যশোরে পুলিশি হয়রানি থেকে রক্ষা পাওয়ার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

0
29

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে পুলিশি হয়রানি থেকে রক্ষা পাওয়ার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন শহরের চিত্রামোড়ের কাশেম টাওয়ারের মালিক আব্দুল হামিদ। মঙ্গলবার প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন থেকে পুলিশের অহেতুক হয়রানি থেকে মুক্তি চান। কাশেম টাওয়ার পরিচালনা করার জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার বাড়ি ঝিনাইদহের কালিগঞ্জের ঝনঝনিয়া গ্রামে। যশোর শহরের চিত্রামোড় এলাকায় আমাদের ৫ শতাংশ জমিতে বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য গত ২০১২ সালের ৮ এপ্রিলে নদী বাংলা রিয়েল স্ট্রেট লিমিটেড নামে ঢাকার একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি হয়। যার মালিক জাহাঙ্গীর আলম। চুক্তি অনুযায়ী ৩৬ মাসের মধ্যে ৯ তলা পর্যন্ত নির্মাণ করতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোয়ের কারণে ৬ মাস বাড়তে পারে। সেই হিসেবে ৪২ মাসের মধ্যে তার নির্মাণ কাজ শেষ করতেই হবে। কিন্তু ১০ বছর পার হলেও নির্মাণ কাজ শেষ করেননি। উল্টো তিনি পাঁচতলা পর্যন্ত আংশিক নির্মাণ করে তার অংশ বিক্রি করে দেন। সামান্য কিছু অবিক্রিত রয়েছে। আমাদের অংশ নির্মাণ শেষ না হওয়ায় আমরা নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ কাজ শেষ করে ভাড়া দিয়েছি। বাকি চারটি ফ্লর নির্মাণ ও চুক্তি অনুযায়ী লিফট ও বিদ্যুত সংযোগের জন্য আমরা তাগাদা দিলেও তিনি করেননি। এক পর্যায়ে তার সাথে আমাদের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এজন্য আমরা আইনানুযায়ী তার সাথে চুক্তি বাতিলের জন্য ২০২২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর তারিখে মামলা করি।

এরপরই তিনি আমাদের সাথে নানা ধরনের প্রতারণার আশ্রয় নেন। আমাদের ভাঙ্গে ও ওই মার্কেটের তত্বাবধায়ক মোস্তাফিজুর রহমান কবিরের নামে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা করেন। ওই মামলার পর তাকে পুলিশ চার বার আটক করেছে।

তিনি আরো বলেন, শুধু তাই নয়, পুলিশ আমাদেরও চারবার থানায় ডেকে সমস্যা সমাধানের কথা বলেছে। কিন্তু তাদের বক্তব্য মেনে নিলে আমরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হই এজন্য তা মানতে পারিনি। কিন্তু এরই মধ্যে গত ১০ ডিসেম্বর একটি কক্ষে সন্ত্রাসী কায়দায় তালা লাগিয়ে দেয়া হয়েছে। খরব পেয়ে আমরা মার্কেটে এসে তালা খোলার চেষ্টা করি। কিন্তু পুলিশ এসে আমাদের ধরে নিয়ে যায়। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল সাধারণ মানুষ। ঘটনার পরদিন থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করি। কিন্তু থানা থেকে তা গ্রহণ করা হয়নি। শুধু তাই নয়, আমরা তালা খুলতে গেলেও পুলিশ খুলতে দিচ্ছে না। তালা লাগানো রুমের মধ্যে একটি মোবাইল কোম্পানির লাখ লাখ টাকার মালামাল রয়েছে, যা পুলিশ তাদের বের করতে দিচ্ছে না। আইনানুযায়ী ওই কোম্পানির সাথে আমাদের চুক্তি বাতিল হয়েছে।

এছাড়া, এবিষয়ে আদালতে মামলা চলছে। তার সাথে ব্যবসা করে আমরা আথিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। এজন্য তার সাথে আমরা আর কোন আর্থিক সম্পার্কে জড়াতে চাই না। আদালত যে সিন্ধান্ত দেবেন তাই মেনে নেবো। তবে এজন্য যেনো আমরা হয়রানির শিকার না হই সেজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামরা করছি।