যশোরে পৌষের শেষে হাড় কাঁপানো শীতে জনজীবন চরম বিপর্যস্ত

0
498

এম আর রকি  : প্রবাদ আছে পৌষের শীতের মহিষের গায়। আর মাঘের শীত বাঘের গায়ে। তেমই পৌষ মাস বিদায় দিনে যশোরে হাড় কাঁপানো শীতে জন জীবন চরমভাবে বিপর্যস্ত হয়ে উঠেছে। গতকাল শনিবার ৩০ পৌষ সকাল থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত যশোর অঞ্চলের আকাশ ছিল সূর্য্য বিহীন। খুব ভোর থেকে গোটা যশোর অঞ্চলের রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে সব খানে ঘন কূয়াশা পরিলক্ষিত হয়েছে।অতিমাত্রা ঠান্ডার কারণে খেটে খাওয়া দিন মুজুর নারী পুরুষেরা ঘরের বাইরে দেখা যায়নি। গতকাল শনিবার পৌষ মাসের ৩০ তারিখে যশোরে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৭ দশমিক শুন্য ডিগ্রী সেলসিয়াস। শীতের কারণে যশোর অঞ্চল জুড়ের বিভিন্ন স্থানে নিন্ম আয়ের মানুষ একটু গরম অনুভবের আশায় আগুন জ্বালিয়ে কিছুটা স্বস্তি পেতে দেখা গেছে। ঘন কুয়াশার কারনে যশোরের সাথে দেশের সকল জেলার যোগাযোগ সড়কে চলাচলরত দূর পাল্লার যানবাহন হেড লাইট জ্বালিয়ে ঘন্টায় ১০ কিলোমিটার গতি সীমা রেখে চলাচল করছে। বিমান ও ট্রেনের সময় সূচীর কিছুটা পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেছে। ঘন কূয়াশার কারনে ঝুঁকি নিয়েও ট্রেন ও অন্যান্য যানবাহন চলাচল করলেও কোথাও কোন দূর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। এভাবে ঘন কূয়াশা অব্যাহত থাকলে শীতের সবজি উৎপাদনে মারাত্মক ক্ষতির আশংকা করছে সবজি উৎপাদনকারী কৃষকেরা। তারা ইরি ব্লক রোপনে চরম আতংকের মধ্যে রয়েছে। অব্যাহতভাবে শীত দিনদিন বৃদ্ধি পাওয়ায় শীত বাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ছাড়াও জেলার বিভিন্ন সরকারী হাসপাতাল ও বেসরকারি হাসহাসপাতাল গুলিতে শীত বাহিত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। হাসপাতালগুলিতে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,অতিমাত্রা শীতের কারণে অ্যাজমা রোগ,ঘা পাচড়াসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন হাসপাতাল গুলিতে শিশু ও বয়স্ক ব্যক্তি ভর্তি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গত কয়েকদিনের অব্যাহত শীতে যশোর অঞ্চলে শীতের সবজি থেকে শুরু করে বেশ কয়েকটি ফসলের ক্ষতি হয়েছে বলে কৃষকেরা জানিয়েছে। সবজির ক্ষতি হওয়ায় বাজারে শীতের সবজির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিকে আবহাওয়া অফিস সূত্রে বলা হয়েছে। আগামী মাঘ মাষে যশোর অঞ্চল দিয়ে শৈত্য প্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here