যশোরে বাসের মধ্যে ধর্ষণের শিকার নারীর জবানবন্দি

0
190

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে বাসের মধ্যে ধর্ষণের শিকার নারী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। এমকে পরিবহনের হেলপার মনিরুল তাকে ধর্ষণ ও তিনজন শ্লীলতাহানি এবং মারপিট করেছিল বলে জবানবন্দিতে জানিয়েছে । মঙ্গলবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক শম্পা বসু তার এ জবানবন্দি গ্রহণ করেন। পরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক টিএম মুসা জিম্মা আবেদনের শুনানি শেষে ভাইয়ের জিম্মায় দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।

সূত্রে জানা গেছে, ওই নারী শেল্টার হোমে ছিল। ওই নারীর ভাই আইনজীবীর মাধ্যমে বোনকে জিম্মায় পাওয়ার জন্য আদালতে আবেদন করেন। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে জিম্মা আবেদনের শুনানিকালে এজাহারের বক্তব্যের দ্বিমত পোষণ করেন। এ সময় বিচারক তার জবানবন্দি গ্রহণের আদেশ দেন। এরপর ভুক্তভোগী জুডিসিয়াল ম্যজিস্ট্রেট আদালতে তার জবানবন্দি প্রদান করেন। পরে জিম্মা আবেদনের শুনানি শেষে বিচারক তাকে তার ভাইয়ের জিম্মায় দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।

জবানবন্দিতে ওই নারী জানিয়েছেন, বাসের হেলপার মনিরুল ইসলাম মনি তার পূর্ব পরিচিত। ঘটনার দিন বিকেলে রাজশাহী থেকে বাসে উঠলে রাতে যশোরের মণিহার এলাকায় এসে পৌঁছান। এ সময় তিনি ও তার পূর্ব পরিচিত মনিরুল ইসলাম মনি সেখানকার একটি হোটেলে খাওয়া দাওয়া করেন। পরে মনিরুল ইসলাম মনি রাতে তাকে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে রিক্সায় করে তার গাড়ির কাছে নিয়ে যায়। এরপর মনিরুল গাড়ি চালিয়ে অপরিচিত একটি জায়গায় নিয়ে রাখে। বাসের দরজায় ভিতর থেকে তালা লাগিয়ে মনিরুল তাকে ধর্ষণ করে। কিছুক্ষণ পর দরজায় ধাক্কাধাক্কি শুনে মনিরুল বাসের দরজা খুলে দিলে ভিতরে এসে দুইজন তাকে মারধর ও শ্লীলতাহানি ঘটায়। এরপর বাসের মধ্যে আরও একজন এসেছিল। তবে তিনি ওই তিনজনের কাউকে চেনেন না বলে জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ অক্টোবর রাতে বকচর কোল্ডস্টোরের সামনে এমকে পরিবহনের একটি বাসের ভেতর ওই নারীকে পূর্বপরিচিত মনিরুল ইসলাম মনি আশ্রয় দেয়ার কথা বলে নিয়ে যায়। এরপর সে তাকে ধর্ষণ করে। পরে ওই রাতে আরও ৬ শ্রমিক সেখানে গিয়ে তাকে মারধর এবং এর মধ্যে ৩ জন তার শ্লীলতাহানি ঘটান এমন অভিযোগ এনে কোতয়াল থানায় মামলা করেন ওই নারী। অভিযুক্তদের মধ্যে মনিরুল ইসলাম মনি গত ১০ সেপ্টেম্বর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিল।