যশোরে তিন আসামির মৃত্যুদ-দেশ

0
78

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর মণিরামপুর জয়পুর গ্রামের ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালক ই¯্রাফিল হোসেনকে হত্যার দায়ে তিন আসামির মৃত্যুদ-দেশ দিয়েছে একটি আদালত। বৃহস্পতিবার স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল জজ (জেলা জজ) আদালতের বিচারক সামছুল হক এক রায়ে এ আদেশ দিয়েছেন। মৃত্যুদ- প্রাপ্তরা হলো যশোর সদরের ঘুনী মাঠপাড়ার মৃত সেকেন্দার আলী ওরফে সেকè শেখের ছেলে ইউনুচ আলী শেখ, অভয়নগরের স্বরখোলা গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদিন মোল্লার ছেলে ইব্রাহিম মোল্লা ও কেশবপুরের ভাল্লুকঘর গ্রামের মৃত এয়াকুল আলী খানের ছেলে ইউনুচ আলী খান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট সাজ্জাদ মোস্তফা রাজা।
মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ই¯্রাফিল হোসেন ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবীকা নির্বাহ করতেন। ২০০৯ সালের ২১ ডিসেম্বর দুপুর ২ টার দিকে তিনি মণিরামপুর দোলখোলা মোড়ে ভাড়ার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এমরধ্যে অপরিচিত একলোক মোটরসাইকেল ভাড়া নিয়ে যশোর সদরের দেয়াপাড়া ঘুনী গ্রামের নিয়ে আসে। এরপর ই¯্রাফিল হোসেন বাড়ি না ফেরায় স্বজনেরা খোঁজাখুজি করে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়। পরদিন স্বজনের দোলখোল মোড়ে যেয়ে খোঁজখবর নিয়ে যশোর সদরের দেয়াপাড়া ঘুনী গ্রামের ইউনুচের বাড়ি যায়। ইউনুচের স্ত্রী তাদের জানিয়েছিল মোটরসাইকেল চালক দুপুওে খাওয়ার পর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেছে। অবশেষে ই¯্রাফিল হোসেনকে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে তার ছেলে ইউসুফ আলী বাদী হয়ে ইউনুচ, ইব্রাহিম ও মুজিবরকে আসামি করে মণিরামপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।
মামলার তদন্তকালে ২০১০ সালের ২৩ জানুয়ারি হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ইউনুচ শেখ ও ইব্রাহিমকে আটক করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তারা হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়। তারা জানিয়েছিল, দীর্ঘদিন তারা একসাথে জেল খেটেছে। জেল থেকে বের হয়ে টাকার জোগাড় করতে মোটরসাইকেল ছিনাতাইয়ের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ই¯্রাফিলকে ভাড়া নিয়ে ঘুনী গ্রামের ইউনুসের বাড়ি আসে। সেখানে তারা চারজন দুপুরে খাবার খায়। খাবারের মধ্যে চালক ই¯্রাফিলকে চেতনানাশক খাওয়ায়। পরে অসুস্থ্য চালক ই¯্রাফিলকে নিয়ে মুচি খালের পাড়ে নিয়ে স্বাসরোধ করে হত্যার পর খালের মধ্যে পুতে রেখে পালিয়ে যায় তারা। এ দুইজনের স্বীকারোক্তিতে অপর আসামি ইউনুচ খানকে আটক করা হয়। সেও হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেয়।
আসামিদের দেয়া স্বীকারোক্তি জবানবন্দি ও স্বাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়ায় ওই তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাসির উদ্দিন। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ না পাওয়ায় মজিবর রহমানের অব্যহতির আবেদন করা হয় চার্জশিট। এ মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ওই তিন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক প্রত্যেককে মৃত্যুদ- ও ২০ হাজার টাকা কওে জরিমানার আদেশ দিয়েছেন। দ-প্রাপ্ত তিনজন জামিনে মুক্তি পেয়ে পলাতক রয়েছে।