যশোরে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানোসহ ৫ দফা দাবি

0
36

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম কমানো, রেশনিং ব্যবস্থা চালুসহ ৫ দফা দাবিতে যশোরের জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে দুটি বাম রাজনৈতিক সংগঠন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের হাতে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।
বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (মার্কসবাদী) ও বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের ৫ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমাতে হবে । রেশনিং ব্যবস্থা (পুলিশ/সেনাবাহিনীর রেটে) চালু করতে হবে। টিসিবি’র কার্ড বিতরণের ক্ষেত্রে দলবাজি, স্বজনপ্রীতি বন্ধ করতে হবে। মুজদদার, মুনাফাখোর, কালোবাজারি ও দুর্নীতিবাজদের আটক ও বিচার করতে হবে । ভবদহ সমস্যার আশু সমাধান করতে হবে ।
স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, সারাদেশে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে আগুন জ্বলছে। চারিদিকে হাহাকার। টিসিবি’র ট্রাকের পেছনে হাজার হাজার মানুষের ছুটে চলা, ঝুলে পড়া, হাউ হাউ করে কান্নার চিত্রই বলে দিচ্ছে দেশ ও জাতি আজ ভালো নেই। চাল, ডাল, তেল, গ্যাস সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। এমতাবস্থায় সরকারের দায়িত্বশীল মন্ত্রীদের দায়িত্বহীন কথাবার্তা বাজারকে আরো অস্থিতিশীল করে তুলছে। যা কাম্য নই। এই মুহূর্তে বাজার নিয়ন্ত্রণ না করতে পারলে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে। এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য গ্রাম-শহরে রেশনিং ব্যবস্থা (পুলিশ/সেনাবাহিনীর রেটে) চালু করার বিকল্প নাই। টিসিবি’র পণ্য কোনো সমাধান নয়। এক কোটি লোকের টিসিবি’র কার্ড প্রদানের ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই দলবাজি, স্বজনপ্রীতি, মুখ চেনা শুরু হয়ে গেছে। দেশের জনসংখ্যা ১৭ কোটি। ১ কোটি মানুষের মাঝে কার্ড বিতরণ সমস্যার সমাধান নয়। বরং সমস্যা বৃদ্ধি করবে। মজুদদার, মুনাফাখোর, কালোবাজারি ও দুর্নীতিবাজদের কারণে বাজার সংকট ব্যাপক বৃদ্ধি পাচ্ছে। দ্রুত তাদেরকে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হোক। আটক ও বিচার করা হোক। স্বাধীনতার পর থেকেই আমরা ভবদহ সমস্যায় ডুবে মরছি। বহু ধর্ণা, দেনদরবার করার পরেও এর কোনো সমাধান আজ পর্যন্ত হয়নি। আমরা ভবদহ সমস্যার আশু সমাধান দাবি করছি।
স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ, জেলা সভাপতি নাজিম উদ্দিন, জেলা সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান ভিটু, জেলার অন্যতম নেতা প্রফেসর ইসরারুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী আব্দুল হামিদ, মিজানুর রহমান, জেলা নেতা বিপুল বিশ্বাস, চৈতন্য কুমার পাল এবং বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের জেলা নেতা পলাশ বিশ্বাস ও সুমন বিশ্বাস প্রমুখ।