যশোরে পুলিশ পরিদর্শকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলায় চার্জশিট

0
47

জেসমিন উল্লেখ করেন, ‘আজিজুল ২০২০ সালের ১৪ ডিসেম্বর সাতক্ষীরায় লাবনী নামে এক মেয়েকে বিয়ে করেন। ২০২১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি আমাকে তালাক দেন। গত ২৪ এপ্রিল রাত একটার দিকে আজিজ আমার ঘরের দরজা নক করেন। আমি দরজা খোলামাত্র তিনি ঘরের ভেতর ঢুকেই ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেন। ওই সময় তিনি আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। আজিজ ওয়াশরুমে ঢুকলে আমি ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দিই। পরে কোতোয়ালি থানা পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে।’

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে ধর্ষণের অভিযোগে আজিজুল হক সবুজ (৪৫) নামে পুলিশের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়েছে। যশোর নারী ও শিশু দমন ট্রাইবুনালে এই চার্জশিট দেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি (অপারেশন) সুমন ভক্ত।

অভিযুক্ত আজিজুল হক সবুজ পুলিশের এসআই পদে কর্মরত। তিনি বর্তমানে ঝিনাইদহের পুলিশ লাইনে সংযুক্ত রয়েছেন। সবুজ সাতক্ষীরার তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানার সুরুরিয়া গ্রামের আনোয়ারুল হকের ছেলে। তিনি বর্তমানে যশোর সদর উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামে থাকেন

যশোর শহরের বারান্দীপাড়া এলাকার বাদশা মিয়ার মেয়ে জেসমিন বেগম তার সাবেক স্বামী সবুজের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় ধর্ষণের মামলাটি করেন।

মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর আজিজুল হক সবুজের সঙ্গে জেসমিনের বিয়ে হয়। আজিজুলের আগেও তিনটি বিয়ে ছিলো। চাকরির সুবাদে আজিজ কর্মস্থলে থাকতেন। মাঝে মাঝে যশোরে বাদীর বসতবাড়িতে আসতেন এবং তারা অন্য দম্পতিদের মতো বসবাস করতেন।’

জেসমিন উল্লেখ করেন, ‘আজিজুল ২০২০ সালের ১৪ ডিসেম্বর সাতক্ষীরায় লাবনী নামে এক মেয়েকে বিয়ে করেন। ২০২১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি আমাকে তালাক দেন। গত ২৪ এপ্রিল রাত একটার দিকে আজিজ আমার ঘরের দরজা নক করেন। আমি দরজা খোলামাত্র তিনি ঘরের ভেতর ঢুকেই ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেন। ওই সময় তিনি আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। আজিজ ওয়াশরুমে ঢুকলে আমি ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দিই। পরে কোতোয়ালি থানা পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here