যশোরে নারী শ্রমিক আগুনে দগ্ধ টাকার অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না

0
345

নিজেস্ব প্রতিবেদক : যশোর শহরের পালবাড়ি মোড়ে রাজু সুইটস’র নারী শ্রমিক কর্মরত অবস্থায় আগুনে দগ্ধ হয়েছে। সে কেশবপুর উপজেলার হাবাসপুর গ্রামের সোহরাব গাজীর স্ত্রী।তবে মালিক পক্ষ চিকিৎসা ব্যাপারে উদাসিন। বর্তমানে ওই নারী শ্রমিক খুলনা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি রয়েছে। তার চিকিৎসার ব্যয়ভার বহনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়নের যশোর শাখার নেতৃবৃন্দ।

দগ্ধ নারী শ্রমিকের মেয়ে মরিয়ম জানান, তার মা হামিদা বেগম রাজু সুইটসে গত ৭ বছর ধরে কাজ করে আসছেন। গত ২৫ এপ্রিল দুপুরে হোটেলের মধ্যে কাজ করছিলেন। এসময় তিনি ডালের হাড়ি নামাতে গিয়ে পা পিছলে পড়লে সমস্ত ডান তার শরীরে উপর পড়ে যায়। এসময় তার সহকর্মীরা এগিয়ে এসে উদ্ধার করে। কোন রকম চিকিৎসা করে তাকে বাসায় পাঠিয়ে দিলে তার সমস্ত শরীর জ্বলে পুড়ে উঠলে তাকে হাসিনা ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা করে  সহকর্মীরা গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।  সেখানে অবস্থার কোন উন্নতি না হলে তাকে কেশবপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে তারা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।
তিনি জানান, তার মায়ের মুখম-লসহ ডান হাত, বুকের অর্ধেক অংশ পুড়ে গেছে। বর্তমানে তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন আছেন।

প্রতিদিন প্রায় তিন হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। যা পরিবারের পক্ষ থেকে বহন করা সম্ভব নয়।হোটেলের মালিক রাজু আহম্মেদ চিকিৎসার জন্য কোন সহযোগিতা করছে না দাবি করেছেন।

এদিকে বাংলাদেশ হোটেল রেস্টুরেন্ট মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়নের যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তাইজেল ইসলাম  নারী শ্রমিক হামিদা বেগম কে চিকিৎসার জন্য হোটেল মালিক কর্তৃপক্ষ কোন সহযোগিতা করছে না। যা সত্যিই দুঃখজনক। এক বিবৃতিতে ইউনিয়নের সভাপতি আমির হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক তাইজেল ইসলাম হামিদা বেগমের সুচিকিৎসার ব্যয় বহনের মালিকের প্রতি জোর দাবি জানান এবং একই সাথে তার বকেয়া বেতন পরিশোধেরও দাবি জানান।

এদিকে রাজু সুইটসের মালিক রাজু আহম্মেদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নারী শ্রমিককের সহযোগিতা করা হচ্ছে দাবি জানিয়ে বলেন, অভিযোগ আসতেই থাকুক। তাতে আমার কোন সমস্যা হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here