যশোরে পুলিশ সুপারের জঙ্গী ও মাদক বিরোধী একশ’ দিনের কর্মসূচী শেষ দিন ২০ মে

0
235

কর্মসূচীকে পুঁজি করে অর্থলোভীরা পকেটভারীতে ব্যস্ত ॥ প্রকৃত অপরাধীরা গ্রেফতার নিয়ে সংশয় !
এম আর রকি : পুলিশ সুপার কর্তৃক ঘোষিত ১শ’ দিনের জঙ্গী ও মাদক বিরোধী অভিযানকে পুঁজি করে কোতয়ালি মডেল থানাসহ জেলার বিভিন্ন থানা এবং পুলিশ ক্যাম্প,ফাঁড়ি পুলিশ অবাধে অর্থ উপার্জনের প্রতি বেশী ঝুঁকে পড়েছে। আগামী ২০ মে এই ঘোষিত একশ’দিন কর্মসূচীর শেষ দিন । এ তথ্য বিভিন্ন নির্ভরযোগ্য সুত্রে।
পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানিয়েছেন, গত ৬ ফেব্রুয়ারী সকালে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান তার কার্যালয়ের সভাকক্ষে যশোরের সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় মাদক ও জঙ্গীর প্রতিকার বাংলাদেশ পুলিশের অঙ্গীকার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মাদক নির্মূলে যশোর জেলা পুলিশের ১শ’ দিনের কর্মসূচবী ঘোষনা করেন। ১০ ফেব্রুয়ারী থেকে এই কর্মসূচীর কার্যক্রম শুরুর কথা ঘোষনা করা হয় মতবিনিময় সভায়। আজ ৩০ এপ্রিল রোববার কর্মসূচীর দুই মাস ২০ দিন অর্থাৎ ৮০ দিন অতিবাহিত হচ্ছে।
সূত্রগুলো বলেছেন,মাদক ও জঙ্গীর প্রতিকার বাংলাদেশ পুলিশের অঙ্গীকার এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মাদক নির্মূলে পুলিশ সুপার ১শ’ দিনের কর্মসূচী ঘোষনা করার পর কোতয়ালি মডেল থানাসহ জেলার বিভিন্ন থানা,পুলিশ ক্যাম্প,তদন্ত কেন্দ্র ও ফাঁড়ীর ইনচার্জ,এসআই,এএসআই কর্মসূচীকে পুঁজি করে অবাধে অবৈধ পন্থায় অর্থ উপার্জন করেছেন। বর্তমানে এই অবস্থা অব্যাহত রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রগুলো দাবি করেছেন। সূত্রগুলোর অভিমত পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের মহতি উদ্যোগকে পুঁজি করে অর্থলোভী পুলিশ কর্মকর্তা জঙ্গী ও মাদক ব্যবসায়ীর নামে প্রকৃত মাদক বিক্রেতাদের জিম্মি করে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করেছে। মাদক বিক্রেতার পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যক্তিদের আটক করে তাদের পরিবারের কাছে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করেছে। অর্থলোভী পুলিশ কর্তার দাবি মেটাতে ব্যর্থ হলে উল্টো বিভিন্ন মাদক মামলায় আদালতের বারান্দায় যেতে হয়েছে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিকে। আর যারা পুলিশের দাবি মেটাতে সক্ষম হয়েছে তিনি মাদক বিক্রেতা হলেও তাকে মাদকসহ গ্রেফতার করার পরও অতিগোপনে থানা কিংবা পুলিশের হেফাজত থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রকৃত মাদক বিক্রেতার ক্ষেত্রে পুলিশ একটু অর্থ বেশী দাবি করেছে। আর মাদক বিক্রেতা নয় তবে মাদক সেবনকারী ও মাদক স্পট থেকে ধরা পড়া ব্যক্তিকেও রক্ষা নেই। তাকে পুলিশের চাহিদা মিটিয়ে মুক্তি পেতে হয়েছে। যার ফলে পুলিশ সুপারের ঘোষিত কর্মসূচী কতখানি বাস্তবায়ন হয়েছে এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। অপর সূত্রগুলো বলেছে, পুলিশ সুপারের একশ’ দিনির কর্মসূচী ঘোষনার পর প্রকৃত মাদক বিক্রেতা ও ব্যবসায়ীরা যশোর ছেড়ে অত্র জেলায় চলে গেছে। যার ফলে পুলিশের ধরার ছোয়ার বাইরে থেকে তারা সব সময়। আর জঙ্গী গ্রেফতারে পুলিশের সফলতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তার কারণ পুলিশ জঙ্গী হিসেবে এই কর্মসূচীর মধ্যে যাদেরকে গ্রেফতার করেছেন তারা পুলিশের কাছে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পন করেছিল। জেলা পুলিশের কাছে জঙ্গী তালিকাভূক্ত নতুন কেউ গ্রেফতার হয়নি পুলিশ সুপারের ঘোষিত কর্মসূচীর মধ্যে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা জানান, পুলিশ সুপারের মহতি উদ্যোগকে পুঁজি করে কতিপয় কর্মকর্তা নিজেদের আখের গোছাতে অতিব্যস্ত হয়ে পড়ায় জেলায় উল্লেখযোগ্য মাদক বিক্রেতা কিংবা জঙ্গী ধরা পড়েনি। আজ ৩০ এপ্রিল পুলিশ সুপারের ঘোষিত কর্মসূচীর ৮০দিন আগামী ২০ মে ১শ’ দিন পরিপূর্ণতা লাভ করবে। এই কর্মসূচীর মধ্যে সাজাপ্রাপ্ত ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী রয়েছে গেছে ধরা ছোয়ার বাইরে। যার ফলে ওয়ারেন্ট নিয়ে বুক ফুলিয়ে চলাচল করেছে বিভিন্ন নারী ও পুরুষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here