যশোরে বহুলালোচিত আইনজীবী ও অর্থলোভী আমির হোসেন আইনজীবী সমিতি থেকে বরখাস্ত

0
314

বিশেষ প্রতিনিধি: যশোরে স্ত্রী নির্যাতনকারী বহুলালোচিত আইনজীবী আমির হোসেনকে জেলা আইনজীবী সমিতি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার সমিতির সাধারণ সম্পাদক এমএ গফুর সাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ গফুর সাংবাদিকদের জানান,আমির হোসেনের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা, অভিযোগকারীর সমিতিতে আবেদন, কারণ দর্শানো নোটিশের জবাব সময়মত না দেয়া, যশোরের পত্র-পত্রিকায় তাকে জড়িয়ে সংবাদ প্রকাশে সংগঠনের সুনাম মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হয়েছে। এ কারণে তাকে সংগঠন থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। এখন থেকে আমির হোসেন সব আদালতে আইনজীবী হিসাবে সকল প্রকার কার্যক্রম থেকে বিরত থাকবেন।এদিকে আমির হোসেন প্রকাশ্যে থাকলেও তাকে আটক করছে না পুলিশ। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন মামলার আসামি হয়েও তিনি আদালতে গিয়ে মামলা পরিচালনা করছেন। এমন কি আইনজীবীদের বিভিন্ন আন্দোলনে তিনি প্রকাশ্যে অংশ গ্রহণ করছেন। যা নিয়ে সচেতন মহলে প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালি থানার এসআই হাসানুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, শুনেছি আমির হোসেন প্রকাশ্যে কিন্তু সংবাদ পেয়ে সেখানে হাজির হলে তাকে পাওয়া যাচ্ছেনা। তাকে আটকের অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, শহরের বাবু বাজার ও ঝালাইপট্টি সংলগ্ন বাসিন্দা ও বঞ্চিতা সমাজ কল্যাণ সংস্থা যশোরের সভাপতি নুর নাহার ওরফে রানুর সাথে ৫ বছর আগে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক আমির হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তারা শহরের বাবুবাজার ঝালাইপট্টি এলাকায় রানুর দোতলা বাড়িতে বসবাস করতেন। বিয়ের কাগজপত্র আমির হোসেন তার নিজের হেফাজতে রাখেন। ঘরসংসার করাকালীন আমির কাশিমপুর ইউনিয়ন থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার আশা পোষন করে রানুর কাছ থেকে নির্বাচনী ব্যয়ের জন্য নগদ ১০ লাখ টাকা এবং বিভিন্ন সময়ে আরো ২০ লাখসহ মোট ৩০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। এছাড়া ৫ ভরি ওজনের একটি সোনার চেইন তার কাছ থেকে হাতিয়ে নেন আমির। গত ১৪ জুলাই রাত নয়টার দিকে আমির যৌতুকের জন্য আরো ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। এ টাকা দিতে অস্বীকার করায় ৪ আগষ্ট শুক্রবার বিকেলে আমির তার সহযোগী শহরের ঘোপ জেলরোডস্থ বাইলেন খসরুর বাড়ির নিচ তলার ভাড়াটিয়া প্রবাসী মাসুদের স্ত্রী ফতে বেগম ও তার ছেলে রাব্বির সহযোগীতায় রানুকে টাকা দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে উক্ত বাড়িতে ডাকে।

সেখানে যাওয়ার সাথে এলোপাতাড়ীভাবে মাররপিটের এক পর্যায় শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা চালায় আমির হোসেন। পরে রানু চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন ওই বাড়িতে আসলে আমির দ্রুত সটকে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় রানুকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তিকরা হয়। পরের দিন ৫ আগষ্ট শনিবার রানু বাদি হয়ে হামলাকারীদের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬জনের নামে অভিযোগ দায়ের করেন। পরে তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সত্যতা পাওয়ার পর কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা রুজু করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here