যশোরে পুলিশ লাইনের কনস্টেবল শাহিন আলম এবার পুলিশের খাঁচায়

0
313

সেনাবাহিনীতে চাকরি দেবার নামে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি : সেনাবাহিনীতে চাকরির নামে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আত্মসাত করার অভিযোগে শাহিন আলম নামে এক পুলিশ কনস্টেবলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে যশোর পুলিশ লাইন থেকে তাকে আটক করা হয়। এরপর ঝিকরগাছা থানায় দায়ের করা প্রতারণার মামলায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আটক শাহিন আলম যশোর পুলিশ লাইনে কর্মরত ছিলেন। তার কনস্টেবল নম্বর- ১৭৬৭।
ঝিকরগাছার থানার ওসি মাসুদ করিম সাংবাদিকদের জানান, ঝিকরগাছা উপজেলার বল্লা গ্রামের রুহুল কুদ্দুস প্রতারণার অভিযোগ এনে গত ১৪ মার্চ থানায় মামলা করেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেন, একই গ্রামের সিদ্দিক হোসেন তাকে জানায় সে সেনাবাহিনীর অফিস সহায়ক পদে চাকরি দিতে পারেন। তার কথায় বিশ্বাস করে তিনি শ্যালক মাসুম বিল্লাহ, ভাইপো ইমরান আহম্মেদ ও চাচাতো ভাই ইমরান হোসেনকে চাকরি দিতে ১৫ লাখ টাকায় চুক্তিবদ্ধ হন। এরপর সিদ্দিক হোসেন চাকরি প্রার্থীদের নিয়ে পুলিশ কনস্টেবল শাহিন আলম ও বাবু নামে আরেক ব্যক্তির কাছে যান। ওই দু’জনের সাথে চাকরির বিষয়ে পাকা কথাবার্তা হয়। এরপর চাকরি প্রার্থীদের গত ২৫ জানুয়ারি ঢাকার গাবতলীতে যেতে বলে। সেখান থেকে তাদের সুমন নামে একজন মিরপুর ১২ নম্বরে নিয়ে যান। সেখানে সেনাবাহিনীর পোষাক পরিহিত সালাউদ্দিন এবং আব্দুল হক নামে আরেক ব্যক্তি সাদাপোশাকে চাকরি প্রার্থীদের সাথে দেখা করেন। ওই দুই ব্যক্তি চাকরি প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষাও নেন। এরপর মেডিকেল পরীক্ষার জন্য তাদের কাছ থেকে ৫ হাজার টাকা করে গ্রহণ করেন। এরপর জানান সিদ্দিক হোসেন বাড়িতে নিয়োগের সংবাদ পৌছে দিবে।
অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, গত ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টার দিকে সিদ্দিক হোসেন মামলার বাদী রুহুল কুদ্দুসের কাছ থেকে ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা গ্রহণ করেন। এরপর ঢাকায় গিয়ে কথিত সেনা কর্মকর্তা সালাউদ্দিনের কাছ থেকে নিয়েআপত্র সংগ্রহ করতে বলেন। ২৪ ফেব্রুয়ারি সালাউদ্দিন সেনাবাহিনীর একজন লে. কর্নেল পদ মর্যাদার কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত নিয়োগপত্র দেন এবং আরো ৪ লাখ টাকা গ্রহণ করেন। সর্বশেষ ১২ মার্চ মাসুম বিল্লাহ কুমিল্লা সেনানিবাসে অফিস সহায়ক এবং ইমরান আহম্মেদ ও ইমরান হোসেনকে ঢাকা সেনানিবাসে এমইএস এজি শাখায় অফিস সহায়ক পদে যোগদান করতে যান। এসময় তারা জানতে পারেন নিয়োগপত্র ভুয়া। বাড়িতে ফিরে মীমাংসায় ব্যর্থ হয়ে ১৪ মার্চ ঝিকরগাছা থানায় প্রতারণার অভিযোগে মামলা করা হয়।
ওসি আরো জানান, এ অভিযোগে পুলিশ কনস্টেবল শাহিন আলমকে বুধবার গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ মো. আবু সরোয়ারকে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি জানান, কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়। অভিযোগের বিষয়টি প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় কনস্টেবল শাহিন আলমকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here