও শান্তিপদ ঘোষের ছেলে সুমন চন্দ্র ঘোষকে অব্যাহতির প্রার্থনা জানিয়েছেন।
মামলার চার্জশীট সূত্রে জানাগেছে,গত ২০১২ সালের ১৯ মে রাত আনুমানিক ৯ টার সময় ঝিকরগাছা উপজেলার সোনাকুড় গ্রামের বিদেশ থাকা স্বামী শংকর কুমার ঘোষের স্ত্রী পূর্নিমা রানীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলে রেখে আত্মাহত্যা বলে অপপ্রচার চালানো হয়। পূর্ণিমা রানী হত্যাকান্ডের ব্যাপারে তার ভাই সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলার জয়নগর গ্রামের মৃত সন্তোষ কুমার ঘোষের ছেলে মিহিরণ ঘোষ পরের দিন ২০ মে ২০১২ সালে ঝিকরগাছা থানায় অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকতে পারে সন্দেহে কয়েকজনের নাম দিয়ে এজাহার দায়ের করেন। ঝিকরগাছা থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ হত্যা মামলাটি ওই সময় কর্মরত এসআই আব্দুল্লাহ আল মামুনকে তদন্তর দায়িত্ব দেন। তিনি বদলী হয়ে যাওয়ার পর মামলাটি ওই থানায় পুলিশ পরির্দশক তদন্ত মোল্লা খবীর আহমেদকে তদন্তর দায়িত্ব দেন। এর মধ্যে মামলাটি তদন্তর স্বার্থে যশোর সিআইডিতে মামলাটি স্থানান্তর হলে সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক হারুন অর রশীদ মামলাটি তদন্তকরে চার্জশীট দাখিল করেন। বাদি চার্জশীটে সন্তুষ্ট না হলে মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই) যশোর জোনে তদন্তর দায়িত্ব দেন বিজ্ঞ আদালতের বিচারক। পিবিআইতে কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক মো: আব্দুস শুকুর মামলাটি তদন্তর এক পর্যায় বদলী হলে মামলাটি পিবিআইতে কর্মরত অপর পুলিশ পরিদর্শক একেএম ফারুক হোসেন মামলাটি তদন্ত শুরু করেন। তিনি তদন্ত কালে এই হত্যাকান্ডে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে যথেষ্ট স্বাক্ষ্য প্রমান পান। গ্রেফতার দু’জনের বিরুদ্ধে হত্যাকান্ডে জড়িত তেমন স্বাক্ষ্য প্রমানের অভাবে অত্র মামলা থেকে অব্যাহতি প্রার্থনা জানান। বাদির আবেদন সূত্রে জানাগেছে, বাদির ভগ্নিপতি শংকর কুমার ঘোষ দেড় বছর পূর্বে মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফিলে ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া গ্রামের অমূল্য কর্মকারের মেয়ে স্বরস্বতীকে বিয়ে করে পুনরায় মালয়েশিয়ায় চলে যায়। স্বরস্বতী স্বামীর বাড়িতে এসে থাকার এক পর্যায় পূর্ণিমা রানীকে তাড়ানোর জন্য শংকর কুমার ঘোষের ভাই ও ভাইয়ের ছেলের সাথে ষড়যন্ত্র করতে থাকে। বিষয়টি পূর্ণিমা তার ভাই মিহিরণ ঘোষকে জানায়। শংকর কুমার ঘোষের এই বিয়েকে কেন্দ্র করে পূর্ণিমারানী হত্যাকান্ডের শিকার হন। অভিযোগ পত্র নং ৪২ তারিখঃ ১০/০২/১৭ইং। প্রাথমিক তথ্য বিবারনী নং ২০ তারিখঃ২০/০৫/১২ ইং ধারাঃ৩০২/৩৪/১০৯ পিসি। মামলায় ২১জনকে স্বাক্ষী করা হয়েছে। মামলার আলামত ইতিপূর্বে তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে দাখিল করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here