যশোরে বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি রানু স্বামী আমির হোসেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে আইনজীবী সমিতিতে আবেদন

0
619

এম আর রকি : শহরের বাবু বাজার ও ঝালাইপট্টির বাসিন্দা নুর নাহার ওরফে রানু’র উপর হামলাকারীদের পুলিশ গত ৪ দিনেও গ্রেফতার করতে পারেনি। রানুর দায়েরকৃত অভিযোগ নাম মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করেনি। অপরদিকে,বিয়ে নাটকের হোতা এডভোকেট মোহাম্মদ আমির হোসেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়ে যশোর জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন।
যশোর বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি নুর নাহার ওরফে রানু তার দায়েরকৃত আবেদনে জানিয়েছেন, যশোর সদর উপজেলার ডহেরপাড়া গ্রামের মৃত সাব্বির হোসেন মিয়ার ছেলে এডভোকেট মোহাম্মদ আমির হোসেনের সাথে বিগত ৫ বছর পূর্বে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক কাজীর মাধ্যমে বিয়ে হয়। বিয়ের পর কাগজপত্র আমির হোসেন তার হেফাজতে রাখেন। বিয়ের পর আমির হোসেন বাবু বাজার ঝালাইপট্টির রানুর নিজস্ব বাড়ির দোতলায় স্বামীস্ত্রী হিসেবে বসবাস করে আসছে। ঘর সংসার করার এক পর্যায় আমির হোসেন স্ত্রী রানুকে আমির হোসেন কাশিমপুর ইউনিয়ন হতে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করার কথা বলে রানুর কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা এবং বিভিন্ন সময় আরো ২০লাখ টাকা ধার হিসেবে গ্রহন করে।এছাড়া, ৫ ভরি ওজনের একটি সোনার গলার হার রানুর কাছ থেকে গ্রহন করেন। এরপর আমির হোসেন গত ১৪ জুলাই রাত অনুমান ৯ টার সময় রানুর বাড়িতে অবস্থান কালে স্ত্রী রানুর কাছে আরো ৫লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করলে আমির হোসেন রানুকে মারপিট করে দুই হাত দিয়ে রানুর গলা চেপে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা চালায়। রানু প্রান বাঁচাতে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আমির হোসেন দ্রুত উক্ত বাড়ি হতে চলে যায়। তার পর হতে আমির হোসেন শহরের ঘোপ জেলরোডস্থ বাইলেন খসরু মিয়ার বাড়ির নীচতলার ভাড়াটিয়া মাসুদের স্ত্রী ফতে বেগমের বাড়িতে অবস্থান নেয়। ফতে বেগমের সাথে অবৈধভাবে মেলামেশা ও রাত্রীযাপন করতে থাকে। রানুর সাথে কোন যোগাযোগ করেন না। হঠাৎ গত ৩ আগষ্ট বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৪ টায় আমির হোসেন তার মোবাইল ফোন দিয়ে রানুর মোবাইলে ফোন করেন। ফোনে বলেন, ঘোপ জেল রোডস্থ খসরুর বাড়ির ভাড়াটিয়া ফতে বেগমের বাড়িতে আসতে বলে। রানু সরল বিশ্বাসে উক্ত বাড়িতে গেলে আমির হোসেন কৌশলে উক্ত ঘরের একটি কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে কথা বার্তার এক পর্যায় আমির হোসেন ও ফতে বেগম এবং তার ছেলে রাব্বি’র সহায়তায় রানুর কাছে আরো ৫লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। রানু যৌতুকের টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করার সাথে সাথে আমির হোসেন ও তার সহযোগী ফতে বেগম ও রাব্বির সহায়তায় রানুকে লোহার পাইপ দিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে মাথায়,পিঠে,হাতে,পায়ে,নাকে ও মুখে মারত্মক আঘাত করে রক্তাক্ত ও রক্তমাখা ফোলা জখম করে এবং আমির হোসেন গলা চেপে হত্যার চেষ্টা করে। রানুর চিৎকারে আশপাশের লোকজন আসলে আমির হোসেন রানুকে বলে পুনরায় তাকে স্বামী হিসেবে দাবি করলে জীবনে শেষ করে ফেলবে বলে হুমকী দিয়ে উক্ত বাড়ি হতে দ্রুত চলে যায়। রানুকে গুরুতর আহত অবস্থায় যশেঅ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আবেদনে উল্লেখ করেন, আমির হোসেন আইনজীবী সমিতির নিয়মিত সদস্য হওয়ার কারনে আইনজীবীদের সহযোগীতায় বিভিন্ন ধরনের মারাত্মক ক্ষতি করবে মর্মে হুমকী দিয়ে আসছে। সে আইনজীবী সমিতির সদস্য বিধায় তাকে কিছুই করতে পারবেনা এবং সকল আইনজীবী রানুর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করার হুমকী দেয়। রানু বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে জীবন যাপন করছে। রানু আইনজীবী সমিতির নেতৃবৃন্দের কাছে আমির হোসেনের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের প্রার্থনা জানিয়েছেন। রানুর দায়েরকৃত অভিযোগ নামা জেলা আইনজীবী কার্যালয় নেতৃবৃন্দ গ্রহন করেছেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here