যশোরে পুলিশ পুত্রের ধর্ষণের শিকার সেই স্কুলছাত্রী এবার নিখোঁজ

0
292

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের মণিরামপুর উপজেলায় অচেতন করে অপহরণের পর পুলিশ পুত্রের ধর্ষণের শিকার নবম শ্রেণির ছাত্রীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এ ঘটনায় নিখোঁজ ভিকটিমের মা বাদী হয়ে বুধবার মণিরামপুর থানায় ডায়েরি করেছেন।

নিখোঁজ ভিকটিমকে উদ্ধারসহ আইনি ব্যবস্থা নিতে থানার ওসি মোকাররম হোসেন এসআই জীবন দাসকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে আলোচিত এ ধর্ষণ মামলা তুলে নিতে অব্যাবহত হুমকি দেয়া হচ্ছিল আসামিপক্ষ থেকে। ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্তদের পক্ষে অবস্থানকারী রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আইনুদ্দীন থানার মধ্যে ভিকটিমের মা ও বোনকে গালি দেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

নিখোঁজ ধর্ষিতার মা জানান, তার কন্যাকে ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলা তুলে নিতে প্রথম থেকেই তাদেরকে হত্যা-গুমসহ নানা ধরনের হুমকি দিয়ে আসছে পুলিশপুত্র ধর্ষণে অভিযুক্ত রুমানসহ তার পক্ষের লোকজন। এছাড়া ধর্ষকের পক্ষে প্রথম থেকেই সহযোগিতা করে আসছেন দারোগা আইনুদ্দীন।

গত ২০ জুন মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ির পাশে রাজগঞ্জ বাজারে বিকাশের টাকা তুলতে গিয়ে তার ধর্ষিতা কন্যা নিখোঁজ হয়। তার দাবি- ধর্ষক রুমানসহ তার পক্ষের লোকজন এ ঘটনা ঘটিয়েছে। ভিকটিমের বোন ও মা অভিযোগ করেন, ঘটনা জানিয়ে ওসির রুম থেকে বাইরে আসা মাত্রই এসআই আইনুদ্দীন তাদেরকে শুয়ারের বাচ্চা বলে গালি দিয়ে ধমকিয়েছে।

মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন, আমি পূর্বের ঘটনা জানি না। নবম শ্রেণির ছাত্রী নিখোঁজের ঘটনায় জিডি হয়েছে। যার নম্বর-৮৯৭। নিখোঁজ ছাত্রীকে উদ্ধারসহ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এসআই জীবন দাসকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৯ জানুয়ারি উপজেলার রাজগঞ্জ মনোহরপুর গ্রামের নবম শ্রেণির ছাত্রীকে অচেতন করে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয় উপজেলার নলতা এলাকার কথিত সাখাওয়াত কবিরাজের বাড়িতে। সেখানে আটক রেখে ওই ছাত্রীকে মারপিটের পর ধর্ষণ করে ইতিপূর্বে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে কর্মরত কনস্টেবল হাবিবুর রহমানের লম্পট পুত্র রুমান হোসেন। এসময় ওই ধর্ষণের চিত্র মোবাইল ফোনে ধারণ করে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়।

রুমানের দুই সহযোগী ছিলো রুবেল ও রয়েল। এদিন স্থানীয় ইউপি মেম্বর মিজানুর রহমানের দেয়া সংবাদের ভিত্তিতে এসআই আইনুদ্দীনের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালায় ওই কবিরাজের বাড়িতে। অসুস্থ অবস্থায় ধর্ষিতাকে উদ্ধার করা হলেও ঘটনাস্থলের পাশে অবস্থানকারী অভিযুক্ত রুমান ও তার দুই সহযোগীকে গ্রেফতার না করে পালিয়ে যেতে সুযোগ করে দেন এসআই আইনুদ্দীন।

পরে পাশবিক নির্যাতের শিকার ওই ছাত্রীসহ তার পরিবার মণিরামপুর থানায় গিয়ে ঘটনার বর্ণনা দিলেও মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে এসআই আইনুদ্দীনের পরামর্শ অনুযায়ী সাবেক ওসি বিপ্লব কুমার নাথ ধর্ষণের পরিবর্তে থানায় অপহরণের মামলা রেকর্ড করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে মানবাধিকার সংগঠনসহ একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যশোরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালনসহ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে ওসি বিপ্লব কুমার নাথ ও এসআই আইনুদ্দীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

আদালতে নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনায় ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়া আদালতে ওই ভিকটিমের ২২ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। আদালতে দায়ের করা মামলা তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) যশোর অঞ্চলকে। যার তদন্ত চলমান।

ঘটনার পর একাধিক টিভি চ্যানেল এবং বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর আলোচিত নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনা অবগত হন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা। ওই ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যশোর পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন। কিন্তু আজও পুলিশের পুত্র রুমানকে পুলিশ আটক করতে পারেনি। ওই সময় মণিরামপুর থানার ওসি বিপ্লব কুমার নাথ অন্যত্র বদলি হলেও এসআই আইনুদ্দীন এখনো বহাল তবিয়তে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here