যশোরে পৃথক ঘটনায় গত ২৪ঘন্টায় তিন জনের মৃত্যু আহত এক

0
269

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে দু’জন কিটনাশক পানে ও ভলকানাইজিং দোকানে টায়ার বিস্ফোরনে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাবলি বুধবার দিনে রাতে ঘটে। মৃতরা হচ্ছে যশোর শার্শা উপজেলার আব্দুল মমিন সরদারে ছেলে নির্মান শ্রমিক গোলাম মোস্তফা বাবু (২৫)ও মনিরামপুর উপজেলার শেরআলী মদনপুর গ্রামের শাহিন হোসেনের স্ত্রী হাবিবা খাতুন(২৩)। এবং ঝিনাইদহ কালিগঞ্জ উপজেলার ইইব্রাহিম ব্যাপারির ছেলে ইউনুছ ব্যাপারী(৫০)। এসময় শহরস্ত বকচর কলোনিপাড়া এলাকার রওশনের ছেলে হোসেন আলী(১৮)গুরুতর আহত হন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে রেফার করা হয়।

নিহত বাবুর পিতা মমিন সরদার বলেন, বাবু নির্মান শ্রমিক ছিলেন। তুচ্ছ ঘটনায় স্ত্রী রাশিদার উপর অভিমান করে, বুধবার দুপুরে কিটনাশক পান করে এলাকার বারোপোতা রাস্তার উপর পড়ে থাকে। স্হানিয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্হানিয় স্বাস্হ কমপ্লেক্সে ও পরে ওইদিন যশোর ২৫০শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।চিকিৎসাধীন অবস্হায় বেলা তিন টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিহত হাবিবা খাতুনের স্বামি শাহিন হোসেন বলেন, হাবিবা খাতুনের সাথে কয়েক বছর আগে মাছ ব্যবসায়ী শাহিনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর জান্নাতি, জিম ও মুন নামে তাদের তিনটি মেয়ে আছে।বুধবার সকালে তিন মেয়েকে ডিম ভেজে খেতে দেওয়কে কেন্দ্র করে হাবিবা কিটনাশক পান করে। স্হানিয়রা তাকে উদ্ধার করে ওইদিন যশোর ২৫০শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।চিকিৎসাধীন অবস্হায় বেলা সাড়ে তিন টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

অপরদিকে হাসপাতাল সূত্রে জানাযায়, নিহত ইউনুছ বুধবার রাতে যশোর শহরস্ত মুড়লী বকচর রিমন ভলকানাইজিং নামে একটি দোকানে কর্মমরত ছিল। এসময় একটি ট্রাকের চাকায় হাওয়া দিতে গিয়ে টায়ার বিস্ফোরন হয়ে তিনি ঘটনা স্হলেয় নিহত হন। এসময় সহকর্মী হোসেন আলী ও গুরুতর আহত হন। স্হানিয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে রাত সোয়া দশ টার দিকে যশোর ২৫০শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেয়। জরুরী বিভাগে ডাক্তার এম আব্দুর রশিদ ইউনুছকে মৃত ঘোষনা করে বলেন হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে ও হোসেন আলীর অবস্হা আশংকাজনক। পরে সার্জারী বিভাগে ডাক্তার মনিরুজ্জামান লর্ড হোসেন আলীকে ঢাকা মেডিকেলে রেফার করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here