যশোরে তিনমাস পালিয়ে বেড়াচ্ছে এক প্রবাসীর পরিবার

0
225

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রতিবেশির হামলা, ভাংচুর ও উচ্ছেদে প্রবাসীর পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। যশোর সদর উপজেলার শর্শুনদহ গ্রামের এক প্রবাসীর পরিবারকে উচ্ছেদের অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশি মমিন মোল্লা ও তার ছেলেদের বিরুদ্ধে। হুমকি ধামকি ও হামলায় ভিটেমাটি ছাড়া পরিবারটি তিন মাসেও বাড়িতে ফিরতে পারেনি। তিন সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন প্রবাসী আলাউদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া খাতুন। মঙ্গলবার প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব অভিযোগ করেন তিনি।
সুফিয়া খাতুন অভিযোগ, শর্শুনদহ গ্রামের ওই জমিতে আমরা ত্রিশ বছর ধরে বসবাস করছি। এর আগে আমার শ্বশুর ও তার পূর্বপুরুষরা এক’শ বছর ধরে সেখানে বসবাস করছে। হঠাৎ গত ১১ জুলাই প্রতিবেশি মমিন মোল্লা ও তার ছেলে আমির, আব্বাস, ইসমাইল, আতাউর আমাদের ভিটে জমি তাদের দাবি করে হামলা চালায়। এসময় তারা বাড়িঘর ভাংচুর ও আমাদের মারপিট করে। আমার মেয়ের শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। আমাদের ওপর হামলা ও বাড়ি ঘর ভাংচুর করে ভিটে ছাড়া করেছে। তিন মাস যাবত পালিয়ে বেড়াচ্ছি। তিন সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।
তিনি আরও বলেন, হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় বাধ্য হয়ে ২০ জুলাই আদালতে মামলা করেছি। আদালত থানাকে তদন্তের নির্দেশ দিলেও পুলিশ আগ্রহী নয়। এতে আমাদের ন্যায় বিচার বঞ্চিত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। তিন মাসেও আমরা বাড়িতে ফিরতে পারিনি। আর কতদিন এভাবে পালিয়ে বেড়াতে হবে জানিনা। অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবি করছি। আমরা নিজ ভিটেই ফিরে যেতে চাই। এজন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।
সুফিয়া খাতুনের ছেলে সোহানুর রহমান জানান, হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমরা এলাকায় ফিরতে পারছি না। মামলা করা হলেও পুলিশ তৎপরতা নেই। মামলাটি তদন্তের দায়িত্বে রয়েছেন কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আবুল বাসার মিয়া। তিনি একদিনও ঘটনাস্থলে যাননি।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সুফিয়া বেগমের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন ও সোনিয়া খাতুন প্রমুখ। জানতে চাইলে মোমিন মোল্লার ছেলে ইসমাইল হোসেন বলেন, অভিযোগ সঠিক নয়। ওরা আমাদের জমি দখল করে রেখেছিল। গ্রাম্য শালিসের মাধ্যমে ওই জমি আমাদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। জানতে চাইলে কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আবুল বাসার মিয়া বলেন, বাদীকে সাক্ষীদের নিয়ে আমার কাছে আসতে বলেছি। কিন্তু একদিনও তারা হাজির করেনি। এছাড়াও যে জমি নিয়ে সমস্যা, সেই জমির কাগজপত্র চেয়েও পায়নি। এজন্য তদন্তে দেরি হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here