যশোরে ফেজবুকে ছাত্রীর সাথে প্রেম কানিহী ভাইরাল ! শিক্ষক বহিস্কার

0
505

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজ প্রতিষ্ঠানের হিন্দু ধর্মালম্বী ছাত্রীর সাথে প্রেমজ সম্পর্কের সূত্র ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি প্রকাশের জেরে মণিরামপুরে এবার জাহাঙ্গীর আলম (৩০) নামের এক স্কুল শিক্ষককে বহিস্কার করেছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি ফেসবুকে শিক্ষক-ছাত্রীর আপত্তিকর অবস্থার ছবি প্রকাশ হওয়ায় কর্তৃপক্ষ সোমবার অফিস সময়ে এই সিদ্ধান্ত নেন। শিক্ষক ছাত্রীর ফেসবুকে পোষ্ট করা ছবি এখন এলাকার যুবকদের হাতে হাতে। ছবিগুলো পৌঁছেছে সুবর্ণভূমির হাতেও। জাহাঙ্গীর উপজেলার হরিদাসকাটি ইউনিয়নের বাহাদুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক। তিনি পাশ্ববর্তী মাছনা গ্রামের আব্দুল আজিজ ফকিরের ছেলে।
এদিকে হিন্দুধর্মালম্বী ছাত্রীর সাথে মুসলিম শিক্ষকের সম্পর্কটা কোন ভাবেই মানতে পারছেন না এলাকাবাসী। ফলে বিষয়টি নিয়ে এলাকায় উত্তপ্ত অবস্থা বিরাজ করছে। ক্ষুব্ধ জনগণ শিক্ষকের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছেন। মঙ্গলবার সরেজমিন বাহাদুরপুর হাই স্কুলে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, ২০১৫ সালের মার্চের দিকে বাহাদুরপুর হাই স্কুলে ইংরেজি শিক্ষক হিসাবে যোগ দেন জাহাঙ্গীর আলম। স্কুলে যোগদানের কিছুদিনের মধ্যে ওই প্রতিষ্ঠানের ভিন্ন ধর্মালম্বী এক ছাত্রীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন জাহাঙ্গীর। সম্পর্কের সূত্রধরে পিকনিক স্পটসহ বিভিন্ন স্থানে গিয়ে ওই ছাত্রীর সাথে জাহাঙ্গীর আপত্তিকর ছবিও তোলেন। ছবিগুলো ক্যামেরা বন্দি করত ওই স্কুলেরই দশম শ্রেণির এক ছাত্রী। বিষয়টি জানতেন স্কুলের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা,এমনকি শিক্ষকরাও। এই নিয়ে শিক্ষকরা একাধিক বার জাহাঙ্গীরকে অনত্র বিয়ে করার জন্য চাপও দিয়েছেন। কিন্তু জাহাঙ্গীর তাতে রাজি না হয়ে ছাত্রীর সাথে সম্পর্ক ধরে রেখেছেন। ছাত্রীটি এবার ওই প্রতিষ্ঠান থেকে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। তার বাড়ি উপজেলার কামিনি ডাঙ্গায় হলেও বাহাদুরপুরে নানার বাড়ি থেকেই সে ওই স্কুলে লেখাপড়া করত। এদিকে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাত ১০ টা ৪৫ মিনিটে ‘জধহহু ঘড়ংব’ নামের একটি ফেসবুক আইডিতে জাহাঙ্গীর আলম ও সেই ছাত্রীর কয়েকটি ছবি পোষ্ট দেয়া হয়। যা গত ২৬ তারিখ নজরে আসে স্থানীয় যুবকদের। দ্রুত বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়দের তোপের মুখে পড়েন প্রধান শিক্ষক। ফলে বিষয়টি নিয়ে সোমবার দুপুরে আলোচনায় বসেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ। তারা অভিযুক্ত শিক্ষক জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বরখাস্ত করে পরিস্থিতি সামাল দেন। একই সাথে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে আগামী সাত দিনের মধ্যে রিপোর্ট প্রদানের জন্য বলেছেন পরিচালনা পর্ষদ। পাশাপাশি অভিযুক্ত শিক্ষক জাহাঙ্গীরকেও সাত দিনের মধ্যে জবাব দেয়ার জন্য কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে। আর ছবি তোলার কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ ১০ম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে ছাড়পত্র প্রদানের সিদ্ধান্ত নেন কমিটি।
এব্যাপারে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানের প্রধান হরিদাস মল্লিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘একজন ছাত্র আমাকে ফসেবুক থেকে ছবিটি দেখিয়েছে। বিষয়টি জানার সাথে সাথে ম্যানেজিং কমিটি ডেকে জাহাঙ্গীরকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। পাশাপাশি একটি তদন্ত টিমও গঠন করা হয়েছে।’
এই ছাত্রীর সাথে শিক্ষক জাহাঙ্গীরের সম্পর্ক আগে থেকে জানতেন কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন,‘আগে থেকে বিষয়টি জানতাম না। তবে শিক্ষকের চালচলন দেখে তাকে বিয়ে করার জন্য তিন মাসের সময় দিয়েছিলাম। তার মধ্যে দুই মাস সময় পার হয়েছে।’
মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলমকে অফিসে বসে থাকতে দেখা গেছে। তিনি জানান,‘আমার মাথা ব্যাথা করছে। তাই হেড স্যার আমাকে ক্লাস নিতে বারণ করেছেন।
মণিরামপুর মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আকরাম হোসেন খান বলেন,‘ সোমবার বিষয়টি জানা মাত্রই ওই শিক্ষককে বহিস্কারের নির্দেশ দিয়েছি। সেই মোতাবেক তাকে বহিস্কার করেছেন কমিটি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here