যশোরে বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি রানু’র হামলাকারী গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি পেশ

0
365

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোর বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি নুর নাহার রানু’র উপর হামলা প্রধান আসামী নির্যাতনকারী এডভোকেট আমির হোসেনসহ তার সহযোগীদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। রোববার বিকেলে যশোর শহরের মুজিব সড়কস্থ প্রেসক্লাব যশোরের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়।

আমরাই পারি পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট(উইক্যান) যশোর, লাইট হাউজ,ওয়াইডব্লিউসিএ,নারী নির্যাতন প্রতিরোধ নেটওয়ার্ক,যশোর অভিবাসী নারী কর্র্মী সংস্থা,সিডিএফ,শক্তি উন্নয়ন সংঘ,বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থা,পিডিসি,বুলবুল মহিলা কল্যাণ সংস্থা,বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন,এফপিএবি,ল্যাম্ফ,অর্পন মানব কল্যাণ সংস্থা,শিশু অধিকার জোট,জয়তী সোসাইটি,পিএসটিসি,এডাব ও সেভিয়ার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও কর্মীরা মানববন্ধনে অংশ নিয়ে প্রতিবাদ জানায়।

মানববন্ধন কর্মসূচীতে কথিত স্বামী নির্যাতনকারী প্রতারক এডভোকেট আমির হোসেন ও তার সহযোগী ফতে বেগম,রাব্বিকে গ্রেফতার দাবি করে বক্তব্য রাখেন, সাবেক কাউন্সিলর রাশিদা রহমান,ঝিকরগাছা উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাহিদা আক্তার,এডভোকেট তাহমিদ আকাশ,সুফিয়া মাহমুদ রেবা,ডাক্তার হাবিবা,ফিরোজা বুলবুল কলি,অধ্যাপক আব্দুল লতিফ,রাজিয়া খাতুনসহ জোটভূক্ত সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা। বক্তারা কথিত স্বামী এডভোকেট আমির হোসেনসহ তার সহযোগীরা গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

পাশাপাশি তারা অবিলম্বে এডভোকেট আমির হোসেনসহ তার সহযোগী ফতে বেগম,মাথায় পিস্তল ঠেকানো সন্ত্রাসী রাব্বিসহ যারা ঘটনার সাথে জড়িত তাদেরকে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় আনার জন্য পুলিশের উধ্বর্তন কতৃপক্ষে হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি পেশ করা হয়। উল্লেখ্য,গত ৪ আগষ্ট শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪ টায় শহরের বাবু বাজার ও ঝালাইপট্টি এলাকার বাসিন্দা বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি নুর নাহার রানুকে তার কথিত স্বামী প্রতারক যৌতুক লোভী এডভোকেট আমির হোসেন কৌশলে শহরের ঘোপ জেলরোড বাইলেন খসরুর বাড়িতে ডেকে নেয়।পরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে একটি কক্ষের মধ্যে নিয়ে লোহার পাইপ ও লাঠি সোটা দিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে মারপিট করে। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে আমির হোসেনসহ তার সহযোগীরা পালিয়ে গেলে রানুকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।

রানু পরের দিন ৫ আগষ্ট শনিবার কোতয়ালি থানায় আসামীদের নাম উল্লেখ করে এজাহার দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে কোতয়ালি মডেল থানার এসআই হাসানুর রহমান প্রাথমিকভাবে ঘটনার তদন্ত করে সতত্য পান। পরে এজাহার হিসেবে নথিভূক্ত করেন। হামলা ও নির্যাতন ঘটনা ১০ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ এডভোকেট আমির হোসেন ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করতে পারেনি। এদিকে আমির হোসেন রানুর আত্মীয় স্বজনকে মামলা তুলে নিতে নানাভাবে হুমকী ধামকী দিচ্ছে। রানু হুমকীর কারনে চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভূগছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। তাই অবিলম্বে হামলাকারীরা গ্রেফতার না হলে যে কোন মুর্হুতে রানু আক্রান্তর শিকার হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করছেন তার পরিবার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here