যশোরে নতুন মুক্তিযোদ্ধা অর্ন্তভূক্ত হয়েছেন ৪২জন যশোর সদরে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা ৫৭ ও ৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ

0
905

এম আর রকি : যশোর সদরে ৫৭ জন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনাক্ত হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা ছাড়াও ৯ জন রাজাকারের নাম বেরিয়ে পড়েছে। এ সময় ৪২ জন নতুন মুক্তিযোদ্ধা অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন । মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অন্তর্ভুক্তির জন্য অনলাইনে আবেদন করেন প্রায় ৮শ’।
গত রোববার রাতে যশোর সদর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই শেষে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। সদর উপজেলা পরিষদের নোটিশ বোর্ডে টানানো হয়েছে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকারের তালিকা।
সূত্রগুলো জানিয়েছেন, প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা সন্ধানে যাচাই বাছাই কমিটির সভাপতি ছিলেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রাজেক আহমেদ, সদস্য সচিব ইউএনও পঙ্কজ ঘোষ, সদস্য নজরুল ইসলাম চাকলাদার, আলী হোসেন মনি, আব্দুস সাত্তার ও মোহাম্মদ আলী স্বপন।
যাচাই বাছাই কমিটির প্রকাশিত তালিকায় ৫৭ জনকে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে চিহ্নিত করাসহ ৪ জনের নাম ভারতীয় লাল মুক্তিবার্তায় থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে। যাচাই বাছাইয়ে তালিকায় অভিযোগ ছিল ২০৯ জনের বিরুদ্ধে।
প্রকাশিত তালিকায় ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় যশোর পৌরসভার ১১ জন রয়েছেন। এরা হলেন, যশোর পূর্ব বারান্দিপাড়ার সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল ওয়াদুদ,মৃত মহিউদ্দীন আহমেদ,ডাক্তার মমতাজ,সৈয়দ মোস্তাক আলী ,রবিউল ইসলাম , বজলুর রহমান , আশরাফ আলী , অধির কুমার বিশ্বাস , সেলিম সরদার সোহরাব হোসেন।
এছাড়া,যশোর সদরে ৩৩ জনের মধ্যে রবিউল হক ,আমজাদ আলী , মৃত শফিয়ার রহমান,স্বপন কুমার , আহম্মদ আলী, মৃত আশরোপ আলী,আতিয়ার মোল্যা, লিয়াকত আলী , আব্দুল জলিল, সামছুল ইসলাম,নুরজাহান, আবু জাফর, ফসিয়ার রহমান ,মৃত আবু বকর সিদ্দিক, মৃত আব্দুল মতলেব,কেএম হারুন অর রশিদ , বদর উদ্দীন ,আবু তালেব বিশ্বাস, মোমিন উদ্দীন,আব্দুল খালেক,ওয়াজেদ আলী, আতিয়ার রহমান , নওয়াব আলী, আজাহার আলী,মৃত আলতাফ হোসেন, মৃত আকবর আলী ,আরশাদ আলী,মৃত মিজানুর রহমান ,গোলাম সরোয়ার,হাবিবুর রহমান,মৃত মোজাহার আলী , মৃত মোজাহার আলী ও গোলাম মোস্তফা । যাচাই বাছাই কালে লাল মুক্তি বার্তা থেকে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সনাক্ত হয়েছে ৪ জন। এরা হচ্ছে, আব্দুল মতলেব, বাবার নামের জায়গায় চাচার নাম ব্যবহার করে জালিয়াতি করেছেন পৌরসভার শংকরপুরের নজরুল ইসলাম সুফি, যশোর দৌলত দিহির খোজার হাটের দালাল আইন মামলায় অন্তর্ভুক্ত আসামির ড্রাইভার এএসএম আজিজুর রহমান ও দালাল আইন মামলায় অন্তর্ভুক্ত এএফএম আব্দুর রশীদ। রাজাকার হিসেবে অভিযুক্তের তালিকায় সনাক্ত হয়েছেন ৯ জন। এরা হলেন, রহিম হাওলাদার, খোয়াজ উদ্দীন,মোশারফ হোসেন, মনোয়ারুল,সাকাত আলী,সিরাজুল ইসলাম, ইসলাম গাজী . মোশাররেফও রাজাকারের ছেলে নাছিম আহমেদ। এদিকে, নতুন মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় শওকত আলী, মৃত সৈয়দ রবিউল হক, আফসার উদ্দীন, হোসনে আরা বেগম,ডাক্তার রেজাউল করিম,মৃত শামছুর রহমান,শামাসুন নাহার,আব্দুর রহিম,মৃত আব্দুল মালেক, আলতাফ হোসেন,আব্দুল ওহাব,আলমগীর হোসেন, অসীত কুমার রায়, সাইফুজ্জামান পিকুল,বিকাশ রঞ্জন দে, খোলাডাঙ্গার শেখ রবিউল ইসলাম, আকরাম হোসেন,আব্দুল হান্নান,মৃত আমজেদ হোসেন, আলাউদ্দীন বিশ্বাস, কাজী ফারুক শাহী,ছিদ্দিক হোসেন, আবু বকর সিদ্দিক,রওশন আলী, কওছার আলী, চান্দ আলী, আব্দুল মান্নান, আমজাদ হোসেন, মৃত আনোয়ার হোসেন, কার্তিক চন্দ্র রায়,বাবর আলী,আবু বক্কার সিদ্দিক,মৃত আব্দুল গণি,মৃত কামরুজ্জামান,অরবিন্দ বিশ্বাস,দুধু মল্লিক,ইছাহক আলী,সুলতান আহমেদ মোড়ল,সোহরাব হোসেন, এমএম আকরাম হোসেন ও আব্দুল বারি। যশোর জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রাজেক আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, ২৭ জানুয়ারি যশোর সদর উপজেলা পরিষদে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শুরু হয় । কমিটি কর্তৃক সর্ব সম্মতিক্রমে রোববার চূড়ান্ত তালিকা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here