যশোরে নতুন করে ২৪ ঘন্টায় ১জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ॥ জেলায় মোট আক্রান্তর সংখ্যা ৭৭ দাঁড়ালো

0
320

এম আর রকি : করোনা ভাইরাস সংক্রমনে যশোরে বুধবার ১৩ মে আরো ১ জনের পজিটিভ এসেছে। নতুন করে আক্রান্ত রোগী যশোরের কেশবপুর উপজেলা এলাকার একজন নারী যার বয়স (৪৯) বছর। এ নিয়ে যশোরে এ যাবত আক্রান্তর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৭জন। এর মধ্যে ১২জন চিকিৎসক,৬জন সেবিকাসহ ৩৬জন স্বাস্থ্য কর্মী রয়েছে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার রেহনেওয়াজ । তিনি আরো জানান,গত ১১ মে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে জেনোম সেন্টারে ১৩টি স্যাম্পুলের মধ্যে ৫টি পজিটিভ এসেছে। যার মধ্যে ইতিপূর্বে ৪জন ফলোআপ রোগী ছিল। একই দিন খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে ১৬টি স্যাম্পুলের মধ্যে পুরাতন রোগী নতুন করে পাঠানোর ফলে তা পজিটিভ এসেছে।তিনি আরো জানান,মঙ্গলবার ১২ মে স্যাম্পুল সংগ্রহ করে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে ১৯টি পাঠানো হলেও রিপোর্ট বুধবার ১৩ মে পাওয়া যায়নি। সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে আরো জানাগেছে, এ যাবত যশোরে যারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে চিকিৎসক থেকে শুরু করে অনেকে সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরছেন। প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত সন্দেহে কোয়ারেন্টাইনে থাকা রোগীরা ছাড়পত্র গ্রহন করছেন। যশোরে দিনদিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। ১৩ মে বুধবার যশোরের অভয়নগর উপজেলা থেকে নতুন করে ৬টি ও ফলোআপ ১টি স্যাম্পুল,বাঘারপাড়া উপজেলায় নুতন করে ৫টি ও ফলোআপ ১টি,শার্শায় নতুন করে ১টি ও ফলোআপ ২টি ঝিকরগাছায় ফলোআপ ১টি স্যাম্পুল,মনিরামপুর উপজেলায় নতুন করে ৪টি স্যাম্পুল,কেশবপুর উপজেলা থেকে নতুন করে ৫টি স্যাম্পুল ও যশোর সদর উপজেলা থেকে নতুন করে সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত যোগদানকারী ২১ জন চিকিৎসক ও চিকিৎসকদের পরিবারের দু’জনসহ ২৪ জনের স্যাম্পুল সংগ্রহ করা হয়েছে। যেগুলি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনোম সেন্টার ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাবে পাঠানোর প্রস্তুুতি গ্রহন করা হচ্ছে বলে সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানাগেছে। যশোরে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে শুরু করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা ও সদস্যরা সর্বদা দায়িত্ব পালন করলেও বিভিন্ন স্থানে দারুণ ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। যে হারে মানুষের চলাফেরা শুরু হয়েছে যা আগামী এক সপ্তাহে এর ফলাফল পাওয়া যাওয়ার আশংকা প্রকাশ করেছে যশোরের সচেতন ব্যক্তিরা। শপিংমল থেকে শুরু করে যে হারে কাঁচা বাজার থেকে শুরু করে যে সব প্রতিষ্ঠান অবাধে বসছে সংক্রমন করোনা ঝুঁকির পরিমান বেড়ে যাওয়ার আশংকা থাকছে সব সময়।