যশোরে নির্দিষ্ট কয়েকজন চিকিৎসক সেবিকা ও কর্মচারীদের ঝুঁকি হিসেবে তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে

0
364

যশোরে কোভিড-১৯ সংক্রমন মোকাবেলায় স্বাস্থ্য বিভাগের সকলে ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন
এম আর রকি : যশোর জেলায় কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশী স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত কর্মকর্তা থেকে কর্মচারীদের। মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ অতিক্রম হওয়ার সাথে সাথে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি হওয়ার পর স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত সকলের ছুটি সরকার বাতিল করেছেন। যার ফলে স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীদের করোনা মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধান মন্ত্রী। প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশকে বাস্তবায়নে করোনা মোকাবেলার জন্য শুধু মাত্র করোনা ভাইরাস সংক্রমন থেকে প্রতিরোধ হিসেবে বিভিন্ন সচেতনা মূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়নে পদক্ষেপ গ্রহন করা হলেও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সরকারি সকল ছুটি থেকে বঞ্চিত হয়ে দিনরাত সমানতালে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ড করোনী রোগীদের জন্য ও পুরুষ মেডিকেল ওয়ার্ডকে কোয়ারেন্টাইন হিসেবে খোলা হলেও গত এক মাসে করোনা রোগী সনাক্ত হিসেবে ভর্তি হয়নি। তবে জ্বর সর্দি ও কাশি রোগীদের মধ্যে মাত্র কয়েকজনকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। করোনা রোগী সনাক্ত না হলেও হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের নির্দেশে হাসপাতালে কর্মরত সেবিকাদের একটি তালিকা প্রস্তুত করে করোনায় দায়িত্ব পালনকারী একটি রোস্তার করা হয়েছে। প্রায় ৫০ জন সেবিকা ও চিকিৎসক কর্মচারীদের নিয়ে একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এদের মধ্যে করোনা সংক্রান্ত আইসোলেশন ওয়ার্ড,কোয়ারেন্টাইন ওয়ার্ড ও বেজ পাড়া টিবি ক্লিনিক হাসপাতালে শুধু মাত্র করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য সেবিকা,চিকিৎসক ও কর্মচারীদের একটি রোষ্টার তালিকা তৈরী করা হয়েছে। করোনী রোগী ভর্তি না হলেও করোনা সংক্রান্ত ওয়ার্ডগুলিতে যারা দায়িত্ব পালন করবেন তাদের একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। শুধু মাত্র তাদের নাম করোনা সংক্রমন রোগের দায়িত্ব পালনের ঝুঁকি হিসেবে দেখানো হচ্ছে। অথচ যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ড,কোয়ারেন্টাইন হিসেবে খোলা ওয়ার্ড ছাড়াও গাইনী ওয়ার্ড, মহিলা মেডিসিন,পুরুষ মেডিসিন,করোনারী কেয়ার ইউনিট,পুরুষ সার্জিক্যাল,পুরুষ মেডিসিন,মডেল ওয়ার্ডসহ যেসব ওয়ার্ড এবং বর্হিবিভাগের বিভিন্ন কক্ষে যে সব চিকিৎসক,সেবিকা,কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করছেন তারাও প্রতিনিয়ত করোনা সংক্রমন রোগের ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। নির্দিষ্ট দু’টি ওয়ার্ড ব্যতীত বর্হিবিভাগ ও ওয়ার্ডগুলিতে যে সব চিকিৎসক,সেবিকা ও কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করছেন। তারা চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের সংস্পর্শে থেকে চিকিৎসা প্রদান করছেন চরম ঝুঁকির মধ্য দিয়ে। সেক্ষেত্রে শুধু মাত্র আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টাইন এবং টিবি ক্লিনিক হাসপাতালে যে সব চিকিৎসক সেবিকা ও কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করছেন তাদের ক্ষেত্রে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকির দায়িত্ব দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক,সেবিকা ও কর্মচারীদের মধ্যে নানা গুঞ্জন সৃষ্টি হয়েছে। তাছাড়া,যশোর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তারাও করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত দায়িত্ব পালন করতে দেখা যাচ্ছে। সেই ক্ষেত্রে শুধু মাত্র করোনা রোগী ভর্তি না হলেও নির্দিষ্ট ওয়ার্ড গুলিতে দায়িত্ব পালন করে প্রধান মন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত করোনা ভাইরাসের দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তি ঝুঁকি ভাতার সুযোগ পেলে চরম অসন্তোষ দেখা দিবে। সূত্রগুলো বলেছেন,করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় শুধুমাত্র যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড,নতুন কোয়ারেন্টাইন ওয়ার্ড ও টিবি ক্লিনিক হাসপাতালের নির্দিষ্ট ওয়ার্ডে দায়িত্বরত চিকিৎসক,সেবিকা ও কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করছেন না। গোটা হাসপাতাল ও অন্যান্য ওয়ার্ড,বর্হিবিভাগে চিকিৎসক,সেবিকা ও কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন করছেন করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি নিয়ে। স্বাস্থ্য বিভাগের সবাই প্রধান মন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত দায়িত্ব পালনকারী হিসেবে দাবিদার এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন স্বাস্থ্য বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক,সেবিকা ও কর্মচারীরা। বিষয়টি দৃষ্টি দেওয়ার জন্য প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।