যশোরে নোঙ্গরপুর গ্রামের গভীর রাতে দু’পক্ষের গুলিবর্ষনে এক ব্যক্তি নিহত ৭ জনের নাম উল্লেখ করে পুলিশের মামলা

0
258

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর-মাগুরা মহাসড়কের যশোর সদরের নোঙ্গরপুর এলাকার মাজারের অদূরে সন্ত্রাসীদের দুই গ্রুপের গোলাগুলিতে অজ্ঞাতনামা (৫৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছে।সোমবার দিবাগত রাত আড়াইটার পর উল্লেখিতস্থানে এ গুলিবর্ষনের ঘটনা ঘটে ।
এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানার এসআই বাবুন চন্দ্র বিশ্বাস বাদি হয়ে ৭জনের নাম উল্লেখ করে মঙ্গলবার বিকেলে মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় ঘটনার সাথে জড়িত যশোর সদর উপজেলার শানতলার মৃত নওশের আলীর ছেলে টুটুল,শ্যামনগর গ্রামের মৃত ফকির সরদারের ছেলে ইউনুস,কনেজপুর গ্রামের আব্দুল জলিল,ডাকাতিয়া গামের ফসির উদ্দিনের ছেলে লিটন,সমসপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে শিয়াবুদ্দিন,রহমতপুর গ্রামের ইসমাইল খাঁর ছেলে আলী আকবর ওরফে আংটা,তালবাড়িয়া গ্রামের মৃত করিম মোল্যার ছেলে ফিরোজসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২জনকে আসামী করা হয়েছে।ওই রাতে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ানশুটার, এক রাউন্ড গুলি, একটি চাইনিজ কুড়াল,১টি তরবারী ও ৩টি হাসুয়া উদ্ধার পূর্বক জব্দ করেছে।
যশোর কোতয়ালি থানার এসআই বাবুন চন্দ্র বিশ্বাস বাদী হয়ে দায়েরকৃত মামলায় উল্লেখ করেছেন, যশোর মাগুরা মহাসড়কের নঙ্গরপুর গ্রামের মাজারের পাশে এজাহারভুক্ত আসামি এবং অজ্ঞাত পরিচয়ে সন্ত্রাসীরা এলাকায় আধিপাত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে গুলিবিনিময় করছে। বাসের হেলপার ও ড্রাইভারদের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে থানার এসআই ওয়াহিদুজ্জামান ও এসআই বাবুন চন্দ্র বিশ্বাস সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছানোর আগেই সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। সেখান থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে এক ব্যক্তির মাথার কানের অংশে ও বুকের বাম পাশে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায় থানার এসআই মঞ্জুরুল ইসলাম। হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক এম আব্দুর রশিদ অজ্ঞাত ব্যক্তিকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে মৃত বলে ঘোষনা করেন। মৃত ব্যক্তির লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়। পরে দুপুরে লাশেল ময়না তদন্ত শেষে মর্গে রাখা হয়েছে।অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি গুলিতে নিহত হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহত ব্যক্তির পরিচয় মেলেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here