যশোরে প্রকাশ্যে যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের ওপর গুলিবর্ষণ

0
243

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রকাশ্যে যশোর জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মঈনুদ্দিন মিঠুকে লক্ষ্য করে দুর্বৃত্তরা গুলি ছুড়েছে। অল্পের জন্য মিঠু রক্ষা পেয়েছেন ।

সোমবার দুপুরে যশোর শহরের পুরাতন কসবা পুলিশ লাইনের পাশে নিজ বাড়ির সামনে অজ্ঞাতনামা দূর্বৃত্তরা যুবলীগ নেতা মইনুদ্দিন মিঠুকে লক্ষ্য করে হঠাৎ গুলিবর্ষন করে। পরপর চার রাউন্ড গুলি ছুড়লেও লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায় মিঠু প্রানে বেঁচে যান। মিঠু সাংবাদিকদের বলেন দূবৃর্ত্তদের ছোড়া গুলিতে তিনি দৌড়ে পুলিশ লাইন মসজিদে আশ্রয় নেওয়ার পর দুর্বৃত্তরা দ্রুত সটকে পড়েন।

মিঠু দাবি করেছেন, তার উপর গত কয়েক বছরে দু’বার গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটলো। গুলিবর্ষনের খবর পেয়ে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গুলিবর্ষনের আলামত সংগ্রহের চেষ্টা করছেন বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। গুলিবর্ষনের কারা জড়িত পুলিশ তাদেরকে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালাচ্ছেন।

গুলিবর্ষণে প্রানে বেঁচে যাওয়া মিঠু সাংবাদিকদের বলেন,যশোর সদরের এমপি কাজী নাবিল আহমেদের গাড়িতে তিনি দুপুর দেড়টায় বাড়ির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন। তিনি শহরের পুলিশ লাইনের অদূরে মণিকা শিশু ক্লিনিকের সামনে গাড়ী থেকে নেমে বাড়ির উদ্দেশ্যে পায়ে হেটে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ দুই মোটর সাইকেল যোগে ৬ দূবৃর্ত্ত তার কাছাকাছি চলে এসেই ৪ দূর্বৃত্ত অস্ত্র বের করে হত্যার উদ্দেশ্যে মিঠুকে গুলিবর্ষন শুরু করে। ভাগ্যক্রমে একটি মাত্র অস্ত্র থেকে গুলি বের হলেও লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। আর এই সুযোগে তিনি দৌড়ে প্রানে বাঁচানোর জন্য পুলিশ লাইনের মসজিদের মধ্যে ঢুকে আশ্রয় নেয়। মসজিদের জোহরের নামাজ চলায় দূর্বৃত্তরা দ্রুত পিছু হোটে চলে যায়। মসজিদের অবস্থান নিয়ে মিঠু পুলিশ ও আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দকে বিষয়টি জানান। থানা থেকে পুলিশ গিয়ে মিঠুকে বাড়িতে পৌছে দেয়।
কোতয়ালী মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত আবুল বাশার মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, গুলিবর্ষনের ঘটনা শোনার পর পরই এলাকায় পুলিশের একটি টিম পাঠানো হয়েছে। গুলিবর্ষন দূর্বৃত্তদের সনাক্ত করতে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।

মিঠুর এলাকার বাসিন্দা যুবলীগের অপর গুরুত্বপূর্ন নেতা শফিকুল ইসলাম জুয়েলের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বাসায় রয়েছি। এমন কোনো ঘটনা শুনিনি। খোঁজ নিয়ে দেখছি ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here