যশোরে ডিবি পুলিশ মিথ্যা অভিযোগে নীরিহ মানুষ, চাকুরিজীবি ও ব্যবসায়িদের আটক করে কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে

0
308

যশোর ব্যুরো : জঙ্গি, মাদক, অস্ত্র, হুন্ডি, ও গোল্ড চোরাচালানের মিথ্যা অভিযোগে নিরীহ লোকজনকে আটক করে অবৈধ ভাবে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে যশোর ডিবি পুলিশের বিরুদ্ধে । গত ১৫ দিনে এধরনের মিথ্যা অভিযোগে ডিবি পুলিশ অন্তত ১০ জন নীরিহ ব্যক্তিকে আটক করে হাতিয়ে নিয়েছে প্রায় কোটি টাকা। সম্প্রতি সাতক্ষীরার ভোমরা সি এন্ড এফ ব্যবসায়ি সমিতির এক নেতাকে আটক করে ডিবি পুলিশ আট লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। এঘটনায় ভোমরা সি এন্ড ব্যবসায়ি নেতারা ফুসে উঠেছে। তারা যশোর ডিবি পুলিশের অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কর্মসূচি ঘোষনা করতে যাচ্ছে।

মাদক ও জঙ্গি গ্রেফতার অভিযানকে পুজি করে ডিবি পুলিশ সারা জেলা হন্যে হয়ে চষে বেড়াচ্ছে। কথিত মাদক বিক্রি ও জঙ্গি তৎপরতার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ডিবি পুলিশ নীরিহ পথচারি ,ব্যবসায়ি, চাকুরিজীবিদের আটক করে অস্ত্র, মাদক, ও জঙ্গি মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার ভয়ভীতি দেখিয়ে গত ১৫ দিনে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। গ৩ ১৭ মে বুধবার সন্ধ্যায় যশোর শহরতলীর পালবাড়ি মোড় থেকে ডিবি পুলিশের এস আই লুৎফর ভোমরা সি এন্ড এফ ব্যবসায়ি সমিতির যুগ্ম-সম্পাদক দিপঙ্কর ঘোষ (৩৬) কে একটি নোয়া মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে নেয়। তার সাথে আরো তিনজন ব্যবসায়ি ছিল। দিপঙ্কর ও তার ব্যবসায়িক সহকর্মীরা পাবনা থেকে ফিরে যশোর হয়ে সাতক্ষীরা যাচ্ছিল। দিপঙ্করকে আটকের পর যশোর পুলিশ লাইন ডিবি অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে দিপঙ্করকে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখানো হয়। শেষে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপিত হয় তিনি হুন্ডি ও গোল্ড স্মাগলিংয়ের সাথে জড়িত। মানসম্মান ও সংখ্যালঘু হওয়ার কারনে দিপঙ্কর ভয়ে ডিবি পুলিশের দাবিকৃত ৮ লাখ টাকা ভোমরার ধনাঢ্য ব্যবসায়ি সবুরের ছেলে সাইদের মাধমে দিয়ে ছাড়া পান। দিপঙ্করের পিতা মৃত রনজিৎ কুমার ঘোষ ভোমরা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন। তাদের বাড়ি সাতক্ষীরা জেলা সদরের লক্ষিদাড়ি গ্রামে। স্থানীয় ভাবে তারা অর্থবিত্তশালি। স্থানীয়রা বলেছেন দিপঙ্কর বা তাদের পরিবারের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে কেউ এধরনের অভিযোগ দিতে পারেনি। অথচ যশোর ডিবি পুলিশ তাকে কথিত গোল্ড ও হুন্ডি ব্যাবসায়ি বানিয়ে টাকা হাতিয়ে নিল। দিপঙ্করকে মিথ্যা অভিযোগে আটকের ব্যাপারে যশোর জেলা পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকতা তদবীর করে। কিন্তু ডিবি ওসি ইমাউল হক তাকেও অবজ্ঞা করে ৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। ওই পুলিশ কর্মকর্তার বাড়িও সাতক্ষীরা এলাকায়। দিপঙ্করকে কি কারণে আটক করা হয়েছে জানতে চেয়ে এস আই লুৎফরের ০১৭১৬১৯৭২৬০ নম্বর মোবাইল ফোন দেওয়া হলে তিনি বলেন, এব্যাপারে ওসি স্যারের সাথে কথা বলেন। আমি কিছু বলতে পারবো না। এস আই লুৎফরের কথামতো ওসি ইমাউল হকের ০১৭১৩৩৭৪১৭১ নম্বর মোবাইলে ফোন দেওয়া হলে অপর প্রান্ত থেকে বলা হয় স্যার ব্যস্ত আছে বলে ফোন কেটে দেওয়া হয়। এদিকে দিপঙ্করকে মিথ্যা অভিযোগে আটক করে ৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার ঘটনায় ভোমরা সিএন্ডএফ ব্যবসায়ি সমিতি ফুসে উঠেছে। তারা ২০ মে শনিবার যশোর ডিবি পুলিশের বিরুদ্ধে বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি, ও যশোর জেলা প্রশাসক বরাবর স্বারক লিপি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে ভোমরা সিএন্ডএফ ব্যবসায়ি সমিতির একটি সূত্রে জানা যায়। দিপঙ্করকে আটকের একদিন আগে ১৬ মে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ডিবি পুলিশ যশোর বেনাপোলের লাল মার্কেটে অভিযান চালিয়ে কাপড় ব্যবসায়ি বাবুকে আটক করে। বাবু দক্ষিণ বারোপোতা গ্রামের শরিফুল ইসলামের। বাবুকে আটক করে ডিবি অফিসে নিয়ে বাবুর বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ির মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করে তার পরিবারের কাছে মুক্তিপন হিসেবে ১০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। বাবুর নিকট আতœীয় সদর উপজেলার নারাঙ্গালী গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা শাহাদাৎ হোসেন তদবির করে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকার বিনিময়ে বাবুকে মুক্ত করা হয়। অবশ্য ডিবি পুলিশ নিজেদের নির্দোষ প্রমানের জন্য বাবুকে পরের দিন বুধবার ৫০ গ্রাম গাজা দিয়ে চালান দেয়া হয়।
একইদিন গভীর রাতে ডিবি পুলিশের এসআই সেকেন্দার আলী ঝিকরগাছা উপজেলার কাশিপুর গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে এমএম কলেজের পিয়ন সোহেলকে মাদক বিক্রির অভিযোগে আটক করে। সোহেলকে আটকের পর বেদম মারপিট করে তার পিতার কাছে ফোন দিয়ে মুক্তিপন হিসেবে ৩লাখ টাকা দাবি করা হয়। সোহেলের গরীব পিতা মুক্তিপন দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তাকে ১ শ পিচ ইয়াবা দিয়ে চালান দেওয়া হয়। সোহেলকে মিথ্যা অভিযোগে আটকের ব্যাপারে যশোরের একসাবেক এমপি বিষয়টি ডিআইজিকে জানান। এই ভাবে ডিবি পুলিশ নীরিহ মানুষ, চাকুরিজীবি, ব্যবসায়িদের মিথ্যা অভিযোগে আটক করে কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here