যশোরে ফুফাতো বোন ও চাচাতো ভাবী কর্তৃক প্রবাসী যুবকের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশলে সাড়ে ৯লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

0
100

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবার আপন ফুফাতো বোন ও চাচাতো ভাবী কর্তৃক প্রবাসীর যুবকের কাছ থেকে বিভিন্ন কৌশল নিয়ে সাড়ে ৯ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি যশোর সদর উপজেলার বিরামপুর গ্রামে।
ডবরামপুর গ্রামের ম ৃত জাহাতাব খানের ছেলে নাজমুল আলম পল্টু আদালতে তার আপন ফুফাতো বোন ও আপন চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রী মদিনা খানম খাঁনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, মদিনার স্বামী শহিদুজ্জামান খাঁন ১৯৮২ সালে কাজের উদ্দেশ্যে বিদেশে গেলে মদিনা খানম মামাতো ভাই নাজমুল আলম পল্টুকে তার বাড়িতে বসবাসের উদ্দেশ্যে নিয়ে আসেন। পল্টুর সকল দায় দায়িত্ব গ্রহন করত ভবিষৎ গড়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে পল্টু ফুফাতো বোনে মদিনা খানম খাঁনের বাড়িতে বসবাস কাতে থাকে। বিগত ১৯৮৪ সালে পল্টু কাজের উদ্দেশ্যে কুয়েত যান। কুয়েতে যাওয়ার ৬ মাস পর ইরাক কুয়েত দখল করে নেওয়ার কারনে জীবনের ভয়ে পল্টু দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হয়। সে সময় দেশের বিমান বন্দরে পৌছালে পল্টুকে বাংলাদেশ সরকার তাকে ক্ষতি পূরণ ৫ হাজার টাকা প্রদান করেন। সে বাড়িতে ফিরে এসে তার কাছে থাকা ৪০ হাজার টাকা ও ক্ষতি পূরণ ৫ হাজার টাকা মোট ৪৫ হাজার টাকা মদিনা খানম খাঁনের কাছে তুলে দেয়। এর পর পল্টু পুনরায় ১৯৯৪ সালের মার্চ মাসে সে সৌদি আরবে যান। সৌদি আরবে অবস্থান কালে কুয়েত সরকার কর্তৃক পল্টুকে ক্ষতি পূরনের ২লাখ ২৫ হাজার টাকা ক্ষতি পূরণের চিঠি দেয়। পল্টু চিঠি পেয়ে সৌদি বাংলাদেশ এ্যম্বাসীতে যেয়ে মদিনা খানমের নামে অথোরাইজড করে দিলে উক্ত কুয়েতের ক্ষতি পূরণের টাকা মদিনা খানমের জনতা ব্যাংক লিমিটেড যশোর শহরের এইচএমএম রোডস্থ শাখা মদিনা খানম খাঁনের হিসাব নং ১০৪৫২ এ জমা হয়। সৌদি আরবে পল্টু অবস্থান কালে সে ফুফাতো বোন মদিনা খানমের ছেলেকে নিজ খরচে সৌদি আরবে নিয়ে কাজ দেয়। এরপর ও মদিনা খানম পল্টুকে জানায়,সৌদি আরব থেকে মদিনা খানমের ব্যাংক হিসাবে টাকা পাঠালে সে উক্ত টাকা দিয়ে পল্টুর নামে জমি কিনবে। পল্টু মদিনা খানমের কথায় সরল বিশ^াসে জনতা ব্যাংক মদিনা খানমের হিসাব শাখায় ১৯৯৪ সাল হতে বিভিন্ন সময় মোট ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রেরণ করেন। মদিনা খানম মোবাইল ফোনে পল্টুকে জানায় সে ইতিমধ্যে তার প্রেরিত টাকা দিয়ে পল্টুর নামে জমি কিনেছে আরো কিনছে। পল্টু ২০১০ সালে দেশে ফিরে আসে। ফুফাতো বোন মদিনা খানমের কাছে তার নামে ক্রয়কৃত জমির দলিল দাবি ও ক্রয়কৃত জমির অবস্থান দেখিয়ে দখল বুঝাই দিতে বলে। মদিনা খানম পল্টুকে সে সময় বলে জমিতো আর উড়িয়ে যাচ্ছেনা। ব্যস্ততার কোন কারণ নেই। এভাবে সময় ক্ষেপন করের পল্টুকে মদিনা খানম ক্রয়কৃত জমির দলিল ও জমির দখল বুঝিয়ে না দেয়ায় পল্টু চাপ প্রয়োগ করে। মদিনা এক পর্যায় স্বীকার করে পল্টুর পাঠানো টাকা দিয়ে সে নিজের নামে জমি কিনেছে। পল্টু জমির রেজিষ্ট্রি খরচ জোগাড় করতে সে পল্টুর নামে জমি রেজিষ্ট্রি করে দেবে। পল্টু জমির রেজিষ্ট্রি খরচ জোগাড় করলে মদিনাকে জমি রেজিষ্ট্রি করে দিতে বললে সে বিভিন্ন অজুহাত দেখাতে শুরু করে। আজ না কাল বলে ঘুরাতে থাকে। পল্টু নিরুপায় হওয়ার এক পর্যায় গত ১১ সেপ্টেম্বর সকাল ১০ টায় মদিনা খানমের বাড়িতে স্বাক্ষীগন নিয়ে পল্টুর টাকায় ক্রয়কৃত জমি রেজিষ্ট্রি করে দিতে বলেলে মদিনা খানম জমি রেজিষ্ট্রি করে দিতে অস্বীকার করলে পল্টু মদিনা খানমের ব্যাংকে পাঠানো সর্বমোট ৯ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ফেরত চাইলে মদিনা তাও ফেরত দিতে অস্বীকার করে এবং বলে পারলে আদায় করে নিতে বলে। মদিনা খানম বিশ^াস করে প্রতারণা করেছে। মদিনা পল্টুর টাকা আত্মসাৎ করবে জানলে পল্টু কখনর মদিনার কথায় বিশ^াস করে ব্যাংক হিসেবে টাকা পাঠাতো না। সৌদি আরব থেকে পাঠানোর টাকার রশিদ পল্টুর কাছে রয়েছে। স্থানীয়ভাবে পল্টু মীমাংসা করার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে আদালতে মামলা করতে বাধ্য হয়েছে। আদালতের মামলা নং ১১৫৩/২০ তারিখঃ ১১/০৯/২০ইং ধারাঃ ৪০৬/৪২০/১০৯ পেনাল কোড।#