যশোরে ডিওএইচএসে চলছে মেলার নামে অবৈধ লটারির বাণিজ্য

0
8

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে ডিওএইচএসে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প মেলার নামে চলছে রমরমা র‍্যাফেল ড্র লটারি বাণিজ্য। মেলা শুরুর দিন থেকেই এই অবৈধ র‌্যাফেল ড্র এর নামে চলছে লটারি বাণিজ্য। এই অবৈধ র‌্যাফেল ড্র এখন মেলার মূল বিষয়ে পরিণত হয়েছে।
জানা যায় সেনাবাহিনীর অফিসারদের হাউজিং সোসাইটি একটি বৈশাখী মেলার করার উদ্যোগ নেয়। এর পর সেই মেলা পরিনত হয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প মেলায়। সময়ের সাথে সাথে মাসব্যাপি এই মেলা পরিনত হয়েছে অবৈধ লটারি বাণিজ্যে।

চটকদার সব বিজ্ঞাপন প্রচার করে এবং মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল, টিভি, ফ্রিজসহ বিভিন্ন রকম পুরস্কারের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত প্রকাশ্যে র‍্যাফেল ড্র এর টিকিট বিক্রি করতে পিকআপ, ব্যাটারিচালিত ভ্যান, ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে করে শতাধিক লটারি বিক্রেতা। এদিকে যশোর শহরের প্রাণ কেন্দ্র দড়াটানাতে অস্থায়ী ট্রেন্ড করে বিক্রী করছে ্েই লটারি। প্রকাশে এমন অপরাধ ঘটলেও চুপ শহরের শুসিল সমাজ সহ প্রশাসন। যশোর পৌরসভার গন্ডি পেরিয়ে গোটা সদর উপজেলা এমনকি অন্য উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম গঞ্জে চলছে এই অবৈধ বাণিজ্য। এর প্রভাব পড়েছে যশোরের সব ধরনের ব্যবসায়। সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষ।

চটকদার এসব বিজ্ঞাপনে প্রলুব্ধ হয়ে মোটরসাইকেল, সাইকেল, টিভি, ফ্রিজসহ বিভিন্ন রকম পুরস্কার পাওয়ার আশায় গ্রামের নিরীহ মানুষ এবং বিভিণ্ন প্রতিষ্ঠানের স্টাফ এবং শ্রমিক শ্রেণী প্রতিদিনই এই লটারি কিনছেন। এভাবেই র‌্যাফেল ড্র এর নামে প্রতিদিন সাধারণ মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন মেলার আয়োজক ও র‌্যাফেল সংশ্লিষ্টরা। এতে আর্থিকভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

এদিকে কয়েকদিন ধরে গ্রাম, শহর ও এর আশে পাশের মোড়ে মোড়ে প্রকাশ্যে পিকআপ, ব্যাটারিচালিত ভ্যান, ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক থামিয়ে মাইকে বিজ্ঞাপন প্রচার করে জান র‌্যাফেল ড্র নামের অবৈধ এসব দৈনিক র‌্যাফেল ড্র লটারি বিক্রি করা হচ্ছে। কিন্তু এসব অবৈধ কর্মকাণ্ড প্রকাশ্যে চললেও জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের নীরব ভূমিকা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যশোরে ডিওএইচএসে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প মেলা। মেলার পেছনের দিকে র‌্যাফেল ড্র এর মঞ্চে সাজিয়ে রাখা হয়েছে টিভি, ফ্রিজ, মোটরসাইকেলসহ নানা রকম পুরস্কার। মাইকে লাগাতার বিভিন্ন চটকদার বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে। এই মঞ্চের সামনেই টেবিল-চেয়ার পেতে লটারি বিক্রি করছেন একাধিক লটারি বিক্রেতা। এখান থেকে লটারি কিনছেন শিশুসহ অনেকেই। মেলার প্রবেশ মুখের অদূরে চারদিক টিন দিয়ে ঘিরে সার্াস মঞ্চও তৈরি করা হয়েছে। সেখানে আপাতত চলছে কৌতুক, প্রস্তুতি চলছে অশ্লীল নৃত্যের।

