যশোরে বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতির উপর হামলার ঘটনা ৪ দিন পর মামলা দায়ের

0
401

হামলাকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে ১৩ আগষ্ট মানব বন্ধন কর্মসূচী

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর শহরের বাবু বাজার ও ঝালাইপট্টির বাসিন্দা বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি নুর নাহার রানুর উপর হামলার ঘটনায় চারদিন পর কোতয়ালি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার আসামীরা হচ্ছে,যশোর সদর উপজেলার ডহেরপাড়া গ্রামের মৃত সাবির হোসেন মিয়ার ছেলে আমির হোসেন,ঘোপ জেলরোড বাইলেন খসরু মিয়ার বাড়ির নিচ তলার ভাড়াটিয়া মাসুদের স্ত্রী ফতে বেগম,ছেলে রাব্বিসহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬জন। এদিকে মঙ্গলবার বিকেলে আহত রানুকে তার বাস ভবনে উই ক্যান (আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন বন্ধ করতে জোটভূক্ত নেতৃবৃন্দের অধ্যাপক আব্দুল লতিফ,ফিরোজা বুলবুল কলি,সামছুন্নাহার পান্না,এডাভের শাহজাহান নান্নুসহ বিভিন্ন এনজিও নেতৃবৃন্দ দেখতে যান। তারা রানুর উপর হামলা কারী এ্যাডভোকেট আমির হোসেনসহ তার সহযোগীদের গ্রেফতারের দাবিতে আগামী ১৩ আগষ্ট প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করার কথা জানান।
শহরের ঝালাইপট্টি ও বাবু বাজারের বাসিন্দা মৃত আব্দুর রহমান মোল্যার মেয়ে বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি মোছাঃ নুর নাহার রানু তার দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন,আমির হোসেন ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক বিয়ে করে। বিয়ের কাবিন নামা তার কাছে রেখে দিয়ে রানুর বাড়িতে অবস্থান নেয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন কৌশলে তার কাছ থেকে নগদ ১০লাখ টাকাসহ ৩০লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। পরবর্তীতে উক্ত টাকা নিয়ে তাদের মধ্যে মনমানিল্য হলে রানু তার টাকা ফেরত চায়। আমির হোসেন টাকা ফেরত না দিয়ে নানাভাবে তালবাহনার এক পর্যায় রানুর কাছে পুনরায় ৫লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে । যৌতুকের টাকা দিতে রানু অস্বীকার করলে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিটের এক পর্যায় শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। রানুর চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে আমির রানুর ঘর ছেড়ে দ্রুত সটকে পড়ে। পরবর্তীতে গত ৪ আগষ্ট শুক্রবার বিকেল আনুমানিক ৪ টায় আমির হোসেন তার ব্যক্তিগত মোবাইলের মাধ্যমে রানুকে ফোন দিয়ে টাকা দেওয়অর প্রলোভন দিয়ে ঘোপ জেলরোডস্থ বাইলেন খসরু মিয়ার বাড়ির নীচ তলার ভাড়াটিয়া ফতে বেগমের বাড়িতে আসতে বলে। রানু স্বামী আমির হোসেনের কথায় বিশ্বাস স্থাপন করে বিকেল সাড়ে ৪ টায় উক্ত ফতে বেগমের ভাড়া বাড়িতে পৌছায়। আমির হোসেন রানুকে কৌশলে ফতে বেগমের একটি কক্ষে নিয়ে দরজা বন্ধ করে দিয়ে আমির হোসেনসহ ফতে বেগম ও তা ছেলে রাব্বি রানুকে লোহার পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে আক্রমন করে। আমির হোসেন রানুকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা চেপে ধরে। রানু চিৎকার দিলে আশ পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আমির হোসেন রানুকে ছেড়ে দিয়ে তাকে স্বামী হিসেবে দাবি করলে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে দ্রুত সটকে পড়ে। স্থানীয় লোকজন রক্তাক্ত অবস্থায় রানুকে উদ্ধঅর করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আনে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক রানুর পরিস্থিতি খারাপ বুঝে দ্রুত ভর্তি করে দেন। রানু হাসপাতালে ওয়ার্ডের বিছানায় কাতরানোর এক পর্যায় কিছুটা সুস্থ্য হলে তাকে ছাড়পত্র দেওয়ায় বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। ৫আগষ্ট শনিবার সকালে রানু স্বাক্ষরিত এজাহার কোতয়ালি থানায় দায়ের করা হয়। আমির হোসেনসহ উল্লেখিত আসামীদের নাম ছাড়াও অজ্ঞাতনামা ৫/৬জনকে আসামী উল্লেখ করা হয়। প্রাথমিকভাবে কোতয়ালি থানার এসআই হাসানুর রহমান রানুর অভিযোগ তদন্ত কররে ঘটনার সত্যতা পান। পরবর্তীতে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসার ছাড়পত্র পাওয়ার পর মঙ্গলবার ৮ আগস্ট কোতয়ালি থানায় মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করা হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার আসামী কাউকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। অপর দিকে, এ্যাডভোকেট আমির হোসেনকে আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে শো’কজ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here