যশোরে দেড় কোটি টাকার মাদক ও অবৈধ ভারতীয় পণ্যসহ আটক ২

0
30

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলের একটি শেডের সামনে থেকে ফেনসিডিল ও গাঁজার বিশাল একটি চালান জব্দ করেছে যশোর জেলা পুলিশ। একইসাথে অবৈধপথে আসা বিপুল পরিমাণ ভারতীয় অবৈধ পণ্যসামগ্রিও জব্দ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে জেলা পুলিশ ও ডিবি পৃথক এ দুটি অভিযান চালান। এসময় আটক করা হয়েছে সালাউদ্দিন ও আসলাম নামে দুই কারবারীকে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার তার কার্যালয়ের সামনে প্রেস ব্রিফিং করে অভিযান এবং পরবর্তী কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত করেন সাংবাদিকদের। উদ্ধার হওয়া মাদকদ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ২১৩ কেজি গাঁজা, ৭৪৯ বোতল ফেনসিডিল, ভারতীয় প্রসাধনী সামগ্রি, ভারতীয় বাজি এবং ওষুধ। উদ্ধার হওয়া এই মাদকসহ অবৈধ মালামালের মূল্য প্রায় দেড় কোটি টাকা।

প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার দিনগত রাতে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বেনাপোল স্থলবন্দরের ২২ নম্বর শেডের সামনে ভারতের একটি ট্রাক অভিযান পরিচালনা করা হয়। ট্রাকটিতে তল্লাশি করে ২১৩ কেজি গাঁজা ও ৭৪৯ বোতল ফেনসিডিলসহ ভারতীয় বিভিন্ন প্রসাধনী, ঔষধ এবং বাজি জব্দ করা হয়। এই ঘটনায় একটি ভারতীয় ট্রাক জব্দ হলেও কোনো আসামীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

অপর এক অভিযানে, যশোর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ রুপন কুমার সরকারের নেতৃত্বে একটি দল জেলার শার্শা উপজেলার শিকারপুর আরিফ হোসেনের বাড়ির সামনে অভিযান চালিয়ে ২৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেন। আটককৃত মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন : যশোরের বেনাপোল রায়পুর গ্রামের আব্দুল মান্নান মোড়েলের ছেলে সালাউদ্দিন (৩৫) ও যশোর সদরের কৈখালী গ্রামের মকবুল হোসেন মীরের ছেলে মীর আসলাম হোসেন (৪৫)।

প্রেস ব্রিফিংকালে যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বলেন, যশোর পুলিশ মাদকবিরোধী অভিযান বৃদ্ধি করেছে। এর ফলশ্রুতিতে পুলিশের পৃথক ২টি অভিযানে একটি ভারতীয় ট্রাকসহ প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের মাদকসহ অবৈধ মালামাল জব্দ করা হয়েছে। এ সময় মাদকদ্রব্য পাচারের সাথে জড়িত থাকার দায়ে দুই পাচারকারী আটক করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানা ও শার্শা থানায় দুটি মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাকি আসামিদের ধরতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলে জানান তিনি।