ভ্যানচালক মজিদ শেখ নামে এক লটারি ক্রেতা জানান, একটা ফ্রিজের আশায় তিনি প্রতিদিন ১০-১২ টি লটারি কিনেন। এতে তার প্রতিদিন ২শ থেকে ২শ ৪০ টাকা খরচ হয়। যা আয় করছেন তার বেশির ভাগই লটারি কিনতে ফুরিয়ে যাচ্ছে। তবুও তিনি প্রতিদিন লটারি কিনেন এবং যতদিন এই লটারি চলবে তিনি ততদিন লটারি কিনবেন। লটারি কেনা তার কাছে নেশার মতো হয়ে গেছে বলেও জানান তিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক লটারি বিক্রেতা জানান, জান ভাই নামে এক ব্যক্তি এই লটারি কোম্পানির মালিক। যেখানেই এসব মেলা হয় সেখানকার আয়োজকরা এক চুক্তির মাধ্যমে লটারি কোম্পানিকে ডেকে নিয়ে যায়। র‌্যাফেল ড্র এর লটারি বিক্রির টাকা মেলার আয়োজক ও লটারি কোম্পানি ভাগাভাগি করে নেয়।

এই মেলায় এবার ১৪০ জনের মত লোক লটারি বিক্রি করছেন। তাদের প্রতিজনকে দৈনিক ৫শ টাকা মজুরি ও ২৭০ টাকা খাবার খরচ এবং ভ্যান ভাড়া বাবদ ৭শ টাকা দেওয়া হয়। প্রত্যেক বিক্রেতার হাজিরাসহ ভ্যান বা যানবাহন মাইক ভাড়া মিলিয়ে প্রত্যেকের ১৭ থেকে ১৮শ টাকা করে খরচ হয়। তাদের প্রত্যেক ভ্যান বা যানবাহন থেকে দৈনিক ৩-৫ হাজার টাকার লটারি বিক্রি হচ্ছে। কেউ কেউ এর চেয়েও বেশি টাকার লটারি বিক্রি করেন।

এ ব্যাপারে যশোর উকিল বারের যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড তাহমিদ আকাশ বলেন, এ বিষয়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কার্যকর পদক্ষেপ কামনা করছি।

অনলাইন প্লাটফম যশোর কমিউনিটির সহ সভাপতি জাহিদ হাসান বলেন ভাই ২০ টাকা করে টিকিট যদি ২০ হাজার পিস বিক্রি হয় তাহলে চার লক্ষ টাকা হয় , আর একাক জন টিকিট এক পিস করে কেনে না অনেকেই ৫-১০ পিস করে কিনে বেশি, সুতরাং পাঁচ হাজার মানুষ টিকিট ক্রয় করল এই টাকাগুলো বাজারে যেয়ে বিভিন্ন রকম ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পণ্য কিনতে পারত পন্য না কিনে তারা টিকিট কিনলো তাহলে এটা ব্যবসায়ের একটা সাইড ইফেক্ট আসলো এবং যে টিকিট কিনলো তার কাছেও টাকা হাতছাড়া হলো পাঁচ হাজার মানুষের মধ্যে পুরস্কার পাবে দেখা গেল ১০ জন বাকি ৪৯৯০ জন কোন পুরস্কারই পাবে না, মাঝখান থেকে টিকিট বিক্রিতারা লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে চলে যাবে এবং প্রত্যেকদিন যদি এই লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে চলে যায় তাহলে এটা যশোর বাসীর জন্য দুঃখজনক, আর এই পুরস্কার পাওয়াটা একটা জুয়া খেলার মত হয়ে গেল না সুতরাং এই জুয়া খেলা থেকে আমরা বিরত থাকি এই টাকা দিয়ে আমরা ঘরের কিছু কিনি তাহলে আমাদেরই কাজেই লাগবে।

এ ব্যাপারে যশোরের ব্যবসায়ীক সমাজের প্রতিনিধি জাকির হোসেন পলাশ বলেণ, এর আগে একবার প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল। বেশ কয়েক বছর বন্ধ ছিল। আবার শুরু হয়েছে। প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।