যশোরে দূবৃর্ত্তরা সরকারি গাছ কেটে সাবাড় করার অভিযোগ

0
301

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরে দুর্বৃত্তরা সরকারি কয়েক লাখ টাকার গাছ কেটে সাবাড় করে দিয়েছে । প্রকাশ্যে সরকারি কাছ কেটে সাবাড় করে দিলেও ভয়ে কেউ কোন কথা বলতে সাহস পাচ্ছেনা। গাছ কাটার অভিযোগে পুলিশ দুইজনকে হাতে নাতে গ্রেফতার করলেও শনিবার রাতে তাদেরকে ছেড়ে দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
স্থানীয় লোকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন,যশোর সদর উপজেলার লেবুতলা ইউনিয়নের আগ্রারাইল মহাশ্মশান ও এনায়েতপুর স্লুইচ গেট সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে সরকারি জমির উপর লাগানো মূলব্যান মেহেগুনী গাছ স্থানীয় একটি সংঘবদ্ধ চক্র কেটে সাবাড় করে। চক্রের সাবাড় করার পর গাছের কাঠ-ডাল পড়ে আছে নমুনা হিসেবে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন,বেশ কিছুদিন পূর্বে এই গাছ কাটার ঘটনা ঘটায়। বর্তমানে এখানে শুধু গাছের গুড়ি পড়ে রয়েছে। সূত্রগুলো আরো জানায়,কেটে ফেলা গাছের অংশ পাহারা দিচ্ছে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ মিঠুন কুমার বিশ্বাস, উত্তম কুমার বিশ্বাস।
মিঠুন বিশ্বাস সাংবাদিকদের জানান, গাছ কাটার খবর পেয়ে আমি ওই শ্মশানে আসি। সে সময় স্থানীয় পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ দুই জনকে ধরে নিয়ে যায়। তারপর থেকে এখানে গাছগুলো পাহারা দিচ্ছি। এরচেয়ে বেশি কিছু জানি না।
উত্তম বিশ্বাস জানান, এই গাছগুলো পানি উন্নয়ন বোর্ডের । তিনদিন ধরে গাছগুলো কাটা হচ্ছে। গাছ কেটে নিয়ে যায় পাশের জমির মালিক ফারুক হোসেন। ২/৩জন শ্রমিক দিয়ে তারা গাছগুলো কেটেছে। ইউনিয়ন পরিষদের সচিব তাকে ফোন করে জানালে তিনি সেখানে পৌছান। তিনি আরো জানান,ফারুকরা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ার কারণে কেউ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে কিংবা মুখ খুলতে সাহস পায় না। এ কারণে তার প্রকাশ্যে গাছ কেটে সাবাড় করে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী জানায়, যশোর সদর উপজেলার আগ্রারাইল মহাশ্মশান ও এনায়েতপুর স্লুইচ গেট সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কয়েক লাখ টাকার মূল্যবান সরকারি গাছ রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এলাকার মানুষ এসব গাছ দেখাশুনা করে আসছিল। কিন্তু গত ৩/৪ দিন ধরে স্থানীয় প্রভাবশালী হিসেবে খ্যাত ফারুক হোসেন ও তার ভাই নজরুল ইসলাম ওই গাছ শ্রমিক দিয়ে কেটে সাবাড় করে। তারা আরো জানান, শনিবার দুপুরে খবর পেয়ে স্থানীয় ফুলবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের আইসি মাসুম বিল্লাহ ঘটনাস্থলে পৌছে গাছ কাটার সময় হাতেনাতে দু’জনকে আটক করে। পরে ওই দিন রাত ৮টার সময় তাদেরকে ছেড়ে দেয়। এ ব্যাপারে স্থানীয় ফুলবাড়ি পুলিশ ক্যাম্পের আইসি মাসুম বিল্লাহর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, শ্মশানের জমি নিয়ে দুই পক্ষের সাথে বিরোধ আছে। সেই বিরোধের জের ধরে অভিযোগ করা হয়। পরে আমি ঘটনাস্থলে পৌছে দুই জনকে ক্যাম্পে নিয়ে আসি। তাদেরকে ক্যাম্পে বসিয়ে রাখা হয়।
জমি নিয়ে সোমবার স্থানীয়ভাবে বসার কথা রয়েছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম ওই দুইজনকে ছেড়ে নিয়ে গেছে বলে তিনি জানান। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে স্থানীয় লেবুতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলিমুজ্জামান মিলন সাংবাদিকদের বলেন, মালিকানা জমিতে গাছগুলো লাগানো। পরে জমি মেপে দেখা যায় গাছগুলো সরকারি জমিতে পড়েছে। আমরা গাছগুলো সরিয়ে নিতে বলেছি। সেজন্য জমির মালিক গাছগুলো কেটে নিচ্ছে। তিনি সাংবাদিকদের আরও বলেন, পারিবারিক ও সামাজিক ব্যাপার নিয়ে লেখালেখি না করায় ভালো। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড কোথাও কোন দিন গাছ লাগিয়েছে নাকি ? তিনি বলেন, আগামী সোমবার এ বিষয় নিয়ে শালিসী বৈঠক রয়েছে। সেখানে বিষয়টি মীমাংসা হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ওই খানে শ্মশানের জন্য ৩৩ শতক জমি রয়েছে। কিন্তু তারা সরকারের ৮ বিঘা জমি দখল করে রেখেছে। আমরা তাদের সরকারের জমি ছেড়ে দিতে বলেছি। এ কারণেই তারা এসব করছে। জানতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের কথা শুনে বলেন, গাছ কাটার ব্যাপারে অভিযোগ পেলে আমি ব্যবস্থা নেব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here