যশোরে প্রকাশ্যে প্রতিপক্ষকে গুলি করায় লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে চা দোকানী খুন

0
364

সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবিতে লাশ নিয়ে কোতয়ালি থানা ঘেরাও এলাকাবাসীর

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের বেজপাড়া টিবি ক্লিনিক এলাকায় প্রকাশ্যে দিবালোকে টিপু সুলতান (২৫) নামে এক যুবক চিহ্নিত দূর্বৃত্তদের ছোড়া গুলিতে খুন হয়েছে। গতকাল শনিবার ২৩ ডিসেম্বর বেলা পৌনে ১১টায় শহরের টিবি ক্লিনিক মোড়স্থ নিহত টিপুর চায়ের দোকানে হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটে। সে ওই এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে। হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে বিকেলে পৌর সভার কাউন্সিলর মোস্তফা ও হাজী সুমনের নেতৃত্বে লাশ নিয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় ঘেরাও করে এলাকাবাসী। পরে পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে তারা লাশ নিয়ে ফিরে যায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশের কয়েকটি টিম হত্যাকারী হিসেবে চিহ্নিত শুভ ও শিশির নামে দুই সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে।
নিহত টিপুর স্ত্রী শর্মি সাংবাদিকদের জানান, শনিবার সকালে একটি মোটর সাইকেল যোগে দুই সন্ত্রাসী শুভ ও শিশির স্বামীর চায়ের দোকানের সামনে আসে। এ সময় দোকানে বসে থাকা ট্যাবলেট সোহেল ওরফে সোহেলকে গুলি করে তারা গুলি ছোড়ে। ট্যাবলেট সোহেল প্রাণ বাঁচাতে দৌড় মারলে ছোড়া গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে চা দোকানী টিপুর বুকের ডান পাশে বিদ্ধ হয়। টিপু দোকানের মধ্যে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে দোকানে থাকা ক্রেতা ও টিপুর মাতাসহ স্থানীয় লোকজন দ্রুত উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসে। জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক টিপুর শরীর পরীক্ষা নিরীক্ষা করে মৃত ঘোষণা করে। দুপুরে টিপুর লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে হত্যাকান্ডের বিচার দাবি করে যশোর পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর গোলাম মোস্তফা ও ৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল হাজী সুমনের নেতৃত্বে এলাকাবাসী চা দোকানী টিপুর লাশের খাটিয়া নিয়ে মিছিল নিয়ে কোতয়ালি মডেল থানার সামনে আসে। তারা টিপুর লাশের খাটিয়া কোতয়ালি মডেল থানার প্রধান গেটের সামনে রেখে আসামীদের গ্রেফতার দাবি করে। তারা পুলিশকে জানান,টিপুর হত্যাকারীরা ঘটনার পর থেকে বিভিন্ন বাসা বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও বোমাবাজি ঘটাচ্ছে। অপর একটি সূত্র বলেছে,হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে শহরের ষষ্টিতলাস্থ এলাকায় দুপুরে কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণ ও নিত্য ঘোষের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করা হয়েছে। এ সময় সন্ত্রাসীরা হাজী সুমনের বাড়িতে হামলা চালায় বলে কোতয়ালি মডেল থানায় ঘেরাও কালে সুমন থানার পুলিশ পরিদর্শক সৈয়দ আলমগীর হোসেনকে জানান। মিলিছ কারীরা পুলিশকে জানান,জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ -সভাপতি মনোয়ার হোসেন ইমন হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তাদেরকে গ্রেফতার করলে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটতো না। তারা সন্ত্রাসীদের আক্রমনে থানায় আশ্রয় নেয়ার কথা পুলিশকে জানান মিছিল কারীরা। এদিকে
যশোর কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজমল হুদা সাংবাদিকদের জানান, আমি ঘটনা শুনেছি। পুলিশ পরিদর্শক সৈয়দ আলমগীর হোসেনকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহতর পরিবারের পক্ষ থেকে কোতয়ালি থানায় ১২ জনের নামে অভিযোগে দায়ের করা হয়েছে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here