যশোরে দুই নারীর এক স্বামীর দখল নিয়ে টানাটানিতে নাজেহাল পরিস্থিতি

0
263

এম আর রকি : প্রকাশ্যে এক স্বামী তার দুই স্ত্রীর কবলে পড়ে নাজেহালের শিকার হয়েছেন। গতকাল বুধবার বিকেলে যশোর কোতয়ালি মডেল থানার সামনে দুই স্ত্রীর স্বামী লিটন টানা হেচড়ার কবলে পড়লে পুলিশ তিনজনকে থানা হেফাজতে নিয়েছে। ঘটনাটি কোতয়ালি মডেল থানা কর্মকর্তা,সদস্য ও পথচারীদের মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।
ঝিনাইদহ জেলার সদর উপজেলার বিষয়খালী গ্রামের মৃত হযরত মিয়ার মেয়ে শিল্পী বেগম জানান, বিগত ২০ বছর পূর্বে নড়াইল জেলার সদর উপজেলার ভদ্র বিলা গ্রামের শুকুর শেখের ছেলে লিটন (৪২) এর সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তার ঘরে দুই ছেলে রাব্বি শেখ (২০) ও সাব্বির শেখ (১০) তার গর্ভে হয়। স্বামী লিটন ইজি বাইক চালক থেকে মিস্ত্রী হিসেবে কাজ শুরু করেন। শিল্পী বেগম বিভিন্ন বাসা বাড়িতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে আজ ১২ বছর যাবত। প্রথম স্ত্রীকে ভরণ পোষন না দিয়ে ও তার অনুমতি ছাড়াই অপর ইজিবাইক চালক মৃত কামরুজ্জামানের স্ত্রী দুই কন্যা সন্তানের জননী মুক্তাকে বিগত ১৩ সালে বিয়ে করে। মুক্ত যশোর সদর উপজেলার বড় ভেকুটিয়া গ্রামের মকবুল আহমেদের মেয়ে। মুক্তা জানান, তিনি বর্তমানে ঢাকায় গার্মেন্টেসে চাকুরী করে। তার পূর্বের স্বামী কামরুজ্জামান যশোরে ইজিবাইক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করার এক পর্যায় ৫ বছর পূর্বে মারা যান। স্বামী মারা যাওয়ার পূর্বে তিনি জানতে পারেন তার স্বামী ইজিবাইক চালানোর পাশাপাশি একটি সিরিয়ালে ১৩ হাজার পাওয়ার পূর্বে মারা যাওয়ায় উক্ত টাকা মুক্তাকে দেওয়ার জন্য বর্তমান স্বামী লিটনসহ তার লোকজন জানান। সিরিয়ালের টাকা দেওয়ার ফাঁকে ফাঁকে লিটন কৌশল করে মুক্তাকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর মুক্তা ঢাকায় গার্মেন্টেসে চাকুরী করতে যায়। সেখানে দুই মেয়ে নিয়ে বসবাস করে। স্বামী যশোর থাকায় সে বাপের বাড়ি ও স্বামীর সাথে মাঝে মধ্যে থাকে। লিটন জানান, প্রথম স্ত্রীর অত্যাচারে সে জর্জরিত। তার কারণে দ্বিতীয় বিয়ে করতে বাধ্য হয়। প্রথম স্ত্রী শিল্পী বেগমের হাত থেকে বাঁচার জন্য লিটন প্রায় সময় ঢাকায় দ্বিতীয় স্ত্রী মুক্তার কাছে গিয়ে থাকতো। সে তার দ্বিতীয় স্ত্রী মুক্তার সাথে যশোর আসে। বুধবার ২২ নভেম্বর বিকেলে যশোর শহরের কোতয়ালি মডেল থানার সামনে দিয়ে যাওয়ার প্রাক্কালে প্রথম স্ত্রী শিল্পী বেগমসহ তার সহযোগীরা জাপটে ধরে। প্রথম স্ত্রী ও তার আত্মীয় স্বজনের কবলে পড়ে লিটন ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী মুক্তা। লিটন ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী মুক্তা পড়েন শিল্পী বেগমের রোষানলে। পরিস্থিতি এমন পর্যায় পৌছে যে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ ও পথচারীদের মধ্যে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে থানার ডিউটি অফিসার এসআই শাহিনুর ইসলাম দুই বিয়ের নায়ক লিটন ও তার দুই স্ত্রী শিল্পী বেগম এবং মুক্তাকে হেফাজতে নেই। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিল্পী বেগম স্বামী লিটনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবি জানিয়েছেন পুলিশের কাছে। মুক্তা লিটনের সাথে ঘর সংসার করতে চান বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। দুই নারীর এক স্বামীর দখল নিয়ে উত্তেজনা এমন পর্যায় পৌছেছে যা থানায় কর্মরত পুলিশ কর্তা,সদস্য ও থানার সামনে যাতায়াতকারী পথচারীদের মধ্য চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here